Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৫-২১-২০১৬

দুই যুগেও ‘রাজীবগান্ধী’ হত্যাকারীদের সাঁজা হয়নি

দুই যুগেও ‘রাজীবগান্ধী’ হত্যাকারীদের সাঁজা হয়নি

নয়াদিল্লি, ২১ মে- ভারতের সর্বকনিষ্ঠ প্রায়াত প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী হত্যাকারীদের সাঁজা দুই যুগ পেরিয়ে গেলেও এখনো কার্যকর হয়নি। হত্যার ষড়যন্ত্রে দোষী সাব্যস্ত সাত আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হলেও এখনো কার্যকর হয়নি সেই রায়। ১৯৯১ সালের আজকের এই দিনে (২১ মে) তামিল বিচ্ছিন্নতাবাদীদের আত্মঘাতী হামলায় নিহত হন তিনি। শ্রীলঙ্কাভিত্তিক বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন লিবারেশন টাইগার অব তামিল ইলম (এলটিটিই) হত্যার দায় শিকার করে।

তিনি ছিলেন ভারতের সপ্তম প্রধানমন্ত্রী। ইন্দিরা নেহেরু ও ফিরোজ গান্ধীর জ্যৈষ্ঠ পুত্র রাজীব গান্ধী। ১৯৮৪ সালের ৩১শে অক্টোবর মায়ের মৃত্যুর দিন মাত্র চল্লিশ বছর বয়সে তিনি দেশের কনিষ্ঠতম প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তাঁর জন্ম হয়েছিল ১৯৪৪ সালের ২০ আগস্ট (বোম্বাই) বর্তমান মুব্বাই শহরে।

দক্ষিণাঞ্চলীয় রাজ্য তামিলনাড়ুতে এক নির্বাচনী জনসভায় ২১’ মে একজন নারী আত্মঘাতী হামলাকারীর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী রাজীবকে হত্যা করে। ১৯৮৭ সালে শ্রীলঙ্কায় ভারতীয় শান্তিরক্ষী পাঠানোর ঘটনায় রাজীবের ওপর অসন্তুষ্ট হয়ে তামিল বিদ্রোহীরা ওই হামলা চালায়। অবশ্য তাঁকে হত্যা করার ঘটনায় ২০০৬ সালে ‘দুঃখ প্রকাশ’ করে এলটিটিই। শ্রীলঙ্কান সেনাবাহিনী ২০০৯ সালে অভিযান চালিয়ে এলটিটিইকে চূড়ান্তভাবে পরাজিত করে।

এদিকে ২০১৪ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারী হত্যার ২৩ বছর পর বিভিন্ন সময়ে রাষ্ট্রটির কাছে প্রানভিক্ষার আবেদনের প্রেক্ষিতে অভিযুক্ত আসামিদের যাজ্জীবন কারাদন্ড দেওয়া হয়। এতে বিশ্বের বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশটিতে মৃত্যুদণ্ডের মতো কঠোর শাস্তি নিয়ন্ত্রণের দৃষ্টান্ত স্থাপিত হলেও পরে এই রায় স্থগিত করা হয়। তবে দুই যুগ পেরিয়ে গেলেও আজও থমকে আছে সেই বিচারের রায় কার্যকর।

উল্লেখ, ভারতের বর্তমান বিরোধী দলীয় নেত্রী সোনিয়া গান্ধীর স্বামী রাজীব গান্ধী রাজনীতিতে পদার্পণের পূর্ব ইন্ডিয়ান এয়ারলাইনসের এক পেশাদার বিমানচালক ছিলেন।

এফ/১৫:৪৯/২১মে

দক্ষিণ এশিয়া

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে