Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (4 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৫-০১-২০১৬

প্রতিদিন ১৫ জন মা সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে প্রাণ হারাচ্ছেন  

প্রতিদিন ১৫ জন মা সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে প্রাণ হারাচ্ছেন

 

ঢাকা, ০১ মে- মাতৃমৃত্যু রোধে সরকারের নানামুখী পদক্ষেপের ফলে মাতৃমৃত্যুর হার লাখে ৩৪৪ জন ১৭০ এ নামিয়ে আনা সম্ভব হলেও এখনও দেশে প্রতিবছর ৫ হাজার ২০০ মা সন্তান প্রসবকালে মারা যাচ্ছেন। অর্থাৎ প্রতিদিন প্রায় ১৫ জন মা সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে মারা যাচ্ছে বলে গবেষণাপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে।
 
শনিবার (৩০ এপ্রিল) সকালে জাতীয় সংসদের মিডিয়া সেন্টারে ইউএনএফপিএ এর অর্থায়নে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ সচিবালয় কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন Strengthening Parliament’s Capacity in Integrating Population Issues into Development (SPCPD) প্রকল্পের আওতায় স্পিকারের নেতৃত্বে  বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব পার্লামেন্টারিয়ানস অন পপুলেশন এন্ড ডেভলপমেন্ট (বিএপিপিডি) এর অধীন গঠিত তিনটি সাব-কমিটির মাতৃস্বাস্থ্য উন্নয়ন ও নিরাপদ প্রসব নিশ্চিতকরণ, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ ও যুব উন্নয়ন বিষয়ে এক মতবিনিময় সভায় এসব তথ্য জানানো হয়।
 
জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আ. স. ম. ফিরোজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় হুইপ মো. শাহাব উদ্দিন, সংসদ সদস্য বেগম রেবেকা মমিন, ডা. মো. হাবিবে মিল্লাত, এ্যাডভোকেট সানজিদা খানম ও উম্মে কুলসুম স্মৃতি, প্রকল্প পরিচালক এমএ কামাল বিল্লাহ উপস্থিত ছিলেন ।
 
২০১১ সালের বাংলাদেশ স্বাস্থ্য ও জনমিতি জরিপ (বিডিএইচএস) অনুযায়ী সরকারি ও বেসরকারি সংস্থার যৌথ প্রচেষ্টার মহিলা প্রতি মোট প্রজননের হার ২ দশমিক ৩ শতাংশ কমানো সম্ভব হলেও ২০১৪ সালের তথ্যে দেখা গেছে মহিলা প্রতি প্রজননের হার ২ দশমিক ৩ এ স্থির রয়েছে। এই অবস্থায় সরকার ২০১৬ সালের মধ্যে তা ২ দশমিক ১ শতাংশে নামিয়ে আনার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে।
 
জনসংখ্যা বৃদ্ধির বর্তমান হার অব্যাহত থাকলে বাসস্থান ও কর্মসংস্থান নির্মাণে প্রতিবছর ১ দশমিক ৬ শতাংশ হারে আবাদি জমি হ্রাস পাবে। এই অবস্থা চলতে থাকলে জমির অভাবে প্রয়োজনীয় খাদ্য উৎপাদনও হুমকির সম্মুখীন হবে।  
 
মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনকালে ডা. মো. হাবিবে মিল্লাত বলেন, জনমিতি হিসাব অনুযায়ী ২০১৩ সাল হতে ২০৪০ সাল পর্যন্ত যুবজনগোষ্ঠীর সংখ্যা বাড়বে। এরপর ২০৪০ সালের পর থেকে বৃদ্ধের সংখ্যা বাড়তে থাকবে। তাই এই সময় আমাদের কাজে লাগাতে হবে।
 
মাতৃমৃত্যুর অন্যতম কারণ হিসেবে তিনি উল্লেখ করেন বাল্যবিবাহকে। বাল্যবিবাহ রোধ করা গেলে মাতৃমৃত্যু অনেকাংশে কমানো সম্ভব উল্লেখ করে এ জন্য তিনি সার্বজনীন আইন প্রণয়নের উপর গুরুত্বারোপ করেন। বিয়ের বয়স ছেলে-মেয়ে উভয়ের জন্য ১৮ বছর নির্ধারণ করে আইন করার জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে