Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৬-০৩-২০১৬

ভোটের মাঠে কে এই ললনা, চাপে সিব্বল

ভোটের মাঠে কে এই ললনা, চাপে সিব্বল

নয়াদিল্লী, ০৩ জুন- দিল্লির রাজনীতিতে এত দিন প্রীতি মহাপাত্রের নাম শুনেছেন, এমন ব্যক্তির সংখ্যা হাতেগোনা। কিন্তু এখন ৩৭ বছরের এই মহিলাকে নিয়েই জোর চর্চা, কে ইনি!

কারণ অবশ্য রয়েছে। উত্তরপ্রদেশ থেকে রাজ্যসভার ভোটে শেষবেলায় মনোনয়ন জমা দিয়েছেন প্রীতি। নির্দল প্রার্থী হিসেবে। কিন্তু তাঁর নাম প্রস্তাব করেছেন ১৬ জন বিজেপি বিধায়ক। প্রীতি ‘নরেন্দ্র মোদী বিচার মঞ্চ’ নামক একটি সংগঠনের মহিলা শাখার সভানেত্রী। কিছু দিন আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর পাশে দাঁড়ানো প্রীতির ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছিল। এখন প্রীতিকে দেখে অনেকেরই সেই ছবির কথা মনে পড়েছে। প্রীতি ও তাঁর স্বামী, মুম্বইয়ের রিয়্যাল এস্টেট ব্যবসায়ী হরিহর মহাপাত্র মোদীর ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত। তাঁদের সমাজ সেবা সংগঠন কৃষ্ণলীলা ফাউন্ডেশন গুজরাতের অনগ্রসর এলাকায় দশ হাজার শৌচাগার তৈরির কাজ করছে। প্রীতি অমিত শাহেরও ঘনিষ্ঠ বলে বিজেপি দফতরে কানাঘুষো চলছে। মোদী তাঁর ‘মন কি বাত’-এও প্রীতির প্রশংসা করেছেন।

বিজেপি সূত্রের খবর, লখনউয়ে রটে গিয়েছে প্রীতির পাশে দাঁড়ালে নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহকেও সন্তুষ্ট করা যাবে। আগামী বছরের বিধানসভা ভোটে টিকিট মেলাও নিশ্চিত। কিন্তু বিজেপি ছাড়াও সপা, বসপা, আপনা দল, এনসিপি বিধায়করাও প্রীতির গ্ল্যামারের ছটায় কুপোকাত। তাঁরাও প্রীতির সঙ্গে এক ফ্রেমে আসতে কুস্তি করছেন। তাতেই চাপে পড়ে গিয়েছেন কপিল সিব্বল।

উত্তরপ্রদেশ থেকে এই প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে সংসদে ফিরিয়ে আনতে চেয়েছিল কংগ্রেস। সেখানে ১১টি আসনে নতুন প্রার্থী নির্বাচন হবে। প্রীতি মনোনয়ন জমা না দিলে কোনও ভোটাভুটি হতো না। কিন্তু প্রীতি মাঠে নামায় ভোটাভুটি অনিবার্য। সে ক্ষেত্রে সিব্বলের রাজ্যসভায় ফেরার পথ কঠিন হয়ে যেতে পারে। ১১ জুনের ভোটের অঙ্ক বলছে, সিব্বলকে রাজ্যসভায় আসতে হলে কংগ্রেসের ২৯ জন বিধায়কের ভোট ছাড়া আরও পাঁচটি ভোট পেতে হবে। বিজেপি অন্য দলের ও নির্দল বিধায়কদের পেতে মাঠে নেমে পড়েছে। মায়াবতীর দলের ভোট কোন দিকে যাবে, তার উপর অনেকটাই নির্ভর করছে প্রীতির ভবিষ্যৎ।

শুনে মুচকি হাসছেন প্রীতি। বলছেন, ‘‘আমার জন্য উত্তরপ্রদেশের রাজনীতি হঠাৎ করেই গ্ল্যামারাস ও রঙিন হয়ে উঠেছে, তাই না! আচ্ছা বলুন তো, মহিলাদের কেন সুন্দর দেখাবে না! তাতে কারও অসুবিধা হলে সেটা তাঁদের সমস্যা।’’ তাঁর বক্তব্য, তিনি বিজেপির নন, নির্দল প্রার্থী। বিজেপি বা অন্য দলের কেউ তাঁকে ভোট দিলে তা নিজেদের মনের কথা শুনেই দেবেন। তাঁর সঙ্গে মোদী বা অমিত শাহের ঘনিষ্ঠতা নিয়েও মুখ খুলতে রাজি নন প্রীতি। তাঁর বক্তব্য, লোকে অনেক কথাই বলে। প্রধানমন্ত্রী বা মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ছবি তুললেই কারও রাজনৈতিক যোগাযোগ তৈরি হয় না। ফেসবুকে অবশ্য মোদীকে তাঁর ‘আইডল ও মেন্টর’ হিসেবে উল্লেখ করেছেন প্রীতি। অমিত শাহকেও তিনি শ্রদ্ধা করেন বলে প্রীতির দাবি। কিন্তু এত রাজ্য থাকতে উত্তরপ্রদেশই কেন? প্রীতির যুক্তি, ‘‘উন্নয়নে পিছিয়ে থাকা রাজ্যে অনেক কাজের সুযোগ। প্রধানমন্ত্রীও এখান থেকেই সাংসদ।’’

হরিহর ও প্রীতি মহাপাত্র সম্পর্কে খোঁজ নিলে অবশ্য মোদী-অমিত শাহের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা ছাড়াও আরও অনেক গুজব শোনা যায়। কিছু দিন আগে যেমন সুরাতে বিশ্বের উচ্চতম বাড়ি তৈরির পরিকল্পনা নিয়েছিলেন হরিহর। দুবাইয়ের বুর্জ খলিফার থেকেও উঁচু, ১.২ কিলোমিটার লম্বা বাড়ি। কিন্তু সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হয়নি। হরিহর নাকি ব্যবসায় ফায়দা তুলতে প্রায়ই নিজের রাজনৈতিক যোগাযোগের ঢাক পেটান। কিছু দিন আগে এক চিকিৎসক দম্পতি হরিহর-প্রীতির বিরুদ্ধে ফ্ল্যাট বেচার নামে ৫.৫ কোটি টাকা জালিয়াতির অভিযোগ তোলেন। আদালতে সেই অভিযোগ খারিজ হয়ে যায় বলে প্রীতির দাবি।

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে