Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 1.4/5 (7 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৪-২০-২০১৬

জাপানের নাগাসাকি পিস পার্কে বাংলাদেশের ভাস্কর্য

জাপানের নাগাসাকি পিস পার্কে বাংলাদেশের ভাস্কর্য
প্রথম পুরস্কারপ্রাপ্তকে চেক তুলে দিচ্ছেন মন্ত্রী

বেইজিং, ২০ এপ্রিল- দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের পরমাণু বোমা হামলার ঘটনার স্মরণে জাপানের নাগাসাকি পিস পার্কে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে একটি শান্তির ভাস্কর্য স্থাপন করা হবে। এ জন্য তিনটি শিল্পকর্মকে চূড়ান্ত করা হয়েছে। এখন তা প্রধানমন্ত্রীর কাছে উপস্থাপন করা হবে।

বুধবার নির্বাচিত তিনটি শিল্পকর্মের শিল্পী ও আরো সাতজন শিল্পিীকে পুরস্কৃত করলো গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়।  মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন।

মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

শিল্পকর্ম বাছাই পর্বে  প্রথম হয়েছে অনিন্দিয়া পণ্ডিতের শিল্পকর্ম। মন্ত্রী তার হাতে পাঁচ লাখ টাকার চেক ও সনদ তুলে দেন।

দ্বিতীয় স্থান লাভ করে মোহাম্মদ এমরান হোসেন ও তৃতীয় হয় মো. আসিফুর রহমানের ভাস্কর্য। পুরস্কার হিসেবে পেয়েছেন তিন লাখ টাকা ও সনদ এবং তৃতীয় স্থান লাভকারী দুই লাখ টাকা ও একটি সনদ পান।

এছাড়াও আরো সাতটি ভাস্কর্যের শিল্পীকে সম্মানিত করা হয়েছে।


চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত ভাস্কর্য। বাঁ থেকে : প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকারী

জাপানের নাগাসাকিতে ১৯৪৫ সালের ৯ আগস্ট ‘লিটল বয়’ নামে যে আণবিক বোমা ফেলা হয় তাতে কয়েক লাখ লোক প্রাণ হারায়। এর বিপক্ষে জনমত গড়ে তুলতে ১৯৫৫ সালে নাগাসাকি পিস পার্ক নির্মাণ করা হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাপান সফরকালে এ পার্কে বাংলাদেশের ভাস্কর্য স্থাপনের ব্যবস্থা করেন।

গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শহীদ উল্লা খন্দকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন ভাস্কর্য নির্বাচন জুড়ি বোর্ডের প্রধান স্থপতি রবিউল হুসাইন, অতিরিক্ত সচিব এম বজলুল কবীর চৌধুরী।


উল্লেখ্য, নাগাসাকি পিস পার্কে বিশ্বের প্রায় ১৬টি দেশের ভাস্কর্য স্থান পেয়েছে। ২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাপান সফরকালে বাংলাদেশের একটি ভাস্কর্য স্থাপনের সিদ্ধান্ত হয়। এ পার্কের পোল্যান্ড ও ইতালির ভাস্কার্যের মাঝখানে বাংলাদেশের ভাস্কর্যটি স্থাপন করা হবে।

এর জন্য গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের স্থাপত্য অধিদপ্তর উন্মুক্ত প্রতিযোগিতা আহ্বান করে। মোট ৬২টি শিল্পকর্ম প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়। এরমধ্যে থেকে ১০টি ভাস্কর্যকে চূড়ান্ত করা হয়। তারমধ্যে তিনটি শিল্পকর্মকে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় নির্বাচন করা হয়।

আর/১০:০৪/২০ এপ্রিল

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে