Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৬-০৫-২০১৬

মোহাম্মদ আলীর স্ত্রীরা

মোহাম্মদ আলীর স্ত্রীরা

কিংবদন্তী মুষ্টিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী আর নেই। শুধু একজন খেলোয়াড় হিসেবে নয় একজন দয়ালু, উষ্ণ হৃদয়ের মানুষ হিসেবেও খ্যাতি পেয়েছিলেন তিনি। অনেক বড় একটি পরিবার রেখে গেছেন তিনি। তার নয় সন্তান। তিনি বিয়ে করেছিলেন চার বার। সর্বশেষ স্ত্রী ইয়োলান্ডা উইলিয়ামের (এখন লনি আলী) সঙ্গে ছিলেন জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত। তার স্ত্রীদের বিভিন্ন মুহূর্তে কিছু ছবি

নিচের ছবিতে বর্তমান স্ত্রী লোনি আলীর সঙ্গে মোহাম্মদ আলী।


প্রথম স্ত্রী সনজি রয়। তাদের দেখা হয় ১৯৬৪ সালে। মোহম্মদ আলীর বয়স তখন ২২ আর সনজির বয়স ২৩ বছর। তখনও তিনি খ্রিস্টান। নাম ক্যাসিয়াস ক্লে। ইসলাম গ্রহণের পর হলেও মোহাম্মদ আলী। কিন্তু বিয়ের পরও সনিজ তার নাম পরিবর্তন করেননি।


১৯৬৫ সালের জুনে তোলা এই ছবি। ইতিমধ্যে তাদের বিচ্ছেদ হয়ে গেছে। মোহাম্মদ আলীর ইসলামের প্রতি অত্যধিক ঝুঁকে পড়ার কারণেই তাকে ছেড়ে যান সনজি। তার মনে হচ্ছিল, এই ধর্মটি তার স্বামীকে তার কাছ থেকে কেড়ে নিয়ে গেছে। এ কারণে এক ধরনের ইসলাম বিদ্বেষও পোষণ করতেন তিনি।


মোহাম্মদ আলীর দ্বিতীয় স্ত্রী বেলিন্ডা বয়েড। তাদের চার সন্তান। মোহাম্মদ আলী বেলিন্ডার আট বছরের বড়। ১৯৭৪ সালে যখন তাদের বিয়ে হয় মোহাম্মদ আলী তখন ভেরোনিকা পোর্শের সঙ্গে প্রেম করছেন। পরবর্তীতে অবশ্য ভেরোনিকাকে বিয়ে করেন তিনি।


বেলিন্ডা পরে ইসলাম গ্রহণ করেন এবং নাম পরিবর্তন করে রাখেন খালিলাহ কামাকো আলী। এই স্ত্রীর গর্ভে জন্ম নেয় চার সন্তান। এরা হলো: মরিয়ম, জামিলা, রাশেদা এবং মোহাম্মদ আলী জুনিয়র।


পোর্শের সঙ্গে যখন প্রেম চলছে তখন মোহাম্মদ আলী তার দ্বিতীয় স্ত্রীর সঙ্গে ঘর করছেন। পোর্শেকে বিয়ে করার পর তাদের দুই সন্তান হয়: হানা এবং লাইলা আলী। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, ভেরোনিকা পোর্শে আলী এবং তার কন্যা হানা আলী। ২০১৪ সালের ৮ অক্টোবর ক্যালিফোর্নিয়ায় হলিউডের একটি ক্লাবে ‘আই অ্যাম আলী’ শীর্ষক পার্টিতে।


১৯৭৪ সালে তোলা ছবি। হিথ্রু এয়ারপোর্টে মোহাম্মদ আলী ও স্ত্রী ভেরোনিকা পোর্শে আলী। ইউএসএ টুডে পত্রিকা জানায়, এরা পরে তখন গোপনে বিয়ে করেন। শুধু আলীর শরীর ম্যাসাজকারী এবং ব্যক্তিগত কর্মকর্তারা ছাড়া কেউ জানতো না।


১৯৭৬ সালের ৯ মার্চে লন্ডন এয়ারপোর্টে মোহাম্মদ আলী এবং তার তখনকার গার্লফ্রেন্ড মডেল ভেরোনিকা পোর্শে। এর এক বছর পর তারা বিয়ে করেন। এই বিয়ে টিকে ছিল নয় বছর। বিচ্ছেদের পর ভেরোনিকা পোর্শে মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে বিশ্বাসঘাতকতার অভিযোগ এনেছিলেন।


ইয়োলান্ডা উইলিয়াম (পরে লোনি আলী) এবং মোহাম্মদ আলী অনেক দিন ধরেই ভালো বন্ধু ছিলেন। ১৯৬৪ সালে আলী বিখ্যাত আগেও ইয়োলান্ডা তার পাশে ছিলেন। বিয়ের পর আলীর মৃত্যুর আগে পর্যন্ত তাদের ৩০ বছরের দাম্পত্য বেশ সুখেই কেটেছে। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, চলতি বছরে জেডব্লিউ ম্যারিয়ট ফিনিক্স ডেজার্ট রিজ রিসোর্টে মোহাম্মদ আলী’স সেলিব্রিটি ফাইট নাইট এর ২২তম  পর্বে মঞ্চে কথা বলছেন লোনি আলী।


স্বামীর পাশে লোনি আলী। তখন আলীর পারকিনসনসের অবস্থা খুব ভয়াবহ। তারা আসাম আমিন নামে একটি সন্তান দত্তক নিয়েছিলেন যখন তার বয়স মাত্র ৫ মাস।


আর/১২:০৪/০৫ জুন

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে