Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৪-২৭-২০১৬

আটলান্টার বৈশাখী মেলায় একখণ্ড বাংলাদেশ

মাহমুদুল খান


আটলান্টার বৈশাখী মেলায় একখণ্ড বাংলাদেশ
সমবেতদের একাংশ

ওয়াশিংটন, ২৭ এপ্রিল- প্রায় বিশ হাজার বাংলাদেশি অধ্যুষিত যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যের আটলান্টা শহরে রোববার (২৪ এপ্রিল) বসেছিল বাঙালির প্রাণের উৎসব আটলান্টা বৈশাখী মেলা। এবার আটলান্টায় পর পর তিনটি বৈশাখী মেলা অনুষ্ঠিত হলেও এটা ছিল বৃহৎ​ উৎসব। শত শত বাংলাদেশির পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠেছিল বাংলাদেশি কমিউনিটির জনপ্রিয় ভেন্যু বার্ক্মার হাইস্কুল। পুরো ভেন্যুটি ছিল কানায় কানায় পূর্ণ।


সাংস্কৃতিক পরিবেশনা

বাংলাদেশি-আমেরিকান অ্যাসোসিয়েশন অব জর্জিয়া ও আটলান্টা কালচারাল সোসাইটির যৌথ আয়োজনে অনুষ্ঠিত এবারের আয়োজনে ভেন্যুটিকে সাজানো হয়েছিল ঠিক যেন এক টুকরো বাংলাদেশের মতো। ভেন্যুর শুরুতেই কিছু আবেগঘন পোস্টার বাংলার চিরায়ত ভঙ্গিতে অতিথিদের স্বাগত জানায়, যা সবার নজর কাড়ে। শেকড়ের সন্ধানে স্লোগানকে সামনে রেখে মেলার সাংস্কৃতিক আয়োজনকে স্থানীয় শিল্পীদের বাঙালির ঐতিহ্যবাহী বাউল সাজে সজ্জিত করা হয়। আয়োজনের কোনো কমতি ছিল না কোনখানেই। একখণ্ড বাংলাদেশে সবার সাজসজ্জাও ছিল ঠিক বৈশাখী মেলার আমেজে।


সাংস্কৃতিক পরিবেশনা

মেলার আরেক আকর্ষণ ছিলেন বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য থেকে আগত অতিথিরা। সেই সঙ্গে মূলধারার স্থানীয় ডেমোক্রেটস দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সরব উপস্থিতি মেলাকে বিশেষ মর্যাদা এনে দেয়। মাসুদ খান ও মোহাম্মদ মামুনের নেতৃত্বে বাংলাদেশি আমেরিকানদের দেশি ডেমোক্রেটস সংগঠনের নেতারা মঞ্চে এসে দর্শকদের সঙ্গে পরিচিত হন।


বাংলাদেশি আমেরিকানদের দেশি ডেমোক্রেটস সংগঠনের নেতাদের দর্শকদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার দৃশ্য

স্থানীয় শিল্পীদের মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান দর্শকদের মাতিয়ে রাখে শেষ পর্যন্ত। বাইরের কোনো শিল্পী ছাড়াই শুধু স্থানীয় শিল্পীরা যে কোনো সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে এভাবে দর্শক বিমোহিত করতে পারেন সেটা আরেকবার প্রমাণিত হলো। স্থানীয় শিল্পীদের মধ্য ছিলেন ব্যান্ড শিল্পী রোমেল খান, গাইডেন হকিন্স, গোলাম মহিউদ্দিন, মুহি সুমন, তানজিলা ইসলাম, তসলিমা সুলতানা, হোসনে আরা, লিকা রহমান, রাইদ আহমেদ, শেফালি সিদ্দিকী, শারমিন ওমর ও দেবাদ্রিতা গোস্বামী। এ ছাড়া নতুন প্রজন্মের কিছু উদীয়মান শিল্পীর মনোজ্ঞ উপস্থাপনা দর্শকদের নজর কাড়ে।


আয়োজকেরা

মেলার প্রধান আয়োজক কমিউনিটি নেতা জসিম উদ্দিন বলেন, এটি বাঙালির একটি প্রাণের উৎসব। এর আয়োজনে কোনো কমতি রাখা হয়নি। সবার সহযোগিতা পেলে প্রতি বছর আরও ব্যাপক ও জাঁকজমকপূর্ণভাবে এই মেলার আয়োজন করে হবে। অপর আয়োজক দিলু মাওলা সকলের সার্বিক সহায়তায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। অধুনালুপ্ত প্রিয় বাংলার সম্পাদক সোহেল আহমেদের সার্বিক তত্ত্বাবধানে আয়োজকদের মধ্যে আরও ছিলেন ​আটলান্টার সুপরিচিত মোহাম্মদ জামান, ডিউক খান, আরিফ আহমেদ, আবদুল হাকিম, নজরুল ইসলাম, নবুওত মজলিস, চুন্নু, শরফুদ্দিন শরফু ও মোহাম্মদ রহমান প্রমুখ। আটলান্টার প্রায় সকল শিল্পী, কলাকুশলী, সংগঠক, কবি, সাংবাদিক, লেখক, ব্যবসায়ী তথা দল মত নির্বিশেষে কমিউনিটির সর্বস্তরের ব্যক্তিরা মেলায় উপস্থিত ছিলেন।


মেলার প্রবেশ পথে নানা পোস্টার

মেলায় রকমারি স্টলে দেশীয় পণ্যের বাহারি সামগ্রী, দেশি ঐতিহ্যবাহী পোশাক-আশাক কেনাবেচা চলে। খাবারের স্টলগুলিতে দেশীয় মুখরোচক খাবার বিক্রি করতে দেখা যায়। মেলার শেষ অংশে র‍্যাফেল ড্র অনুষ্ঠিত হয়।

এফ/০৭:৩০/২৭ এপ্রিল

যূক্তরাষ্ট্র

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে