Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৪-১২-২০১৬

জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে কঠোর নজরদারি করতে হবে: শেখ হাসিনা

জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে কঠোর নজরদারি করতে হবে: শেখ হাসিনা

ঢাকা, ১২ এপ্রিল- ঢাকা মহানগর পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়নের নির্দেশ দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে সোমবার ঢাকা মহানগর, থানা ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নব গঠিত সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকরা সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি এ নির্দেশ দেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সবাইকে নিয়ে চলতে হবে। ত্যাগীরা যেন বাদ না পড়ে সে বিষয়টি নতুন নেতৃত্বকে দেখতে হবে। সবাই বসে মিলেমিশে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করতে হবে।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সংগঠনকে শক্তিশালী করার পাশাপাশি নগরবাসীকেও সজাগ ও সচেতন করতে হবে। কেউ যাতে সন্ত্রাস কিংবা জঙ্গিবাদে লিপ্ত হতে না পারে সে জন্য সর্বত্র কঠোর নজরদারি করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘একজন রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে শুধু বক্তৃতাই নয়, সামাজিক দায়িত্বও পালন করতে হবে। আমরা শক্তহাতে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ দমন করেছি বলেই দেশের মানুষ আজ সুখে-শান্তিতে রয়েছে, দেশ আজ সব দিক থেকে এগিয়ে চলেছে। এই উন্নয়নের গতিধারাকে অব্যাহত রাখতে হবে।’

সংগঠনকে শক্তিশালী করে গড়ে তুলতে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর ও দক্ষিণের নবনির্বাচিত নেতৃবৃন্দকে নির্দেশ দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘অতীতে আওয়ামী লীগের ওপর বার বার আঘাত এসেছে, কিন্তু কেউ ভীত নড়াতে পারেনি। কারণ, আওয়ামী লীগের শিকড় অত্যন্ত গভীরে ও শক্তিশালী। তাই জনগণের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন এবং চলমান দেশের উন্নয়নের গতিধারাকে অব্যাহত রাখতে সংগঠনকে শক্তিশালী করে গড়ে তুলতে হবে, দেশের জনগণের জন্য যে কোনো ত্যাগ স্বীকারে সবাইকে প্রস্তুত থাকতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী বিএনপি-জামায়াত জোটের সরকার উৎখাতের আন্দোলনের নামে জ্বালাও-পোড়াও ও নির্বিচারে পুড়িয়ে মানুষ হত্যার কঠোর সমালোচনা করে বলেন, ‘বাংলাদেশ একমাত্র বঙ্গবন্ধুর আমলে প্রবৃদ্ধি ৭ ভাগের ওপরে অর্জন করেছিল। এরপর এবার তার হাতে গড়া রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের আমলে দেশ ৭ ভাগ প্রবৃদ্ধি অর্জন করতে পেরেছে। আর কেউ করতে পারেনি।’
এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার উৎখাতের নামে যদি ৩টি মাস ধরে দেশজুড়ে জ্বালাও-পোড়াও, ধ্বংসযজ্ঞ এবং পুড়িয়ে মানুষ হত্যা না করত, দেশবাসীকে জিম্মি করে কষ্ট না দিত, তবে দেশের প্রবৃদ্ধি ৭ ভাগের উপরে অনেক আগেই উঠত।’

তিনি বলেন, ‘দেশে নির্বাচন হচ্ছে, এটা হতেই থাকবে। আগামীতেও নির্বাচন হবে। আমরা স্থানীয় সরকারগুলোও দলীয় প্রতীকের মাধ্যমে নির্বাচনের ব্যবস্থা করে গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করছি।’
অনুষ্ঠানের শুরুতেই ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তরের সভাপতি এ কে এম রহমতউল্লাহ এমপি ও সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান এবং ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী আবুল হাসনাত ও শাহে আলম মুরাদ প্রধানমন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

এ সময় মঞ্চে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এবং উত্তর-দক্ষিণ কমিটি গঠনে সমন্বয়কের দায়িত্ব পালনকারী কেন্দ্রীয় নেতা ড. আবদুর রাজ্জাক, লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খানসহ মহানগরের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠান শেষে নবনির্বাচিত নগর নেতাদের পোড়াবাড়ীর চমচম দিয়ে আপ্যায়িত করেন প্রধানমন্ত্রী।

আর/১২:৪৫/১২ এপ্রিল

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে