Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 2.6/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৫-১৭-২০১৬

শিগগির মন্ত্রিসভায় আসছে সাইবার নিরাপত্তা আইনের খসড়া

শিগগির মন্ত্রিসভায় আসছে সাইবার নিরাপত্তা আইনের খসড়া

ঢাকা, ১৭ মে- তথ্য প্রযুক্তির অপব্যবহার রোধে ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন’র খসড়া দ্রুতই মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক।

সোমবার রাজধানীতে অনুষ্ঠানে পলক বলেন, ‘ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট’র খসড়ার ওপর এখন প্রত্যেক মন্ত্রণালয়ের সুপারিশ নেওয়া হচ্ছে।

“এ খসড়াটি এখন সুপারিশের জন্য অর্থ মন্ত্রণালয়ে রয়েছে। শিগগির এটি সরকারের অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে উপস্থাপন করা হবে।”

সরকার ২০২১ সালের মধ্যে ৫০০ কোটি ডলারের সফটওয়্যার রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে জানিয়ে অনুষ্ঠানে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী বলেন, “এজন্য এখাতের উন্নয়নে নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। বর্তমানে দেশে সাত লাখ আইটি প্রফেশনাল রয়েছে। আগামী ২০২১ সালের মধ্যে তা ২০ লাখে উন্নীত করতে হবে।”

২০২১ সালের মধ্যে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) অন্তত ৫ ভাগ আইটি খাত থেকে যোগান দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা সরকারের রয়েছে বলেও জানান আওয়ামী লীগ নেতা পলক।

ঢাকার আমারি হোটেলে ‘২০১৬ সালের বিশ্ব উন্নয়ন প্রতিবেদন’ প্রকাশ উপলক্ষে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বিশ্বব্যাংক।

তথ্য-প্রযুক্তিতে দক্ষ জনসম্পদ গড়ে তুলে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ রূপায়নে বিশ্বব্যাংকের সহযোগিতা আশা করেন প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক।

‍“বর্তমানে আমাদের জনসংখ্যার ৬৫ ভাগই যুব শক্তির মাধ্যমে জনসংখ্যার লভ্যাংশ (ডেমোগ্রাফিক ডিভিডেন্ট) ভোগ করছি। এই বিপুল যুব শক্তি নিয়ে এনালগ থেকে ডিজিটালে যেতে বিশ্বব্যাংকের সাপোর্ট দরকার।

“বর্তমানে দেশে সাড়ে তিন লাখ শিক্ষার্থী গ্র্যাজুয়েট শেষ করছে। এছাড়াও যেসব মানুষ কম্পিউটার বা আইটি শিক্ষায় শিক্ষিত হতে চায় তাদের জন্য দেশের প্রত্যেক বিভাগীয় শহরে একটি করে ট্রেনিং সেন্টার স্থাপন করা হবে।”

অনুষ্ঠানে বিশ্বব্যাংকের আবাসিক প্রতিনিধি চিমিওয়াও ফান সভাপতিত্ব করেন।

ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ায় সরকারকে সহযোগিতা করার আশ্বাস দিয়ে চিমিওয়াও ফান বলেন, “বর্তমান সরকার ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে ডিজিটাল করার যে লক্ষ্যমাত্রা গ্রহণ করেছে, তাতে বিশ্বব্যাংক গ্রুপ পুরোপুরি সহযোগিতা করবে।

“বাংলাদেশে আইটি খাতে প্রয়োজনীয় বিনিয়োগের মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়া সম্ভব। এই লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের মাধ্যমে দেশটি ডিজিটাল ডিভিডেন্টও গ্রহণ করতে পারে।”

অনুষ্ঠানে ‘ওয়ার্ল্ড ব্যাংক ডেভেলপমেন্ট রিপোর্ট মোবাইল অ্যাপ” শীর্ষক একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়।

প্রতিবেদনটির সমন্বয়ক দ্বীপক মিশ্র জানান, বিশ্বব্যাংকের এই অ্যাপটি যে কোনো মোবাইলে ডাউন লোড করা যাবে। এই অ্যাপের মাধ্যমে বিশ্বব্যাংকের সব কার্যক্রম দেখা যাবে।

অ্যাপটি জানুয়ারি মাসে ওয়াশিংটনে বিশ্বব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে প্রকাশ করা হয় বলে জানান তিনি।

দ্বীপক মিশ্র আরও বলেন, ডিজিটাল প্রযুক্তির মাধ্যমে অন্তর্ভুক্তিমূলক অর্থনীতি, স্বচ্ছতা এবং উদ্ভাবনীমূলক কার্যক্রম বাড়ানো যায়।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশের উদাহরণ টেনে তিনি বলেন, “এদেশে মোবাইল ব্যাংকিং সম্প্রসারণের মাধ্যমে দরিদ্র বান্ধব ও অন্তর্ভুক্তিমূলক অর্থনীতি গড়ে উঠছে। সরকার  ই-জিপির মাধ্যমে স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে ক্রয় কার্যক্রম পরিচালনা করছে। উন্নয়ন প্রকল্পগুলোতে স্বচ্ছতার সঙ্গে ই-টেন্ডারিং করার পাশাপাশি ব্যবসায়ী বান্ধব নানা রকম কার্য়ক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে।”

বাংলাদেশে মোবাইল কল রেট অনেক কম হলেও ইন্টারনেটের দাম এখনও অনেক বেশি মন্তব্য করে সাধারণ মানুষের জন্য ইন্টারনেট উম্মুক্ত করে দেওয়ার নীতি নেওয়ার আহ্বান জানান দ্বীপক মিশ্র।

“বাংলাদেশে মোবাইল কল রেট অনেক কম হলেও এখনো ইন্টারনেটের দান অনেক বেশি রাখছে। যার কারণে বাংলাদেশে ১০ কোটি লোক এখনও ইন্টারনেটের বাইরে। এখনও আইসিটি খাতের কর্মসংস্থান মোট কর্মসংস্থানের দশমিক ৫ শতাংশের কম।

“এখন বাংলাদেশের উচিত নিরাপদ উপায়ে সাধারণ মানুষের জন্য ইন্টারনেট উম্মুক্ত করে দেওয়ার নীতি গ্রহণ করা।”

উন্নয়ন কার্যক্রম দ্রুত ও স্বচ্ছ উপায়ে বাস্তবায়নের পাশাপাশি দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলার জন্য ইন্টারনেটের ওপর জোর দিতে আহ্বান জানান তিনি।

আর/১২:০৪/১৭ মে

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে