Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৪-১২-২০১৬

সব ভোটারই ভূতুড়ে! কুলটির গ্রামে ভোট নেই। (ভিডিও সংযুক্ত)

সব ভোটারই ভূতুড়ে! কুলটির গ্রামে ভোট নেই। (ভিডিও সংযুক্ত)

কলকাতা, ১২ এপ্রিল- গণতন্ত্রের সবথেকে বড় উৎসব। কিন্তু সেই উৎসবে সামিল নয় আস্ত একটা গ্রাম। ভোটার লিস্টে নাম আছে গ্রামবাসীদের, কিন্তু ভোট নেই। তাই এই গ্রামে দেওয়াললিখন নেই। পোস্টার, ব্যানার নেই। ভোট চাইতে আসেননি কোনও প্রার্থী।

গ্রামের নাম বেনা। সদর শহর কুলটি থেকে মাত্র দু’কিমি দূরে। নিয়ামতপুর জিটি রোডের পাশেই ছোট্ট একটা গ্রাম। বোল্ডার আর মোরামের এবড়ো খেবড়ো রাস্তা। জঙ্গুলে চেহারা গ্রামটা দেখলেই গা ছমছম করে। বিরাট বিরাট সব বাড়ি। বারন্দা। তুলসি মঞ্চ। বৈঠক খানা। সারি সারি তাল গাছ। কিন্তু সবেরই চেহারা যেন ভুতুড়ে।

গাছ গাছালিতে ভরা পুকুর। পাশ দিয়েই ঝমঝম করে চলে যাচ্ছে ধানবাদ আসানসোল লাইনের ট্রেন। কিন্তু গোটা গ্রামটাই ফাঁকা। বসত বাড়ি আছে, কিন্তু বসতি নেই। চারিদিক খাঁ-খাঁ করছে।

বছর দশেক আগে রটে যায় এটা ভূতের গ্রাম। ভূতের ভয়ে গাঁ উজাড় হয়ে যায়। অখ্যাত বেনা গ্রামের পরিচিতি হয়ে যায় ভূতগ্রাম হিসেবে। যদিও গ্রামের মানুষ প্রকাশ্যে সে কথা স্বীকার করেন না আজও। তাঁদের দাবি, কোনও অশরীরি আত্মা নয়, তাঁরা গ্রাম ছেড়েছেন অনুন্নয়নের জন্য। রাস্তা, জল, আলো কোনও কিছুই নেই ওই গ্রামে।

ছোট্ট গ্রামটিতে অল্প সংখ্যক মানুষের বাস ছিল। অন্ধকার নামতেই বন্ধ হয়ে যেত বাড়ির দরজা। কাজের মানুষ সন্ধে নামার আগেই ফিরে আসতেন বাড়িতে। দুষ্কৃতীরা রাতভর ভয় দেখাতেন গ্রামবাসীদের। ওয়াগন ব্রেকাররা দাপিয়ে বেড়াত গোটা গ্রাম। বাইরে থেকে মৃতদেহ এনে ফেলে দিত গ্রামে। ২০০৬ সালে আতঙ্কের জেরে গ্রামের সবাই চলে যান ভিটেমাটি ছেড়ে। বেনা আগে ছিল কুলটির ২ নম্বর ওয়ার্ডের আওতায়। বর্তমানে বৃহত্তর আসানসোল পুরনিগমের মধ্যে। গ্রামের মানুষ আজও ভোট দেন। তবে যে যেখানে থাকেন সেখানে।

ভিডিও

এফ/০৮:১৫১২ এপ্রিল

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে