Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 1.4/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৪-১০-২০১৬

৫টি বিষয় মেয়েরা কখনোই বলে না স্বামীদের

৫টি বিষয় মেয়েরা কখনোই বলে না স্বামীদের

একে অপরের সঙ্গে সারাজীবন কাটানোর অঙ্গীকার। সুখে-দুঃখে একে অন্যের ভরসা হয়ে ওঠা। আর সঙ্গে অবশ্যই পারস্পরিক বিশ্বাস আর সম্মান। এর নামই বিয়ে। যার সঙ্গে সারাজীবন কাটাবেন বলে স্থির করেছেন, তার কাছে গোপন কী-ই বা থাকতে পারে। তবে সত্যিই কি গোপন কিছু থাকে না? এর উত্তর দিয়েছেন বিশ্বের খ্যাতনাম মনোবিদরা। তাদের মতে, এমন পাঁচটি বিষয় রয়েছে যা নিয়ে স্ত্রীরা সাধারণত স্বামীর কাছে মুখ খোলেন না বা মুখ খোলা পছন্দ করেন না।

১) শারীরিক অসুস্থতা: এ ব্যাপারে কথা বলায় মেয়েদের চরম অনীহা থাকে। বিশেষ করে, তারা যদি বুঝতে পারেন, সমস্যা গুরুতর। তবুও স্বামীর কাছে গোপন করে রাখাই শ্রেয় বলে মনে করেন। বিশ্বের অন্যতম খ্যাতনামা মনোবিশারদ ডা. ক্রিস্টেন কার্পেন্টার বলেন, ‘এর পেছনে একটা ভাবনাই কাজ করে। সংসারের চিন্তার সঙ্গে যদি আরও একটি বিষয় এসে যুক্ত হয় তবে স্বামীর মানসিক সমস্যা বাড়বে। কিন্তু এটা করার অর্থ ভবিষ্যতে আরো বড় সমস্যা সৃষ্টি করা। শারীরিক ব্যাপার স্বামীকে বলবেন না তো কাকে বলবেন!’

২) সম্পর্কে সমস্যা: সাম্প্রতিক একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, স্বামীর সাথে সম্পর্কের সমস্যার বিষয়ে বিবাহিত নারীরা একা একাই মনোবিদদের সাহায্য নিচ্ছেন। থেরাপিও করাচ্ছেন- এটা জানার জন্য যে বিবাহিত সম্পর্কে থাকবেন কিনা। মনোবিদ ডা. জোডি ভোথ বলেন, ‘সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে। এর পেছনে অন্যতম কারণ ভয়। মহিলারা সাধারণত এটা ভাবেন স্বামী থেরাপির কথা জানলে তিনিও নিজের স্বাধীন মতামত দেবেন। ফলে একাই এটা করতে চান তারা। কিন্তু এতে বিশেষ লাভ হয় না। কারণ সম্পর্ক তৈরি হয় দুইজনকে নিয়েই। সমস্যা যদি থাকে, তবে তা মেটাতেও হবে দুইজনকে। একা করা সম্ভব নয়।’

৩) যৌনতা: বিয়ের সঙ্গে শারীরিক প্রত্যাশাও ওতপ্রোতভাবে জড়িত। কিন্তু বেশিরভাগ নারী এ ব্যাপারে চুপ করে থাকা পছন্দ করেন। ডা. ক্রিস্টেন কার্পেন্টার বলেন, ‘তারা ভাবেন, যদি স্বামীকে বললে তার খারাপ লাগে বা তিনি অসন্তুষ্ট হন। তাই অতৃপ্ত থাকা বা অপছন্দ হওয়া সত্ত্বেও তারা চুপ করে থাকেন। এ ব্যাপারে খোলাখুলি কথা বলাই ভালো। সম্পূর্ণ ভিন্ন একটি পরিবেশে যখন দুইজনে একা থাকবেন তখন এ ব্যাপার উত্থাপন করুন। প্রথমেই বলুন আপনার কোন বিষয়টা ভালো লাগে। তারপর খারাপ লাগার প্রসঙ্গে আসুন।’

৪) ব্যক্তিগত সাফল্য: চাকরিতে পদোন্নতি বা বড়সড় রকমের বেতন বৃদ্ধি আনন্দের বিষয় সন্দেহ নেই। কিন্তু স্ত্রীরা সাধারণত এ ব্যাপারে চুপ থাকেন। এর প্রধান কারণ ইগো। এটা দুই পক্ষেরই থাকতে পারে। ডা. কার্পেন্টার বলেন, ‘বহু পুরুষ চাকরি করা সফল নারীদের স্ত্রী হিসাবে পেতে চান। কিন্তু তারা প্রথমে একটা জিনিস দেখেন, স্ত্রী তার থেকে বেশি সফল কিনা। অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক তাও বলছি, এটা পুরুষদের মধ্যেই বেশি দেখা যায়। বিশেষত উন্নয়নশীল দেশে। তাই সমস্যা এড়াতে চুপ করেই থাকেন স্ত্রীরা।’

৫) ব্যাংক অ্যাকাউন্ট: নিজস্ব ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থাকলে তা নিয়ে নারীরা সাধারণত কথা বলা পছন্দ করেন না। থেরাপিস্ট ডা. টোমানিকা উইদারস্পুন বলছেন, ‘এর পেছনে নারীদের নিরাপত্তাহীনতা কাজ করে। যদি কোনো কারণে সম্পর্ক না টেকে, তাহলে ব্যাংকে জমানো টাকা কাজে লাগবে। তবে এর সঙ্গে একটা ‘সেন্স অফ বিট্রেয়াল’ও কাজ করে। যদি কোনো কারণে স্বামী এই গোপন অ্যাকাউন্টের বিষয়ে জানতে পারেন, তবে তার বিশ্বাসে আঘাত লাগতে পারে। তিনি এটাও ভাবতে পারেন, আরো বড় কোনো বিষয়ও হয়তো আপনি লুকিয়ে গিয়েছেন। এ বিষয়গুলি তৈরি হওয়ার আগেই কথা বলুন। এতে ক্ষতির চেয়ে লাভই বেশি হয়।’

আর/১২:০৪/০৯ এপ্রিল

সম্পর্ক

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে