Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (2 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৫-২৪-২০১৬

ইরানিদের কান জয়

জনি হক


ইরানিদের কান জয়

প্যারিস, ২৪ মে- দক্ষিণ ফরাসি উপকূলে উড়লো ইরানিদের বিজয় পতাকা। আসগর ফারহাদির ‘দ্য সেলসম্যান’ কান উৎসবের সমাপনী রাতটাকে স্মরণীয় করে রাখলো ইরানি চলচ্চিত্র শিল্পের জন্য। ছবিটির জন্য শাহাব হোসেইনি সেরা অভিনেতা ও আসগর জিতেছেন সেরা চিত্রনাট্যকারের পুরস্কার।
 
ফলে একদিনের ব্যবধানে আবার সংবাদ সম্মেলন কক্ষে এলেন অস্কারজয়ী আসগর ফারহাদি ও ইরানি সুপারস্টার শাহাব হোসেইনি। আসগর বলেছেন, ‘ইরানি ছবির ট্রিবিউট হিসেবে এই পুরস্কার গ্রহণ করেছি।’ শাহাব মনে করিয়ে দিলেন, ‘সাতটি মূল পুরস্কারের মধ্যে দুটি পেয়েছে আমার দেশ ইরান। এটা চমৎকার ব্যাপার।’
 
সত্যি, কানের কোনো আসরে একই ছবির দুটি পুরস্কার জয়ের ঘটনা বিরল। রোববার (২২ মে) বিশ্ব চলচ্চিত্রের সবচেয়ে মর্যাদাসম্পন্ন এই আয়োজনের ৬৯তম আসরের চূড়ান্ত ফয়সালায় দুই ইরানির জয় এখন সর্বত্র আলোচিত।
 
গত ২১ মে প্রতিযোগিতা বিভাগের শেষ ছবি হিসেবে প্রদর্শিত হয় ‘দ্য সেলসম্যান’। কে জানতো শেষে এসে বাজিমাত করে দেবে এটি! এ ছবিতে মঞ্চনাটকের সঙ্গে জীবনকে মিলিয়ে আসগর ফারহাদির গল্প বলার ধরণ বিচারকদের মুগ্ধ করেছে। বিচারকমণ্ডলীর সভাপতি ছিলেন অস্ট্রেলিয়ার খ্যাতিমান পরিচালক জর্জ মিলার।
 
ছবিটির গল্প ইমাদ ও রানা দম্পতিকে ঘিরে। স্ত্রী শ্লীলতাহানির শিকার হওয়ার পর স্বামীর মানসিক অবস্থা রয়েছে এতে। তারা দু’জনই অভিনয় করেন আর্থার মিলারের ‘ডেথ অব অ্যা সেলসম্যান’ নাটকে। ইমাদের ভূমিকায় শাহাবের অভিনয় বিচারকদের মন জিতেছে। তাদের মধ্য থেকে মার্কিন অভিনেত্রী ক্রিস্টেন ডান্সট ও ইরানি প্রযোজক কাতায়ু শাহাবি তার হাতে পুরস্কার প্রদান করেন।
 
আসগরের অস্কারজয়ী ছবি ‘অ্যা সেপারেশন’-এ অভিনয় করেও প্রশংসিত হয়েছিলেন শাহাব। সমাপনী মঞ্চে ৪২ বছর বয়সী এই অভিনেতা বলেছেন, ‘জুরি ও কানকে ধন্যবাদ জানাই। আমার মধ্যে আত্মবিশ্বাস ফিরিয়ে আনার জন্য আসগরকেও ধন্যবাদ। জানি এই প্রশংসা আমার দেশের পাওনা। ভালোবাসা ও অন্তর থেকে তাদেরকে উৎসর্গ করছি এটি।’
 
আসগরের হাতে পুরস্কার তুলে দেন বিচারকদের মধ্য থেকে ইতালিয়ান অভিনেত্রী ভ্যালেরিয়া গলিনো ও হাঙ্গেরিয়ান পরিচালক লাসলো নেমেস। নিজের নাম ঘোষণা হতেই চমকে যান আসগর। পুরো টিমকে ধন্যবাদ দিয়ে ৪৪ বছর বয়সী এই নির্মাতা বলেছেন, ‘আমার ছবি দেশের জন্য তেমন একটা খুশির উপলক্ষ্য হয় না! দেশের জন্য কিছু আনন্দ বয়ে আনতে পেরে আমি খুব খুশি।’
 
এবারের উৎসবে মূল প্রতিযোগিতা পর্বে অংশ নেয় ২১টি ছবি। এর অনেক ছবিকেই ফিরতে হয়েছে শুন্য হাতে। সেখানে ইরানিদের দুটি বিভাগে সেরা হওয়াটা নিঃসন্দেহে অন্যতম অর্জন।
 
২০১৩ সালে আসগর ফারহাদির ‘দ্য পাস্ট’ কানের প্রতিযোগিতা বিভাগে স্থান পেয়েছিলো। ওই ছবিতে দারুণ অভিনয়ের জন্য বেরেনিস বেসো সেরা অভিনেত্রী হন। এবার আসগরের হাতেও এলো পুরস্কার। 

এফ/১০:০০/২৪মে

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে