Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৫-৩০-২০১৬

রিজার্ভ চুরি: পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন মুহিতের হাতে, প্রকাশ ‘২০ দিনের’ মধ্যে

রিজার্ভ চুরি: পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন মুহিতের হাতে, প্রকাশ ‘২০ দিনের’ মধ্যে

ঢাকা, ৩০ মে- রিজার্ভ থেকে অর্থ ‘খোয়া’ যাওয়ার ঘটনায় সাবেক গভর্নর মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিনের নেতৃত্বাধীন তদন্ত কমিটি তাদের পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন জমা দিয়েছে সরকারের কাছে। 

সোমবার দুপুরে অর্থ মন্ত্রণালয়ে ফরাসউদ্দিনের হাত থেকে ওই প্রতিবেদন বুঝে নেওয়ার পর অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত সাংবাদিকদের বলেছেন, আগামী ১৫ থেকে ২০ দিনের মধ্যে ওই প্রতিবেদন প্রকাশ করতে পারবেন বলে তিনি আশা করছেন।

আর তদন্ত কমিটির প্রধান ফরাসউদ্দিন বলেছেন, রিজার্ভ চুরিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের কারও সম্পৃক্ততা নেই বলে আগে তারা ধারণা করলেও চূড়ান্ত প্রতিবেদনে ওই অবস্থান থেকে তারা ‘সামান্য’ সরে এসেছেন। 

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ফরাসউদ্দিন বলেন, “সুইফটেরও দায় দায়িত্ব আছে, সম্পূর্ণ দায় বা মূল দায় তাদের কি না, সেই বিশ্লেষণও প্রতিবেদনে আছে। সুফইট কখনো দায় এড়াতে পারে না। তবে সুইফটের সাহায্য নিয়েই আামদের ভবিষ্যতের প্রবলেমটা সলভ করতে হবে।” 

চুরি যাওয়া টাকার মধ্যে কীভাবে টাকা কতোটা আদায় করা সম্ভব- তার একটা চিত্রও প্রতিবেদনে দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। “বেশ ভালো একটা আশাব্যাঞ্জক চিত্র আমরা দিয়েছি।” বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবিরও প্রতিবেদন জমার সময় উপস্থিত ছিলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অফ নিউ ইয়র্ক থেকে বাংলাদেশের গচ্ছিত আট কোটি ১০ লাখ ডলার গত ফেব্রুয়ারিতে ফিলিপিন্স ও শ্রীলঙ্কার দুটি ব্যাংকে সরানো হয়েছিল ভুয়া বার্তা পাঠানোর মাধ্যমে।

একইভাবে শ্রীলঙ্কায় ২ লাখ ডলার সরানো হলেও শেষ মুহূর্তে তা আটকানো হয়। রিজার্ভের অর্থ ‘খোয়া’র ঘটনায় গত ১৫ মার্চ ৩ সদস্যের এ তদন্ত কমিটি গঠন করে সরকার।

এ কমিটির অপর দুই সদস্য হলেন- বুয়েটের কম্পিউটার সাইন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক মোহাম্মদ কায়কোবাদ এবং ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের উপ-সচিব গকুল চাঁদ দাস।

কমিটি গঠন সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছিল, এ কমিটি বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে পেমেন্ট ইন্সট্রাকশন কীভাবে ও কার বরাবর গেল, অবৈধ পরিশোধ ঠেকানোর লক্ষ্যে গৃহীত পদক্ষেপের পর্যাপ্ততা, গোপন রাখার যৌক্তিকতা ও ব্যাংক কর্মকর্তাদের অবহেলা ছিল কি না এবং অর্থ উদ্ধারের সম্ভাবনা, গৃহীত কার্যক্রমের পর্যাপ্ততা ও পুনরাবৃত্তি রোধে গৃহীত ব্যবস্থা খতিয়ে দেখবে। কমিটিকে ৩০ দিনের মধ্যে অন্তর্বর্তীকালীন রিপোর্ট ও ৭৫ দিনের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট জমা দিতে বলা হয়েছিল।

সে অনুযায়ী গত ২০ এপ্রিল অর্থমন্ত্রীর কাছে অন্তর্বর্তীকালীন প্রতিবেদন জমা দেয় ফরাসউদ্দিনের কমিটি। এরপর ৭৫তম দিনে সোমবার পুরো প্রতিবেদন দেওয়া হলো। 

এফ/১৬:৫৫/৩০মে

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে