Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 1.3/5 (7 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৫-০৮-২০১৬

আবদুল কাদিরের ছেলে খেলবেন ভিনদেশের হয়ে!

আবদুল কাদিরের ছেলে খেলবেন ভিনদেশের হয়ে!

ইসলামাবাদ, ০৮ মে- পাকিস্তানি লেগ স্পিনার আবদুল কাদিরকে ধরা হয় ক্রিকেট ইতিহাসেরই অন্যতম সেরা লেগ স্পিনার। পাকিস্তান ক্রিকেটের কিংবদন্তিতূল্য এই ক্রিকেটারের ছেলে উসমান কাদির কিন্তু পাকিস্তান নয়, অন্য কোনো দেশে তাঁর ক্রিকেট ক্যারিয়ার গড়ার কথা ভাবছেন। সেটি হতে পারে অস্ট্রেলিয়া অথবা দক্ষিণ আফ্রিকায়। প্রাপ্য সুযোগ যেমন পাচ্ছেন না, তেমনি সঠিক পরিবেশও মিলছে না বলেই কাদির-পুত্রের এমন ভাবনা। ছেলের যেকোনো সিদ্ধান্তেই বাবা কাদিরেরও নাকি পূর্ণ সমর্থন আছে।

উসমান কাদিরের বয়স ২২। বাবার মতো তিনিও লেগ স্পিনার। ২০১০ সালে পাকিস্তানের প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে অভিষেক। ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তানের হয়ে অভিষেক মৌসুমে আটটি ম্যাচও খেলেছিলেন। ২০১২ সালে পাকিস্তান অনূর্ধ্ব-২৩ দলের হয়ে সিঙ্গাপুরে এসিসি ইমার্জিং ট্রফিতে দুর্দান্ত করেছিলেন। এমন পারফরম্যান্সের পরেও ২০১৩ মৌসুমে ন্যাশনাল ব্যাংকের হয়ে তিনি বোলিং করতে পারেন মাত্র ৮৪ ওভার। ২০১৪ সালের পর তিনি আর মাঠেই নামেননি।

গত মৌসুমটা তিনি দক্ষিণ আফ্রিকার কেপটাউনে ক্লাব ক্রিকেট খেলে কাটিয়েছেন। ২০১৩ সালে দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ায় তিনি যখন নিজেকে প্রস্তুত করছিলেন তখনই এক সড়ক দুর্ঘটনার কারণে তাঁকে দেশে ফিরে আসতে হয়।

বাবা আবদুল কাদিরও তাঁর ক্যারিয়ারের জন্য বড় একটা সমস্যা হয়ে দেখা দিয়েছে। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে মাঠে নামার পর থেকেই তাঁকে শুনতে হয়েছে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ—বাবা আবদুল কাদিরের প্রভাবেই তাঁর প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট খেলা।

আবদুল কাদির অবশ্য এমন অভিযোগ উড়িয়েই দিয়েছেন, ‘আমার ছেলে নিজগুণেই সর্বোচ্চ পর্যায়ে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে। আমি আমার জীবনে কোনোদিন ছেলের জন্য কাউকে বলিনি। এটা আমার স্বভাব নয়।’

উসমান কাদির যেকোনো মূল্যেই নিজের ক্রিকেটের প্রতি তাঁর ভালোবাসাটাকে ধরে রাখতে চান। এ জন্য তাঁকে যদি দেশান্তরীও হতে হয়, তা-ই সই, ‘আমি ক্রিকেট খেলতে চাই। আমার প্যাশনটাকে ধরে রাখতে চাই। আমি এই পর্যায়ে খেলতে এসেছি আমার যোগ্যতা দিয়েই অথচ, সবসময়ই আমার দলভুক্তিকে সন্দেহের চোখে দেখা হয়েছে। আমার মনে হয়, যেখানে মানসিক শান্তি নিয়ে আমি খেলতে পারব, আমার সেখানেই যাওয়া উচিত। আমি ক্রিকেটে মন দিতে চাই, অহেতুক সমালোচনা ও সন্দেহের ঊর্ধ্বে থাকতে চাই।’

আবদুল কাদির বলেছেন, একজন বাবা ও সাবেক ক্রিকেটার হিসেবে আমি পাকিস্তান ক্রিকেট-পদ্ধতির ওপর আস্থা হারিয়ে ফেলেছি। এই পদ্ধতিতে খেলোয়াড়েরা নিজেদের প্রমাণ করতে পারে না। আমার ছেলে শুধু এই পদ্ধতিগত ত্রুটির জন্যই ভুগছে। আমি তাঁকে তাঁর ভবিষ্যৎ বেছে নিতে বলেছি। ২০১৩ সালে ওকে আমিই অস্ট্রেলিয়া থেকে যেতে দিইনি। এবার আমি নিজেই বলেছি, সে অস্ট্রেলিয়া যেতে পারে। আমার মনে হয় না, এখন ওকে মানা করাটা খুব সুবিবেচনাপ্রসূত হবে।’ সূত্র: ক্রিকইনফো।

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে