Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 1.0/5 (3 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৪-২৮-২০১৬

সবুজের গভীর আবেদন জানাতে ওয়ালটব

সবুজের গভীর আবেদন জানাতে ওয়ালটব

যে পরিবেশেই থাকুন না কেন, মনের ভেতর লুকিয়ে থাকা সৌখিনতা আপনাকে তাড়া করবেই। সবুজের সান্নিধ্যে থাকা, গাছের পরিচর্যার অজুহাতে সুন্দর সময় পার আর নিজ পরিচর্যায় বেড়ে ওঠা গাছ দেখে আনন্দ উপভোগের ইচ্ছা কার নেই বলুন? কর্মব্যস্ত আপনি বড়সড় বাসায় থাকুন আর ছোট্ট ফ্ল্যাটে থাকুন এই তৃপ্তি পেতে চাইবে মন। চোখ জুড়াতে চাইবে সবুজের গভীর আবেদনে।

কিন্তু বাসার সামনে খোলা জায়গা, বড় বারান্দা বা ছাদে বাগান করার কোনো সুযোগই আপনার নেই। তাই বলে তো আর মনের বাসনাকে লুকিয়ে রাখা যায় না। যারা ভাড়া বাসায় বা ছোট্ট পরিসরে বসবাস করছেন, বাগান করার মতো কোনো জায়গা নেই এমনকি আসবাবের অধিক্যে ঘরের ভেতর টবে গাছ লাগানোর উপায় নেই তারা ব্যবহার করতে পারেন ওয়াল টব। দেয়ালের সৌন্দর্য বাড়ানোর পাশাপাশি আপনার গাছের চর্চা করার মন পরিতৃপ্ত হবে দারুণভাবে।

ওয়ালটব বা দেয়ালে ঝোলানো টবের সঙ্গে পরিচিতি প্রায় সবারই আছে। দোকানে নানা আকৃতির টব পাওয়া যায়। এগুলো বেশিরভাগ মাটির তৈরি হয় এবং ছোট বা মাঝারি হয়। একটি ডালের একপাশে পাখি বসে আছে, অপরপাশে দুটি ছোট টব আকৃতির। এর মধ্যে ছোট আকারের যেকোনো ইনডোর প্লান্ট লাগিয়ে দিতে পারেন অনায়াসে। কোনো কোনোটি দেখতে একদম ফুলদানির মতো। কোনো ওয়ালটব ফুলের ডালির মতো। কোনোটি আবার একটা পাতার বোটার সঙ্গে লাগানো ছোট্ট একটি টব। দোকানীরা উপস্থাপনও করে নানা রঙের মিশেলে রাঙিয়ে। দেখে যে কারো চোখ জুড়িয়ে যাওয়ার যোগাড়। একেকটা ওয়ালটব যেন আস্ত একটা প্রকৃতির আবহ গড়ে তুলতে সক্ষম। পাখির বাসা, গাছের ডাল, পাতার আড়ালে পাখির লুকোচুরি ইত্যাদি ফুটে ওঠে একেকটি ওয়ালটবে। এগুলোর অপরূপ রূপের কারণে শুধু দেয়ালে ঝুলানো ফুলের টবই বলা চলে না, দৃষ্টিনন্দন শোপিসও বটে।

ঘর সাজাতে এই ওয়ালটবের জুড়ি মেলা ভার। শুধু কি অন্দর সজ্জা, ঘরে ওঠা সিঁড়ি সাজাতেও এই টব ব্যবহার করা যায় অনায়াসে। সিঁড়ি দিয়ে উঠতে দেয়ালের পাশে পর পর কয়েকটি ওয়ালটব সাজিয়ে দিতে পারেন। ঘরে ঢোকার সদর দরজা খোলার পর যে দেয়ালটি দেখা যাবে তাতে অনায়াসে পছন্দের একটি ওয়ালটব ঠাঁই পেতে পারে। কোনো অতিথি ঘরে ঢোঁকা মাত্রই তার চোখ আটকে যাবে সবুজের সৌন্দর্যে। শুধু তাই নয়, যতবার ঘরে ঢুঁকবেন আপনারও নজর পড়বে তাতে। অজানা এক ভালোলাগা প্রতিবারই আপনাকে উচ্ছ্বসিত করতে বাধ্য।

ঘরের যেকোনো ফাঁকা দেয়ালে ওয়ালটব মানিয়ে যায়। বিশেষ করে বসার ঘর সাজাতে ওয়ালটবের ব্যবহার উল্লেখ করার মতো। অনেক বেশি সৌখিন লোকজন নিজেদের ব্যবহারের স্নানঘরের একটি দেয়ালেও ঝুলিয়ে দেন ওয়ালটব। বাহারি রঙের পাতাওয়ালা গাছ শোভা পেতে পারে সে ওয়ালটবে। ইলেক্ট্রনিক্স পণ্যের ভিড়ে আপনার আবাসে সবুজের সমারোহ ঘটাতে ওয়ালটবের জুড়ি নেই। আজকাল অফিস বা রেস্টুরেন্টের দেয়ালেও উল্লেখযোগ্যহারে ঠাঁই করে নিয়েছে ওয়ালটব। এ যেন এক অন্যরকম আবহ তৈরির ট্রেন্ড।

ওয়ালটব দেয়ালের এমন জায়গায় লাগাতে হবে যাতে এর ভেতর থাকা গাছে অনায়াসে পানি দেয়া যায়। সৌন্দর্যের দিকটি বিবেচনা করে পছন্দ অনুযায়ী গাছ লাগাতে হবে। এই টবে খুব বেশি বড় গাছ লাগানো যায় না। তবে ছোট ছোট লতানো গাছ বা ছোট পাতাবাহার লাগালে ভালো লাগে। সৌন্দর্য বাড়াতে গাছগুলোর গোড়ায় ছোট পাথর কুচি দিয়ে দিতে পারেন। গাছ লাগানোর সময় একটা জিনিস অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে, সেটা হল- টবের ভেতর যে গাছ থাকবে তা সরাসরি ওই টবেই লাগানো হবে না। অপর একটি ছোট টবে থাকবে এবং ওই টব ধরে ওয়ালটবের ভেতর বসানো থাকবে। মাঝে মাঝে সেখান থেকে গাছগুলো নিয়ে রোদে দিতে পারবেন। তাহলে গাছ তার প্রয়োজনীয় খাদ্য তৈরি করে নেয়ার সুযোগ পাবে।

এই ধরনের ওয়ালটব যেকোনো মৃতশিল্পের দোকানেই পাওয়া যায়। দামও হাতের নাগালে থাকে। পছন্দের টব কিনে তাতে নিজের ইচ্ছামতো গাছ লাগাতে পারবেন। ঘর সাজাতে এমন ওয়ালটব কিনতে আপনাকে খোঁজ করতে পারেন রাজধানীর দোয়েল চত্তরে মৃতশিল্পের দোকান গুলোতে। সেখানে সারি সারি মৃতশিল্পের দোকানে পেয়ে যাবেন পছন্দের ওয়ালটবটি। নিউমার্কেট ফুটপাতের মৃতশিল্পের দোকানেও পেতে পারেন পছন্দের ওয়ালটব। এছাড়াও কলাবাগান, ধানমণ্ডিওতেও পাওয়া যাবে। একেকটি ওয়ালটব মাত্র ৬০ টাকা থেকে শুরু করে ১৫০ বা ২০০ টাকার মধ্যে পেয়ে যাবেন। কাজ আর রঙের ধরনের ওপর দাম অনেকটা নির্ভর করে। আড়ং বা এ ধরনের চেইন শপগুলোতেও পেতে পারেন পছন্দের ওয়ালটব। 

এফ/২২:৪০/২৮ এপ্রিল

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে