Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 2.8/5 (6 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৫-২১-২০১৬

আরও এগিয়েছে ‘রোয়ানু’, চট্টগ্রাম বন্দরে ৭ নম্বর সতর্কতা

আরও এগিয়েছে ‘রোয়ানু’, চট্টগ্রাম বন্দরে ৭ নম্বর সতর্কতা

চট্টগ্রাম, ২১ মে- পশ্চিম মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন দক্ষিণ-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’ আরও কিছুটা উত্তর-পূর্বে বাংলাদেশের উপকূলের দিকে ক্রমেই ধেয়ে আসছে।

আবহাওয়া অধিদফরের বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে শুক্রবার বিকেলে বলা হয়েছে, চট্টগ্রাম বন্দরে সাত নম্বর, কক্সবাজারে ছয় নম্বর, মংলা ও পায়রা বন্দরে পাঁচ নম্বর বিপদ সংকেত জারি করা হয়েছে।

এর আগে সকাল ৬টার পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী আবহাওয়া অধিদফতর বলেছিল, ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের কাছাকাছি এলাকায় সাগর খুবই উত্তাল রয়েছে। তখন চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে ৪ নম্বর হুঁশিয়ারি সতর্ক সংকেত বহাল রাখতে বলা হয়েছিল।

আবহাওয়া অধিদফতরের বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’ শুক্রবার সকাল ৬টায় চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দর থেকে ১২০৫ কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ১২৭০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, মংলা সমুদ্র বন্দর থেকে ১১১৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ১১৪৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিল।

ঘূর্ণিঝড়ের কারণে চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙ্গরে অবস্থানরত মাদার ভেসেল থেকে পণ্য খালাস বন্ধ রয়েছে।

এদিকে বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে শুক্রবার সকাল ৯টা পর্যন্ত চট্টগ্রামের পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিসে ৩৪ দশমিক ৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।

এদিকে দুদিন ধরে গুড়িগুড়ি বৃষ্টিতে জনজীবনে নেমে এসেছে দুর্ভোগ। শুক্রবার সকাল থেকে গুড়িগুড়ি বৃষ্টিতে নগরবাসী কিছুটা দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।

চট্টগ্রাম আবহাওয়া অফিসের সহকারী আবহাওয়াবিদ শেখ হাসানুর রশিদ বলেন, ‘বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু ভারতের অন্ধ্র প্রদেশের কাছ থেকে কিছুটা উত্তর-উত্তরপূর্ব দিকে সরে এসে সাগরের পশ্চিমমধ্য ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। তবে এর গতি অনেকটাই কম। বর্তমান গতি অব্যাহত থাকলে ঘূর্ণিঝড়টি বাংলাদেশ উপকূলে আসতে আরও দুদিন লাগবে।’

তিনি জানান, ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের নিকটবর্তী এলাকায় সাগর উত্তাল থাকায় চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে চার নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সঙ্কেত দেখাতে হবে।

বাতাসের সম্ভাব্য গতিবেগ ঘণ্টায় ৫১ থেকে ৬১ কিলোমিটার। তবে ঘূর্ণিঝড়ের চূড়ান্ত প্রস্ততি নেওয়ার মতো তেমন বিপদজ্জনক সময় এখনো আসেনি।

আবহাওয়া অধিদফতরের জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ আবদুল মান্নান জানান, তারা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন। এটি কখন, কোথায় আঘাত হানতে পারে- তা নিয়ে আগাম কিছু বলা যাচ্ছে না।

তিনি বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড়টি ভারত-বাংলাদেশ ঊপকূলে আঘাত হানার শঙ্কা যেমন রয়েছে, তেমন প্রচুর বৃষ্টি ঝরিয়ে দুর্বল হওয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে। এ নিয়ে চূড়ান্ত পূর্বাভাসের আগে আরও কিছু সময় পর্যবেক্ষণ করতে হবে।’

ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়ছে।

এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের সাগর তীরের আট দেশের আবহাওয়া দফতর ও বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থার দায়িত্বপ্রাপ্ত প্যানেলের তালিকা অনুযায়ী এ ঘূর্ণিঝড়ের নাম দেওয়া হয়েছে ‘রোয়ানু’। মালদ্বীপ এ নামটি প্রস্তাব করেছিল।

চট্টগ্রামে ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’ মোকাবিলায় আগাম প্রস্তুতি হিসেবে সরকারি ও আধা সরকারি অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সব রকমের ছুটি আপাতত বাতিল করা হয়েছে। দুর্যোগ মোকাবিলায় সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিচ্ছে প্রশাসন। ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় নেওয়া হয়েছে সম্ভাব্য সব ধরনের প্রস্তুতি। এর অংশ হিসেবে প্রস্তুত রাখা হয়েছে উপকূলীয় উপজেলার সব স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও আশ্রয় কেন্দ্রগুলো।

ইতোমধ্যে উপজেলা পর্যায়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলা পর্যায়ে একটি নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খোলার পাশাপাশি সব উপজেলায় খোলা হয়েছে কন্ট্রোলরুম। জেলা কন্ট্রোলরুমের নম্বর হচ্ছে ৬১১৫৪৫।

আর/১২:৪৪/২১ মে

চট্টগ্রাম

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে