Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৫-২৮-২০১৬

হাসপাতাল সম্পর্কিত কিছু অজানা তথ্য

হাসপাতাল সম্পর্কিত কিছু অজানা তথ্য

হাসপাতাল এমন একটি প্রতিষ্ঠান যেখানে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ও সেবা কর্মীগণ প্রয়োজনীয় উপকরণের মাধ্যমে রোগীদের সেবা প্রদান করেন। মানুষ যখন গুরুতর অসুস্থ হয় তখনই ডাক্তার তাকে হাসপাতালে ভর্তি হতে বলেন। হাসপাতাল সম্পর্কে বিভিন্ন রকম কথা শোনা যায়। হাসপাতাল সম্পর্কিত কিছু অপ্রকাশিত কথাই আজ জেনে নিব আমরা।

১। জন্স হপকিন্স হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও লেখক ডা. মার্কিন ম্যাকারি তার “আনঅ্যাকাউন্টেবল:   হোয়াট হসপিটালস ওন্ট টেল ইউ এন্ড হাউ ট্রান্সপারেন্সি ক্যান রিভোলুশনাইজ হেলথ কেয়ার” বইটিতে বলেন,  “মামলার ভয়, পেশাদারী অহংকারবোধ ও মুনাফা অর্জন এই তিনটি কারণে ভুল করলেও ডাক্তাররা সেটা স্বীকার করেন না”।

২। জটিল অস্ত্রপচারের জন্য সাধারণত স্বাস্থ্য গবেষণার সামনের সারিতে আছে এমন মেডিক্যাল কলেজগুলোতে অপেক্ষাকৃত ভালো সেবা পাওয়া যায়। কারণ এখানে মেডিক্যাল স্টুডেন্টরা রোগীকে দেখে ও প্রশ্ন করে। এতে ভুল-ভ্রান্তি প্রতিরোধ করা যায়। “হোয়াট ইয়োর ডক্টর ওন্ট  (অর ক্যান্ট) টেল ইউ” বইটির লেখক ও কার্ডিওলজিস্ট ডা. ইভান ল্যাভিন এমনটাই বলেন।

৩। একজন ভালো সার্জন আপনার জন্য প্রয়োজনীয় সব তথ্যই আপনাকে জানাবেন। এমনকি সেটা যদি আপনি শুনতে নাও চান। তার অর্থ এই নয় যে ভালো সার্জন খুব রুক্ষ হবেন। তিনি আপনার অস্ত্রপচারের পদ্ধতি, সম্ভাব্য ঝুঁকি ও কাঙ্ক্ষিত ফলাফল এবং খরচের পরিমাণ সম্পর্কে আপনাকে জানাবেন।

৪। ডা. স্টিফেন পারনিসের মতে - হাসপাতালে থাকাকালীন একই তথ্য বারবার জিজ্ঞেস করা হলেও বিরক্ত হবেন না। কারণ এটি নিরাপত্তার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়- যদি আপনার ঔষধের মারাত্মক অ্যালার্জি দেখা দেয় তাহলে হাসপাতালের স্টাফদের এই কথাটি স্মরণ করিয়ে দিন যতবার সম্ভব এবং তারা কিছু জানতে চাইলেও বলুন নির্দ্বিধায়।

৫। অস্ট্রেলিয়ার নিউ সাউথ ওয়েলস এর অধ্যাপক ক্যান হিলম্যান বলেন, মারা যাচ্ছেন এমন রোগীদের নিয়ে মেডিক্যাল বিশেষজ্ঞরা প্রায়ই অস্বস্তিতে পড়েন। রোগী যখন অনেক বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েন তখন তারা ইন্টেন্সিভ ক্যায়ারে পাঠিয়ে দেন। বর্তমানে ৭০% রোগী সেখানে মারা যান। এখানে তীব্র ঔষধ প্রয়োগ করা হয়। যার ফলে রোগীর কষ্টদায়ক জীবনাবসান হয়।

৬। হাসপাতালে রাতের বেলায় অনেক শব্দ হতে পারে। তাই এয়ার প্লাগ নিতে পারেন ভালো ঘুমের জন্য।

৭। আপনার কিছু প্রয়োজন হলে নার্সদেরকে তা বলুন এবং প্রয়োজনে কয়েকবার স্মরণ করিয়ে দিন ভয় না পেয়ে।

৮। ছুটির দিনে হাসপাতালে অভিজ্ঞ ডাক্তার বা নার্স থাকেনা। ল্যাবটেস্ট বা অন্য কোন সেবা নাও পাওয়া যেতে পারে। তাই আপনার সার্জারির তারিখ সপ্তাহের প্রথমে দিতে বলুন।

৯। হাসপাতালের খাবার ফাস্টফুডের মতোই খারাপ।

১০। যত তাড়াতাড়ি হাসপাতাল থেকে বাহির হতে পারবেন তত ভালো। কারণ হাসপাতালে সংক্রমণের সম্ভাবনা বেশি। আপনার বাড়ি আপনার জন্য নিরাপদ।

১১। হাসপাতাল ত্যাগের পূর্বে আপনার ফলোআপ অ্যাপয়েন্টমেন্টের শিডিউল ভালোভাবে জেনে নিন।

১২। হাসপাতালের বিল পরিশোধের সময় তারিখ ও টেস্টগুলো ভালোভাবে দেখে হিসাব মিলিয়ে নিন।

লিখেছেন- সাবেরা খাতুন

এফ/১৬:২৪/২৮মে

জানা-অজানা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে