Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 4.0/5 (1 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৬-০৬-২০১৬

মোটরসাইকেলে ৩ জন ওঠাই যাবে না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

মোটরসাইকেলে ৩ জন ওঠাই যাবে না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ঢাকা, ০৬ জুন- এখন থেকে এক মোটরসাইকেলে যাতে তিন জন চলাফেরা করতে না পারে তা নিশ্চিত করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যে কোনো পদক্ষেপ নেবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

আগের দিন চট্টগ্রামে একটি মোটরসাইকেলের তিন আরোহীর হামলায় এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী নিহত হওয়ার প্রেক্ষাপটে সোমবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের একথা বলেন তিনি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “কতগুলো বিধিনিষেধ আরোপ করতে যাচ্ছি। তিনজন আরোহী যে মোটরসাইকেলে চলবে তাকে আমরা বাধা দেব, ধরব, চেক করব।”

‘তিন জন নিয়ে মোটরসাইকেল চালাতে দেব না’ বলে জোর দিয়ে কামাল বলেন, “অনেকে ফ্যামিলি নিয়ে যায় এজন্য পুলিশ কিছুটা রিল্যাক্স থাকে।কিন্তু এখন পরিষ্কার নির্দেশনা দিয়ে দেব, তিন জন কোনো মোটরসাইকেলে কোনোভাবেই উঠতে পারেবেন না।

“কারণ যতগুলো ঘটনা হচ্ছে, এই মোটরসাইকেলে করেই যাচ্ছে। আমরা অগ্নি-সন্ত্রাসের সময় বলেছিলাম, দুই জনও কোনো মোটরসাইকেলে উঠতে পারবে না। তখন অগ্নি-সন্ত্রাস কমেছিল। এখন আমরা আবার মোটরসাইকেলের উপর কড়াকড়ি আরোপ করছি।”

রোববার ছেলেকে স্কুল বাসে তুলে দিতে যাওয়ার সময় মোটরসাইকেলে করে আসা তিন হামলাকারী চট্টগ্রামের জিইসি মোড় সংলগ্ন একটি মিষ্টির দোকানের সামনে এসপি বাবুলের স্ত্রী মাহমুদা আক্তার মিতুকে প্রথমে ছুরি মারে এবং পরে মাথায় গুলি করে মৃত্যু নিশ্চিত করে চলে যায়।

ওই মোটরসাইকেলটি এর মধ্যে জব্দ করা হয়েছে বলে পুলিশ যে দাবি করছে, তার কথা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীও বললেন, “ওই মোটরসাইকেলটি এর মধ্যেই আমরা উদ্ধার করত সক্ষম হয়েছি।

“কার নামে মোটরসাইকেলটির নিবন্ধন আছে, কারা এটি ব্যবহার করেছেন সবই পেয়ে যাব। গোয়েন্দা বাহিনী সর্বাত্মক প্রচেষ্টা নিয়েছে এই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটনের জন্য।”

পুলিশপত্নী হত্যাকাণ্ডের ‘মোটিভ’ থেকে শুরু করে এর সঙ্গে জড়িত এবং পরিকল্পনাকারীদের বের করা হবে বলেও জানান মন্ত্রী।

এদিকে চট্টগ্রামের পুলিশ কমিশনার ইকবাল বাহার জানান, এ হত্যাকাণ্ডে সন্দেহভাজন হিসেবে জেএমবির সংশ্লিষ্টতাকে প্রধান্য দিয়ে সব দিক খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

তিনি বলেন, “জেএমবির সংশ্লিষ্টতাকে প্রাধান্য দিয়ে খতিয়ে দেখছি, কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে। শুরুতে একটি বিষয় নিয়ে পড়ে থাকলে হচ্ছে না। সব কিছু নিয়ে আমাদের এগোতে হচ্ছে।”

রাতভর অভিযানের মধ্যে একটি মোটরসাইকেল জব্দ করার কথা তিনিও বললেন।

এই হত্যার ঘটনায় পাঁচলাইশ থানার এসআই ত্রিরতন বড়ুয়া রোববার রাতে একটি মামলা করেছেন, যাতে অজ্ঞাতনামা কয়েকজনকে আসামি করা হয়েছে।

সিএমপি কমিশনার ইকবাল বলেন, “মূলত ডিবি (গোয়েন্দা শাখা) এই তদন্ত করবে সব বিভাগের সহযোগিতা নিয়ে।”

পুলিশের মনোবল ভাঙতেই এই হত্যা
বাবুল আক্তারকে চৌকস কর্মকর্তা উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “তার স্ত্রীকে হত্যা করা হয়েছে। এই ধরনের পৈচাশিক হত্যাকাণ্ড, জঘন্য হত্যাকাণ্ড ঘটবে- মহিলাদের উপর এ ধরনের আক্রমণ হবে- তা ধারণার বাইরে ছিল।

‘টার্গেট করে হত্যা করা হচ্ছে’ বলে মন্তব্য করে কামাল বলেন, “পুলিশের মনোবল যাতে নষ্ট হয় সেজন্য জঙ্গিরা এ ধরনের প্রচেষ্টা চালিয়েছে। যে পর্যন্ত খুনিকে না পাব সব ধরনের প্রচেষ্টা চলবে।

“কালকের যে ঘটনা এদেরও ধরে ফেলব, ধরে তাদের চেহারাটা আপনাদের (সাংবাদিক) দেখিয়ে দেব। সব খুনিকেই ধরছি, কেনো খুনিই বাদ যাবে না।”

পুলিশ কর্মকর্তা ও তাদের পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তায় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

কি ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হবে সে বিষয়ে কিছু না জানিয়ে তিনি বলেন, “আমরা আলাপ করব, আমরা চিন্তা করব তাদের (পুলিশ) পরিবার-পরিজনরা যেন সেইফ থাকে।”

এ ধরনের হত্যার ঘটনায় তিনটির বিচার চলছে এবং ছয়টির অভিযোগপত্র জমা দেওয়া হয়েছে জানিয়ে কামাল বলেন, এই দুটি হত্যাকাণ্ডের আগে ৩৭টি ঘটনা ঘটেছিল, যার ৩৫টি সনাক্ত করা হয়েছে। ৪৯ জন ১৬৪ ধারায় দোষ স্বীকার করেছেন। সন্দেহভাজন হিসেবে আটক আছেন ১৪৪ জন।

“টার্গেটেড কিলিং হচ্ছে; আভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক ষড়ষন্ত্র আছে। আমরা হাতেনাতে দেখিয়েও দিয়েছি কারা ষড়যন্ত্র করছে। আমরা এখন সেই জায়গায় কাজ করছি। এগুলো বন্ধ করতে যা করা দরকার তা করছি।”

‘টার্গেটেড কিলিং’ বন্ধ করতে গোয়েন্দাদের নজরদারি বাড়াতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলেও জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

এসব হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় আন্তর্জাতিক গোয়েন্দা সংস্থা জড়িত রয়েছে বলেও তার দাবি।

“যার প্রমাণ স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল তাকে কিন্তু গ্রেপ্তার করেছি। আমরা প্রমাণ ছাড়া কাউকে অ্যারেস্ট করি না। আর কারা কারা জড়িত সেই প্রমাণের অপেক্ষায় আছি। আমাদের কাছে অনেক তথ্য আছে। অনেকেই ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িত আছে।”

গোয়েন্দারা অনেক সময় সঠিক সময়ে খুনিদের পরিকল্পনার তথ্য দিতে পারছে না বলেও স্বীকার করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

আইএস বায়বীয়
বাংলাদেশের বিভিন্ন হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে আইএস বিবৃতি দিলেও দেশে এই জঙ্গি সংগঠনের অস্তিত্বের কথা ফের অস্বীকার করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

“আইএসের কোনো প্রশ্নই নেই। আমাদের দেশে আইএস নেই। এটা বায়বীয় জিনিস, খালি মুখে মুখেই বলছে। আমি তো সারা বাংলাদেশ ঘুরে বেড়াচ্ছি কোনো আইএ’র চিহ্ন নাই।

“তারা বলে, আইএস মানে ইসলামিক স্টেট। ইসলামিক স্টেটের কর্ম এটা নাকি- একটা নিরীহ মহিলাকে হত্যা করা, ধর্ম যাজককে হত্যা করা, নামাজরত অবস্থায় মোয়াজ্জিনকে হত্যা করা, একজন বিদেশি নাগরিককে হত্যা করা? এগুলো ইসলামিক স্টেটের কাজ হতে পারে নাকি?

“কাজেই এগুলো স্পষ্ট, এগুলো পরিষ্কার যে এটা একটা ষড়যন্ত্র।”

আর/১৭:১৪/০৬ জুন

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে