Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৪-১১-২০১৬

বিএনপিতে গণতন্ত্র নেই, বললেন জাফরুল্লাহ

বিএনপিতে গণতন্ত্র নেই, বললেন জাফরুল্লাহ

ঢাকা, ১১ এপ্রিল- মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর একজনের দয়ায় মহাসচিব হয়েছেন এমন মন্তব্য করে গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, ‘কী দুর্ভাগ্য জাতির ও আমাদের একজন রাজনীতিক নিজের অবদানের জন্য মর্যাদা পেলেন না। কারণ আমরা যে গণতন্ত্রের কথা বলছি তার দলে (বিএনপিতে) সেটা নেই। থাকলে তিনিও নির্বাচিত মহাসচিব হতেন। তাহলে খালেদা জিয়ার উদ্দেশ্যও পূরণ হতো। তাহলে তার গলার আওয়াজ আরও শক্তিশালী হতো। এমন অবস্থা দেশের বড় দুটি রাজনৈতিক দলে। তাই পরিবর্তন আনতে হলে বিএনপিকে আনতে হবে।’

আজ সোমবার দুপুরে দৈনিক আমার দেশ সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের কারাবরণের তিন বছর উপলক্ষে এক প্রতিবাদসভায় তিনি এসব কথা বলেন। আমার দেশ পরিবার এর আয়োজন করে।

মাহমুদুর রহমানের মুক্তির দাবির আলোচনায় যোগ দিয়ে সম্প্রতি ঘোষিত ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটি নিয়েও কথা বলেন ডা. জাফরুল্লাহ। তিনি বলেন, ‘পত্রিকায় এসেছে এজন্য কঠিন খাটতি খেটেছেন শেখ হাসিনা। তা ঠিক। তবে তিনি ঢাকা মহানগরের দুই অংশের কমিটির নাম ঠিক করার ব্যাপারে

ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’র পরামর্শ নিয়েছেন। ‘র’ ছিল মূল ব্যক্তি, এছাড়া অন্যান্য সংস্থারও পরামর্শ নিয়েছেন। তবে বিএনপি নেত্রী অবশ্য ‘র’য়ের পরামর্শ নেন না এটা আমি নিশ্চিত। ভবিষ্যতে নেবেন কি না জানি না।’

কাউন্সিলরদের মতামত নিয়ে বিএনপির মহাসচিবসহ বাকি পদের নির্বাচন করা হলে ভালো হতো বলেও মনে করেন জাফরুল্লাহ।

বিএনপির মহাসচিবের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘তার এখন কাজ হলো সংগঠন গোছানো। মাসের ১৫দিন তাকে ঠাকুরগাঁও নয়, চট্টগ্রাম থেকে শুরু করে সারাদেশের কর্মীদের সঙ্গে কথা বলা। তাদের সুখ-দুঃখের কথা শোনা।’

বিএনপি চেয়ারপারসনের উদ্দেশে ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘তারেক রহমানকে আরও উচ্চপদে দেখতে হলে মির্জা ফখরুলের হাত খুলে দিতে হবে।’

মাহমুদুর রহমানের মুক্তি দাবি করে জাফরুল্লাহ বলেন, ‘জনগণের কথা লেখার কারণে তিনি আজ কারাগারে। তিনি আজ মুক্ত থাকলে সরকারের দুর্নীতি, দেশ থেকে পাচার হওয়া অর্থ নিয়ে প্রতিনিয়ত লিখতেন।’

জাতীয় দুটি দৈনিকের সম্পাদকের দিকে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ‘মতি-মাহফুজ আর মাহমুদুর রহমানের মধ্যে পার্থক্য হলো তারা টোকা দিয়ে দিয়ে রেখে দেবেন, আর সামনে যেতেন না। আর তিনি (মাহমুদুর রহমান) প্রতিদিন এ নিয়ে লিখতেন। তিনি প্রকৌশলী মানুষ, তার এতো বেশি বুদ্ধিশুদ্ধি হয়নি।’

মাহমুদুর রহমানের মুক্তির জন্য তিনি প্রধান বিচারপতির  হস্তক্ষেপ কামনা করে বলেন, ‘প্রধান বিচারপতি সুন্দর সুন্দর কথা বললেও সুন্দর সুন্দর কাজ করছেন না। উনি গ্যালারির দিকে তাকিয়ে খেলছেন। জনগণের লোক হয়ে থাকলে উনার নিজের দায়িত্ব সুয়োমোটো (স্বপ্রণোদিত হয়ে সরকারের প্রতি আদেশ জারি) করা।  তা না হলে প্রধান বিচারপতি দায়িত্ব অবহেলা করছেন, এজন্য তাকে একদিন জনতার কাঠগড়ায় আসতে হবে ।’

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি ডা. এমাজউদ্দিন আহমেদ।

আর/১৭:৪২/১১ এপ্রিল

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে