Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৫-২৮-২০১৬

নারীর ক্ষমতায়ন বিলাসিতা বা সস্তা স্লোগান নয়

নারীর ক্ষমতায়ন বিলাসিতা বা সস্তা স্লোগান নয়

ঢাকা, ২৮ মে- সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি বলেছেন, নারীর ক্ষমতায়ন কোনো বিলাসিতা বা সস্তা স্লোগান নয়; বরং  সভ্যতার অগগ্রগতির পূর্বশর্ত। মানবতার কল্যাণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে নারীর ক্ষমতায়ন।

সিডও সনদে (নারীর প্রতি সকল প্রকার বৈষম্য বিলোপ সনদ) পরিপূর্ণভাবে স্বাক্ষর এবং তা কার্যকর বাংলাদেশের জন্যে জরুরি বলে উল্লেখ করেন তিনি। একই সাথে পূর্ণ  সিদ্ধান্তগ্রহণের ক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ বাধ্যতামূলক করতে হবে। যোগ্য নারীদের ক্ষমতায়নের সুযোগ আদায় করার দিন এসে গেছে বলেও জানান দীপু মনি।

সূর্যবার্তা মিডিয়া আয়োজিত ‘মানবতার কল্যাণে নারীর ক্ষমতায়ন’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

ডা. দীপু মনি বলেন, সমানাধিকারের ভিত্তিতে ক্ষমতায়নের বিচারে এখনো রাজনীতিতে নারীর অংশগ্রহণের স্বীকৃতি নেই বললেই চলে। মিছিলে সংকটে নারী সবার আগে এগিয়ে যায় বিপদের মুখে, কিন্তু দায়িত্বশীল পদের ক্ষেত্রে নারীকে পিছিয়ে রাখা হয়। সমাজে কমপক্ষে ৩৩ শতাংশ নারীর ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করতে দয়িত্বশীল ভূমিকা রাখতে হবে  সবাইকে।  

সূর্যবার্তা মিডিয়ার নির্বাহী পরিচালক সুমি খানের সভাপতিত্বে শনিবার (২৮ মে) সকাল ১১টায় রাজধানীর একটি হোটেলে এ আলোচনা সভার শুরুতে উপমহাদেশের প্রথম সাপ্তাহিক পত্রিকা ‘বেগম’-এর সম্পাদক নূরজাহান বেগমকে আজীবন সম্মাননা পদক (মরণোত্তর) দেওয়া হয়। সদ্যপ্রয়াত নূরজাহান বেগমের কনিষ্ঠা কন্যা রীনা ইয়াসমিন খান মিতি পদক গ্রহণ করেন।

এছাড়াও সমাজে নারীর অবস্থান সুসংহত রাখতে বিশেষ ভূমিকা রাখায় এই অনুষ্ঠানে  সম্মাননা দেওয়া হয় সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপুমণি, সাবেক ক্রিকেট‍ার রাকিবুল হাসান, ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ, বার্জারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রূপালী চৌধুরী, শিল্পোদ্যোক্তা সাবেরা সারওয়ার নিনা এবং মিডিয়া ব্যক্তিত্ব অর্ণব চক্রবর্তীর হাতে।

সদ্য প্রয়াত নূরজাহান বেগমের প্রতি আজীবন সম্মাননা জানানোর এ উদ্যোগের প্রতি পরিবারের পক্ষ থেকে সূর্যবার্তা মিডিয়ার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন নূরজাহান বেগমের কন্যা রীণা ইয়াসমিন মিতি। ‘বেগম’-এর প্রকাশনা অব্যাহত রাখতে তিনি সবার সহযোগিতা কামনা করেন।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ বলেন, সিডও সনদের পূর্ণ বাস্তবায়ন জরুরি। ধর্মপ্রচারকেরা যতই বলুক ধর্মে নারীর অবস্থানের সীমাবদ্ধতার কথা, বাস্তবে প্রতিটি ধর্মেই নারীর মেধা যোগ্যতার প্রতি সম্মান দেবার দৃষ্টান্ত তুলে ধরা হয়েছে । সম্পত্তিতে নারীর অধিকার নিশ্চিত করা ছাড়া নারীর ক্ষমতায়ন সম্ভব নয়।

প্রায় ৫ দশক আগের কোনো এক সময়ে এসএসসি পরীক্ষার্থী তরুণীকে পরিবার থেকে ধরে বেঁধে বিয়ে দেবার পর আর তার পড়ালেখা হয় না। নতুন স্বামীটি স্ত্রীর দিকে তাকিয়ে প্রশ্ন তোলেন, ‘তোমার পড়ালেখা করে কী হবে?’ তবু মেয়েটির বুকে লালিত ছিল একদিন পড়ালেখা করে অনেক বড়ো হবার স্বপ্ন! প্রতিদিন ড্রয়ার খুলে প্রিয় কলমটি দেখতে দেখতে একদিন ড্রয়ারের ভেতর প্রিয় কলমটি ঢুকিয়ে রেখে ড্রয়ার বন্ধ করে দেয়  সদ্যবিবাহিত মেয়েটি। সিদ্ধান্ত নেয় সেই ড্রয়ারটি চিরতরে বন্ধ রাখার। এই নারীটিই সন্তানের জন্ম দেওয়া স্বামী-শ্বশুরবাড়ির লোকেদের আদর যত্ন করে প্রতিষ্ঠিত করেছেন সমাজে। - এমনই এক মায়ের কৃতি এবং দায়িত্বশীল সন্তান অর্ণব চক্রবর্তী তুলে ধরেন তার মায়ের গল্প।

অর্ণব জানান, তার মায়ের মতো বঞ্চনা এবং অসহায়ত্ব এখনো যে কিশোরীদের জীবনে অভিশাপ ডেকে আনছে, তাদের অভিশাপমুক্ত করতেই বাল্যবিবাহ নিয়ে কাজ করছেন তার প্রতিষ্ঠান রেড অরেঞ্জের মাধ্যমে।

বস্ত্র শিল্পের নারীদের ক্ষমতায়নের দৃষ্টান্ত তুলে ধরে সংবর্ধিত অতিথি বার্জারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রূপালী চৌধুরী বলেন, যোগ্যতা নিয়ে নীরবে বসে থাকলে, কেউ কখনো ক্ষমতায়ন করে না। সুযোগের অভাবে যেমন অনেকেই নির্লিপ্ত বা নীরবে কর্মহীন রয়ে গেছে, তেমনি নিজের যোগ্যতার সদ্ব্যবহারে এগিয়ে আসতে হবে নারীকেই। তাকে কেউ সুযোগ তৈরি করে দেবে না।

শিল্পোদ্যোক্তা সাবেরা সারওয়ার নীনা বলেন, সমাজে এখনো নারীকে তার অবস্থান প্রতিষ্ঠার জন্যে লড়াই করে যেতে হয়। তার শ্রম, মেধা এবং কাজের স্বীকৃতি দিতে সমাজ এখনো প্রস্তুত নয়। সম্মান এবং স্বীকৃতি দিতে হবে নারীর শ্রমঅধিকারকে। এ সংকট মোকাবেলায় কাজ করতে হবে নারী-পুরুষ একসাথে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত কবি সরদার ফারুক বলেন, সমাজের প্রতিটি ক্ষেত্রে সবার আগে আঘাত আসে নারীর ওপর। এর কারণ নারীকে এখনো দুর্বলভাবে দেখা হয়। নারীর প্রতি সমাজকে সংবেদনশীল না করলে সমাজ অনেক পিছিয়ে যাবে।

উদ্যোক্তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে কিংবদন্তী ক্রিকেটার রাকিবুল হাসান বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের বাংলাদেশ এত আত্মত্যাগ, এত রক্তপাতে পিছিয়ে যায়নি। স্বাধিকারের দাবিতে এত আত্মদান করা সেই বাংলাদেশে মানবাধিকার সমুন্নত রাখতে নারীর ক্ষমতায়নের কোনো বিকল্প নেই।

সভাপতির বক্তব্যে সুমি খান উপস্থিত অতিথিদের প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, প্রথম বারের মতো সমাজে নারীর ক্ষমতায়নে ভূমিকা পালনকারী পুরুষদের সম্মানিত করার এ উদ্যোগ অব্যাহত থাকবে।

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে