Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (25 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৫-০২-২০১৬

তিন উপজেলায় ৫০০ একরের বোরো ধান নষ্ট

তিন উপজেলায় ৫০০ একরের বোরো ধান নষ্ট

মৌলভীবাজার, ০২ মে- অতিবৃষ্টি, পাহাড়ি ঢল ও শিলাবৃষ্টিতে মৌলভীবাজারের জুড়ী, কুলাউড়া ও বড়লেখা উপজেলায় প্রায় ৫০০ একর জমির বোরো ধান নষ্ট হয়েছে। 

তিন উপজেলার কৃষি কর্মকর্তাদের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এ বছর জুড়ীতে ১৩ হাজার ৪৬২ একর, কুলাউড়ায় ১৬ হাজার ৩০ একর ও বড়লেখায় ১০ হাজার ৪৯৮ একর জমিতে বিভিন্ন জাতের বোরো ধানের আবাদ হয়। চলতি এপ্রিল মাসের শুরুতে অতিবৃষ্টি, উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও শিলাবৃষ্টিতে জুড়ীতে ১০০ একর, কুলাউড়ায় ২৭০ একর এবং বড়লেখায় ১৬৩ একর জমির পাকা ও আধা পাকা বোরো ধান সম্পূর্ণভাবে নষ্ট হয়ে যায়।
ভূকশিমইল ইউনিয়নের বাদে ভূকশিমইল গ্রামের সফর আলী বলেন, হাকালুকি হাওরের পাঁচ বিঘা জমিতে এবার তিনি ব্রি-২৮ জাতের বোরো ধানের আবাদ করেছিলেন। পাহাড়ি ঢলের পানিতে জমির পাকা ধান তলিয়ে যায়। পরে তড়িঘড়ি করে কিছু ধান কেটে আনেন।
জুড়ীর বেলাগাঁও গ্রামের সাদিক মিয়া বলেন, ‘চাতলার (বিল) কাছে জমিন। ঢলর পয়লা ধাক্কাতেই ধান তলাই গেছে। কাটার আর সুযোগ পাইছি না।’

একই এলাকার বর্গাচাষি আবু মিয়া বলেন, শিলাবৃষ্টিতে তাঁর তিন বিঘা জমির ধান নষ্ট হয়ে যায়। 
কুলাউড়া উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা এম এম শাহনেয়াজ বলেন, তাঁর এলাকার হাকালুকি হাওর পারের ভুকশিমইল, জয়চন্ডীর একাংশ ও ভাটেরার একাংশের ধান বেশি নষ্ট হয়েছে।

জুড়ী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দেবল সরকার বলেন, ‘জমি তলিয়ে গেলেও অনেকে ধান কেটে আনতে সক্ষম হয়েছেন। তবে শিলাবৃষ্টিতে বেশ কিছু জমির ধান নষ্ট হয়ে যায়।’

বড়লেখা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. কুতুব উদ্দিন বলেন, তাঁর এলাকার ৯০ শতাংশ জমির ধান কাটা হয়ে গেছে। অতিবৃষ্টির চেয়ে শিলাবৃষ্টিতেই ধানের ক্ষতি বেশি হয়েছে।

এস/০১:১০/০২ মে

মৌলভীবাজার

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে