Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 5.0/5 (2 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৪-২৩-২০১৬

জাতীয় পার্টিকে নিয়ে মন্তব্য সমীচীন হবে না: মেনন

জাতীয় পার্টিকে নিয়ে মন্তব্য সমীচীন হবে না: মেনন

ঢাকা, ২৩ এপ্রিল- সংসদে না থাকলেও বিএনপিকেই দেশের রাজনীতিতে ‘বিরোধী দল’ মনে করেন সরকারের শরিক ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন। সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টিকে নিয়ে কথা বলা সমীচীন হবে না বলেও মনে করেন তিনি।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) মিলনায়তনে শুক্রবার মিট দ্য রিপোর্টার্স অনুষ্ঠানে বিরোধী দলের আচরণ নিয়ে মন্তব্য জানতে চাইলে বিএনপির কর্মকাণ্ড তুলে ধরেন বিমানমন্ত্রী মেনন। এক পর্যায়ে ‘ভুল ধরিয়ে দেওয়া হলে’ বিরোধী দল হিসেবে জাতীয় পার্টিকে নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি তিনি।

বিরোধী দল গণতান্ত্রিক আচরণ করছে কি না- এমন প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, “বিরোধী দলতো কোনো আচরণই করছে না। তাদের কোনো আচরণ আছে বলে মনে হয় না। “তারা তাদেরকে নিজেদের মধ্যে, কথার মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখছে। বাইরে তাদের আচরণ আছে বলে মনে হয় না। জনগণের কোনো বিষয় নিয়ে... ইতোমধ্যেই তারা তাদের ক্ষতিটা করে ফেলেছে।”

বিরোধী দল বলতে কি বিএনপিকে বোঝাচ্ছেন?- একজন সাংবাদিকের এমন প্রশ্নে মেনন বলেন, “বিরোধী রাজনৈতিক হিসেবে তো বিএনপিই আছে, আর কে?” ওই সাংবাদিকের জবাব, “কেন, জাতীয় পার্টি?”

এসময় নিজেকে একটু সামলে নিয়ে মৃদু হেসে মেনন বলেন, “জাতীয় পার্টির বিষয়ে মন্তব্য করা আমার সমীচীন হবে না। তারা আমাদের সাথে আছেন, সরকারেও আছেন, সরকারের বিরোধিতার ভূমিকা পালন করছেন।”

মেননের এই মন্তব্যে মিলানায়নে উপস্থিত সাংবাদিকদের অনেকেই হেসে উঠেন; কয়েকজনকে কানাকানি করতেও দেখা যায়। ‘বিএনপি ভাঙতে সরকারের ষড়যন্ত্রের’ অভিযোগ প্রসঙ্গে মেনন বলেন, রাজনৈতিক দলকে নিজের যোগ্যতায়ই ঐক্য রাখতে হয়। কেউ এসে ভেঙে দিতে পারে না, যদি তার দলের ভেতর দুর্বলতা না থাকে। “আমি মনে করি, দল হিসেবে বিএনপির অস্তিত্ব কঠিন জায়গায় রয়েছে।”

গত ২৯ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদের দুই বছর পূর্তির ১০ দিন আগে খোদ জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ সংবাদ সম্মেলনে বলেছিলেন, “আমরা বিরোধী দলে আছি, না সরকারি দলে আছি, সেটা দেশের মানুষ বুঝতে পারছে না।”

বিএনপির বর্জনের মধ্যে অনুষ্ঠিত দশম সংসদ নির্বাচনে অর্ধেকের বেশি আসনের প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হন। ৩৫০ আসনের সংসদে আওয়ামী লীগের আসন সংখ্যা ২৭৬। দলটির নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের শরিক ওয়ার্কার্স পার্টির সাতটি, জাসদের ছয়টি ও তরীকত ফেডারেশনের দুটি আসন রয়েছে।

জাতীয় পার্টির ৪০ জন, জেপির দুইজন এবং বিএনএফের একজন সদস্য রয়েছেন সংসদে। স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ১৬টি আসনে জয়ী হন; যাদের প্রায় সবাই আওয়ামী লীগ নেতা। দশম সংসদ বসার আগে গঠিত সরকারে ১৪ দলীয় জোটের বাইরে থাকা দল জাতীয় পার্টি এবং জেপি যোগ দেয়। সরকারে যোগ না দেওয়া বিএনএফ দলটি আওয়ামী লীগের ‘ষড়যন্ত্রে’ গঠিত বলে বিএনপির অভিযোগ।

নির্দলীয় সরকারের অধীনে ভোট না হওয়ায় নির্বাচন বর্জনকারী বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলে আসছেন, ‘সো কল্ড’ এই সংসদে জনসমস্যা নিয়ে কোনো আলোচনাই হয় না। ডিআরইউ সভাপতি জামাল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমেদসহ সংগঠনটির নেতারা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

এফ/০৭:২০/২৩ এপ্রিল

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে