Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৪-১৪-২০১৬

ড্রাগন রাজার দেশে ব্রিটিশ রাজদম্পতি  

ড্রাগন রাজার দেশে ব্রিটিশ রাজদম্পতি  

থিম্পু, ১৪ এপ্রিল- ভারত দর্শন কিছুটা অপূর্ণ রেখেই ড্রাগন রাজার দেশ ভুটান দর্শনে গেলেন ব্রিটিশ রাজদম্পতি। দুই দিনের সফরে বৃহস্পতিবার বিশ্বের সবচেয় সুখী দেশ ভুটানে পৌঁছেন তারা। সেখানে পেরো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পর তাদের অভ্যর্থনা জানান দেশটির রানী জেতসুন পেমার বোন প্রিন্সেস চিমা এবং তার স্বামী রেস্টাউরায়েটার।

রাজধানী থিম্পুতে ব্রিটিশ রাজসিংহাসনের দ্বিতীয় উত্তরাধিকার ডিউক অব ক্যাম্ব্রিজ প্রিন্স উইলিয়াম এবং তার স্ত্রী ডাচেস অব ক্যাম্ব্রিজ কেট মিডলটনকে জমকালো অভ্যর্থনা জনাবেন ভুটানের রাজা জিগমে খেসার নামগিল ওয়াংচুক এবং রানী জেতসুন পেমা।

দুই দিনের ভুটান সফরে তারা দেশটির রাজা জিগমে খিসার নমগিয়েল ওয়াংচুক ও রানী জেতসুন পেমার সঙ্গে মন্দির পরিদর্শন করবেন এবং বিভিন্ন ঐতিহ্যবাহী খেলা উপভোগ করবেন। এছাড়া সেখানে বসবাসকারী ব্রিটিশ নাগরিকদের সঙ্গেও মিলিত হবেন তারা।


এর আগে রোববার ভারত পৌঁছেন কেট ও উইলিয়াম। ভুটান সফর শেষ করে ১৬ তারিখ আবার ভারত ফিরবেন তারা। সেখানে তাজমহল ভ্রমণ করবেন ব্রিটিশ এই রাজদম্পতি। ওই দিনই তারা যুক্তরাজ্যের উদ্দেশ্যে যাত্রা করবেন। 

১৯৯৮ সালের পর এই প্রথম ব্রিটিশ রাজপরিবারের কোনো সদস্য ভুটান সফর করছেন। এর আগে ১৯৯৮ সালে ভুটান ভ্রমণে এসেছিলেন প্রিন্স চার্লস। কয়েকশ বছর ধরে ভুটান বাইরের বিশ্ব থেকে অনেকটা বিচ্ছিন্ন ছিল। ১৯৬১ সাল থেকে এই অবস্থার পরিবর্তন ঘটতে শুরু করে। ১৯৯৯ সালের আগ পর্যন্ত দেশটিতে কোনো টেলিভিশন অনুমোদিত ছিল না। 

বলা হয়ে থাকে, নিজেদের আদর্শ এবং সংস্কৃতি রক্ষার জন্যই এমনটা করেছিল ভুটান। দেশটির মোট ভূখণ্ডের ৬০ ভাগই বনাঞ্চল। ২০১১ সালে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র ভুটানের রাজা ওয়াংচুক (৩৫) রানী জেতসুন পেমাকে (২৫) বিয়ে করেন। ওই একই বছর বিয়ে করেছিলেন উইলিয়াম ও কেটও। চলতি বছর একটি পুত্রসন্তানের জন্ম দেন ভুটানের রানী। 


উল্লেখ্য, ২০০৮ সালের নভেম্বরে ভুটানের সিংহাসনে আরোহণ করেন বর্তমান রাজা। এর আগে ভুটানের রাজা ছিলেন জিগমে খেসার নামগিয়েল ওয়াংচুকের বাবা জিগমে সিংহে ওয়াংচুক। ১৯৬০ সালে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে ভুটান। ১৯৭৪ সালে দেশটিতে প্রথম দেশি ও বিদেশি গণমাধ্যমকে সংবাদ প্রচারের অনুমোদন দেয়া হয় এবং ১৯৯৯ সালে প্রথম ইন্টারনেট ও টেলিভিশন কার্যক্রমের সূচনা হয়। ভুটানের অধিবাসীরা নিজেদের দেশকে মাতৃভাষা জংকা ভাষায় ‘দ্রুক ইযুল’ বা ‘বজ্র ড্রাগন’র দেশ নামে ডাকে।

আর/১৬:৪২/১৪ এপ্রিল

দক্ষিণ এশিয়া

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে