Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৫-৩০-২০১৬

বাংলাদেশে ভালো চরিত্র পেলে অভিনয় করব : রচনা ব্যানার্জি

মনোজ বসু


বাংলাদেশে ভালো চরিত্র পেলে অভিনয় করব : রচনা ব্যানার্জি

কলকাতা, ৩০ মে- টলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেত্রী রচনা ব্যানার্জি। তাঁর পরিচালিত টিভি শো ‘দিদি নম্বর ওয়ান’-এর দৌলতে এখন দুই বাংলার প্রতিটি ঘরের কোণায় কোণায় এক কথায় পরিচিত তিনি। প্রতিটি দিনের ব্যস্ততম মুহূর্ত আর কাজের অবসরে কিছুক্ষণের জন্য সময় বের করে নিজের শো, নিজের কেরিয়ার আর নিজের ঘরকন্না নিয়ে একান্তে আড্ডা দিলেন এ প্রতিবেদকের সঙ্গে।

প্রশ্ন : বাংলাদেশের সকল দর্শকদের পক্ষ থেকে আপনাকে প্রথমেই জানাই অসংখ্য ধন্যবাদ।
রচনা : আমার তরফ থেকেও রইল অসংখ্যা ভালোবাসা আর শুভেচ্ছা। বহুদিন বাদে আপনাদের মাধ্যমে বাংলাদেশের মানুষের সঙ্গে কথা বলতে পেরে ভীষণ ভালো লাগছে।

প্রশ্ন : বিকেলের সময়টাতে দুই বাংলার মানুষই আপনাকে দেখেন। আপনি এখন দুই বাংলার প্রিয় দিদি নাম্বার ওয়ান।
রচনা : তা এক রকম ঠিকই বলেছেন। ‘দিদি নম্বর ওয়ান’ শোটি তো আপনাদের খুব পছন্দের। এটা আমার কাছে ঈশ্বরের আশীর্বাদ। আপনাদের ভালোবাসা আর ঈশ্বর সঙ্গে না থাকলে এটা কখনই সম্ভব হতো না। পাঁচ বছর ধরে এই শো চলছে। তবে হ্যাঁ, এর মধ্যে দুটি সিজনে আমি ছিলাম না।

প্রশ্ন : আপনার সঞ্চালনায় কী এমন জাদু আছে যে, সব বয়েসী মানুষকে মন্ত্রমুগ্ধ করে রাখে?
রচনা : (হাসতে হাসতে) তা তো জানি না। আসলে আমি এই অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে মানুষের সঙ্গে নিজেকে রিলেট করার চেষ্টা করি। আসলে বললে হয়তো বিশ্বাস করবেন না যে, আমি কোনোদিন অভিনেত্রী হবো এটাই ভাবিনি। সবটাই কীভাবে যেন হয়ে গেল। আমি দিদি নম্বর ওয়ান অনুষ্ঠানটা সঞ্চালনা করি- আমি যেমন, ঠিক তেমন ভাবেই। এর জন্য আমি কোনো হোমওয়ার্ক করি না। আমি মানুষের সঙ্গে মিশতে ভালোবাসি। ঠিক সেভাবেই অনুষ্ঠানটা সঞ্চালনা করি। আর সেটাই সাফল্যের মন্ত্র।

প্রশ্ন : সঞ্চালনার কাজ করতে গিয়ে কোনো পরিবর্তন এসেছে আপনার মধ্যে?
রচনা : আমি খুব অনর্গল কথা বলতে শিখেছি। আমার মতে, যারাই সঞ্চালনার কাজে আসছেন, তাদের সবার মধ্যে এই গুণটা থাকা দরকার। এ ছাড়া অফুরন্ত কথা বলতে পারা এবং ফালতু কথা না বলা এবং কথা গুছিয়ে বলতে পারার ক্ষমতাটা থাকা চাই।

প্রশ্ন : সঞ্চালনার জন্য কি আলাদাভাবে ট্রেনিং নিয়েছেন?
রচনা : না, কোনো ট্রেনিং নেইনি। কিন্ত প্রচুর বই পড়তে হয়। ভালো নিবন্ধ পড়ি। সময় সেই অর্থে হাতে খুব কম থাকে, তাই গাড়িতেই সময় পেলে বই পড়ি। আবার কখনো রাতে বাড়ি ফিরেও বই পড়ি। আর তা ছাড়া সঞ্চালনার কাজটাকে আমি খুব পছন্দ করি। তাই বোধহয় দর্শকদেরও ভালো লাগে।

প্রশ্ন : বাংলাদেশের মেয়েদের জন্য কিছু বলার আছে?
রচনা : একটাই কথা বলতে চাই, নিজেরা নিজেদের জমি তৈরি করুন। অর্থনৈতিকভাবে কারো ওপর নির্ভরশীল হবেন না। তাহলে দেখবেন মানসিকভাবেও আপনি একটা জোর পাবেন।

প্রশ্ন : দুই দশকের বেশি সময় ধরে ইন্ডাস্ট্রিতে রয়েছেন। বাংলাদেশের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন। মনে কোনো অপ্রাপ্তির কষ্ট আছে?
রচনা :  কে জানে! অপ্রাপ্তি কিছু তো আছেই। আর এই পাওয়া না পাওয়া নিয়েই তো আমাদের জীবন। তবে আমি মনে করি, আমি অনেক পেয়েছি। দর্শক আমাকে এত ভালোবাসেন। আপনি যেখানেই যান না কেন, সেখানে শুধু বলুন ‘দিদি নম্বর ওয়ান’- বলতেই সবাই বলবে রচনা ব্যানার্জির শো। এর থেকে বড় প্রাপ্তি আর কী আছে?

প্রশ্ন : বহু বছর আপনি ছবির জগত থেকে সরে ছিলেন, কেন?
রচনা : হ্যাঁ, একটা সময় পর সত্যিই মনে হলো, এবার সংসারে মন দেওয়া উচিত। আমার ছেলের বয়স আট বছর। ওর নাম প্রণীল। আমি ওকে নিজের হাতে বড় করেছি। গুছিয়ে সংসার করেছি। তারপর এই সঞ্চালনার কাজটা করছি। আমার এখন কাজ না থাকলেও কোনো সমস্যা নেই। সব কিছুর থেকে আমার কাছে আমার পরিবার অনেক বড়। আর নিজের হাতে করে সংসার করা, সন্তানকে বড় করে তোলা এও তো মেয়েদের জীবনে একটা বড় অধ্যায়।

প্রশ্ন : আজকাল মেইনস্ট্রিম ছবিতে তো প্রায় আপনাকে দেখাই যায় না ...
রচনা : আসলে একটা সময় এমন গেছে, যখন একসঙ্গে আমার দুটো তিনটে ছবিও রিলিজ করেছে। আমি বহু বাংলা ছবির পাশপাশি ভারতের ওড়িয়া ছবিতেও অভিনয় করেছি।

প্রশ্ন : আপনি তো হিন্দি ছবিতেও অভিনয় করেছেন।
রচনা : হ্যাঁ, হিন্দি ‘সূর্যবংশম’ ছবিতে অভিনয় করেছি।

প্রশ্ন : আপনাকে আর কোনো হিন্দি ছবিতে অভিনয় করতে তো দেখা গেল না।
রচনা : আসলে কাজ করতে করতে একঘেয়েমি এসে যায় মাঝেমধ্যে। তাই একটু ছুটি নিয়েছিলাম। এখন আবার এই শো করছি। যা এখন সুপারহিট। ব্যাস, আর কী চাই।

প্রশ্ন : বাংলাদেশে কবে আসছেন? আর বাংলাদেশের ছবিতেও আবার কবে দেখতে পাওয়া যাবে আপনাকে?
রচনা : কয়েক বছর আগে তো ঘন ঘন বাংলাদেশে যেতাম। হয় শুটিং করতে নয়তো ইভেন্টের কাজে। শেষ বাংলাদেশের ছবিতে অভিনয় করেছি ‘দাদু নম্বর ওয়ান’। আর তা ছাড়া বহু ছবিতে অভিনয় করেছি যা একযোগে ভারত-বাংলাদেশে মুক্তি পেয়েছে। সেই অর্থে, বলতে গেলে বাংলাদেশের সঙ্গে জুড়ে রয়েছি আমি। আর ভবিষ্যতে বাংলাদেশে ভালো কাজ পেলে, ভালো চরিত্র পেলে অবশ্যই করব।

প্রশ্ন : সবশেষে বলি, আপনারা হাসিটা কিন্তু খুব সুন্দর।
রচনা : এই হাসির জন্যই মিস ইন্ডিয়া প্রতিযোগিতায় মোস্ট বিউটিফুল স্মাইল পুরস্কার পাই। হাসলে তো সবাইকে বেশ ভালো লাগে, মনও ভালো থাকে। সবাই খুশিতে থাকুন এই কামনাই করি।  

আর/১২:২৪/৩০ মে

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে