Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 5.0/5 (2 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৫-০৫-২০১৬

শার্টে এ যুগের আধুনিক বাঙালি নারী

মাহমুদ উল্লাহ


শার্টে এ যুগের আধুনিক বাঙালি নারী

নারীরা শুধু শাড়ি পরে ঘরে বসে থাকবে, গৃহিনী হবে সে ধারণা এখন আর নেই। ফ্যাশনেবল মেয়েরা এখন ওয়েস্টার্ন সংস্কৃতিতে বিশ্বাসী। আর বিভিন্ন ওয়েস্টার্ণ ফ্যাশন হাউজগুলো এখন দেশিয় পোশাকের সঙ্গে ওয়েস্টার্ন কালেকশনের ফিউশন ঘটিয়ে নিত্যনতুন পোশাক তৈরী করে বাজার মাতাচ্ছে।

সেই স্রোতে গা ভাসাচ্ছে বর্তমান শহুরে রুচিশীল মানুষজন। যেখানে প্রধান বিষয় থাকে পোশাকের ফেব্রিক্স, প্যাটার্ণ। পোশাকগুলো কতটুকু আরামদায়ক সেই বিষয়টিই সবার ভাবনার প্রধান বিষয় হয়ে থাকে। আর এসব কথা ভেবেই এই সময়ে দেশিয় সংস্কৃতির বাইরেও বিভিন্ন ওয়েস্টার্ণ পোশাক তরুণ-তরুণীদের মন জয় করে নিচ্ছে।

শার্ট আমরা সারা জীবন দেখে আসছি পুরুষের পোশাক। কিন্তু হাল ফ্যাশনে মেয়েদের পোশাকে শার্ট এখন ইন। শুধু মাত্র অফিসিয়াল কর্পোরেট মেয়েরাই শার্ট পরবে বিষয়টা এমনও নয়। এখন ঘরে বাইরে সব জায়গাতেই মেয়েরা শার্ট পরছে।


শুধুমাত্র আরামদায়ক, পরিধানে সহজ এসব সুবিধার কারণেই শার্ট ধিরে ধিরে সাধারন পরিবারের নারীদের কাছেও গ্রহণযোগ্য ও জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

গতিশীল শহুরে জীবনে জীবনধারাকে আরো গতিশীল ও সহজ করে তুলতেই এই ওয়েস্টার্ন পোশাকের জনপ্রিয়তা। এটা আসলে সময়েরও দাবি। কারণ মানুষের পোশাক আশাক সভ্যতার সাথে সাথেই পরিবর্তিত হয়ে আসছে।

অনেক আগের যুগের পোশাক নিশ্চয়ই এখন আর নেই। এভাবেই বিবর্তণের মাঝ দিয়ে সব কিছু পরিবর্তিত হয়। মানুষের রুচির পরিবর্তনের ধারাকে স্বীকার করে নিতেই হবে। তাইতো সহজে পরিধানযোগ্য শার্টও আজ আধুনিক বাঙালি মেয়েদেরও জনপ্রিয় ফ্যাশনের তালিকার মধ্যে একটি পোশাক।

মেয়েদের ও ছেলেদের শার্টে রয়েছে কিছু পার্থক্য। ছেলেদের শার্টের বোতাম ডান হাত দিয়ে লাগাতে হয়। আর মেয়েদেরটা হয় বাম। ফর্মাল, ক্যাজুয়াল দুই ধরনের শার্টই বাজারে পাওয়া যায়।

ফর্মাল শার্ট পরে স্বচ্ছন্দ্যে আপনি অফিস ওয়ার্ক করতে পারেন। আর ক্যাজুয়াল পরে যে কোন সাধারন পার্টি বা বিকালে বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডায় যোগ দিতে পারেন। পারেন রেগুলার কাজ কর্ম করতে। এমনকি বাসায় পরতে পারেন। সঙ্গে মানানসই প্যান্ট থাকলেই কেল্লাফতে।

কলার ইত্যাদির মাপ ও শার্টের ধরণ বুঝে বিভিন্ন রকম হাতা ব্যবহার করা হয়। ফরমাল শার্টের ক্ষেত্রে কলার হতে পারে নরমাল কালার কিংবা জ্যাকেট কলার।

তবে মেয়েদের শার্টে পেছনে কলার ঠিক রেখে সামনের দিকে পরিবর্তন করা যেতে পারে উঁচু কলারের সাথে সামনে ঝালর ভি শেপ, ডিপ ভি শেপ কলার হতে পারে। শার্টের দৈর্ঘ্য হতে হবে মাপ মতো নিচের দিকে চাইনিজ কাট ভি কাট কিংবা স্ট্রেট কাট দেয়া যেতে পারে কাপড়ের বিষয়েও ভাবা জরুরি যেকোনো কাপড়েরই শার্ট হতে পারে। তবে তা যেন অবশ্যই আরামদায়ক হয়। তবে শার্ট ব্যবহারের সময় মনে রাখবেন আপনাকে যেটা মানাবে সেটাই আপনার জন্য লাগসই ফ্যাশন।


বাংলাদেশের ফ্যাশন বাজারে অসংখ্য ব্র্যান্ড। নন ব্র্যান্ড পোশাক প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান মেয়েদের শার্ট তৈরি করে। রাজধানীর বঙ্গবাজার এবং হকার্স মার্কেটে মেয়েদের শার্টের বিশাল বাজার রয়েছে। এখানে ১৫০ থেকে ৬০০ টাকায় রকমারি সব শার্ট মিলবে। এছাড়া ক্যাটস আই, ওয়েসটেক্স এক্সট্যসি, বিগবস, নিকন্যাক ওটু ইত্যাদি ব্রান্ডেরও মেয়েদের শার্ট পাওয়া যায়। দাম পড়বে ৮০০ থেকে ৩০০০ টাকার মধ্যে।

রাজধানীর বসুন্ধরা সিটির বিভিন্ন দোকানে ও আজিজ সুপার মার্কেটের বিভিন্ন দোকানেও এই দামে মেয়েদের শার্ট পাওয়া যাবে। অনেক ব্র্যান্ডের শার্টে নকশা করা থাকে, করা হয় হাতের কাজ।শার্টের কলারে কিংবা হাতায় নকঁশা করা হলে তা শার্টের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করে। কাপড়ে কখনো করা হয় এপলিক, বাটিক, এমব্রয়ডারি ইত্যাদি নানা ধরনের কাজ।

আর/১০:৪৪/০৫ মে

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে