Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 1.0/5 (1 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৪-০৮-২০১৬

বিশ্বকাপের ফ্লপ একাদশ

কাওসার মুজিব অপূর্ব


বিশ্বকাপের ফ্লপ একাদশ

বিশ্বকাপ মানেই বড় তারকাদের পারফর্ম করার মঞ্চ। তবে, অনেক সময়েই এই বড় মঞ্চে নিজেদের মেলে ধরতে ব্যর্থ হন এই বড় তারকারা। ২০১৬ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও ঘটেছে এমন ঘটনা।

এই ‘ফ্লপ’ হওয়া ক্রিকেটারদের নিয়ে এবার একাদশ গঠন করেছে প্রিয়.কম। একাদশে আছেন তিন ভারতীয়, দুই পাকিস্তানি, দুই ইংলিশ, দুই দক্ষিণ আফ্রিকান, এক অস্ট্রেলিয়ান ও এক বাংলাদেশি। অধিনায়ক নির্বাচিত হয়েছেন পাকিস্তানের শহীদ আফ্রিদি। চলুন দেখে নেয়া যাক কে কে আছেন সেই একাদশে...

শিখর ধাওয়ান (ভারত)
চার ম্যাচে তিনি করতে পেরেছেন মোটে ৪৩ রান। গড় ১০.৭৫। আর বাধ্য হয়েই তাকে একাদশ থেকেও বাদ দেয়া হয়। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে একাদশে ডাকা হয় আজিঙ্কা রাহানেকে।

অ্যালেক্স হেলস (ইংল্যান্ড)
দু’বছর আগেও্ বাংলাদেশের মাটিতে অনুষ্ঠিত হওয়া বিশ্বকাপেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চট্টগ্রামে ১১৬ রানের অপরাজিত এক ইনিংস খেলেছিলেন তিনি। পাঁচ ম্যাচে এবার তিনি করতে পেরেছেন মোটে ৬৬ রান।

ডেভিড ওয়ার্নার (অস্ট্রেলিয়া)
মারকুটে এই ব্যাটসম্যান এক বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচ বাদ দিলে আর কোন ম্যাচেই তিন অংকের ঘরে পৌঁছাতে পারলেন না। চার ম্যাচে ১০-এর নিচে গড় নিয়ে করলেন মোটে ৩৮ রান।

ইউইন মর্গান (ইংল্যান্ড)
দল ফাইনালে পৌঁছালেও অধিনায়ক নিজের পারফরম্যান্স নিয়ে সন্তুষ্ট হওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন না। ছয় ম্যাচে সর্বোচ্চ ২৭ রান সহ করেছেন ৬৬ রান।

সুরেশ রায়না (ভারত)
চার ইনিংসে করেছেন ৪১ রান। এর মধ্যে এক পাকিস্তানের বিপক্ষেই আছে ৩০ রানের এক ইনিংস। তাহলে ভেবে দেখুন বাকি ম্যাচ গুলোতে কি যাচ্ছেতাই ব্যাটিং করেছেন রায়না।

মুশফিকুর রহিম (বাংলাদেশ) – উইকেটরক্ষক
চলতি বিশ্বকাপে বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সবচেয়ে নিষ্প্রভ ছিলেন মুশফিক। এর উপর ব্যাঙ্গালুরুতে শেষ ওভারে অবিবেচকের মত আউট হওয়াও ছিল দৃষ্টিকটু। পাঁচ ইনিংসে মাত্র ৪৪ রান করেছেন এই উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান।

শহীদ আফ্রিদি (পাকিস্তান) – অধিনায়ক
তার অধিনায়কত্ব নিয়ে এতটাই সমালোচনা হয়েছে যে, বিশ্বকাপের পর এই পদ থেকেই সরে দাঁড়িয়েছেন শহীদ আফ্রিদি। আর বাংলাদেশের বিপক্ষে ৪৯ রানের ইনিংসটা বাদ দিলে আর বলার মত ইনিংসও তার নেই।

রবীচন্দ্রন অশ্বিন (ভারত)
১৫ ওভার বল করেছেন, পাঁচ ম্যাচে সেখান থেকে পেয়েছেন মোটে চার উইকেট। রান দিয়েছেন ১১৫ টি। ফলে, কেন এই অফ স্পিনার বিশ্বকাপের ফ্লপ একাদশে – সেটা এই পরিসংখ্যান থেকেই স্পষ্ট।

ক্যাগিসো রাবাদা (দক্ষিণ আফ্রিকা)
মুস্তাফিজ বাদে আর যে তরুণ পেসারকে ঘিরে আগ্রহ ছিল বিশ্বকাপে তিনি হলেন এই রাবাদা। তবে, নিজের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি তিনি। তিন ম্যাচে পাঁচটা উইকেট পেলেও ১১.৪ ওভারে ওভার প্রতি ১০-এর উপরে রান দিয়েছেন।

মোহাম্মদ আমির (পাকিস্তান)
এশিয়া কাপের পারফরম্যান্সের সুবাদে এই পেসারের দিকে নজর ছিল গোটা ক্রিকেট বিশ্বের। কিন্তু, চার ম্যাচে পেয়েছেন মোটে তিন উইকেট। ওভার প্রতি তার দেয়া প্রায় আট করে রানও দৃষ্টিকটু।

ডেল স্টেইন (দক্ষিণ আফ্রিকা)
গোটা বিশ্বকাপে মাত্র এক উইকেট আর ওভারপ্রতি ১১.৩৩ হারে রান – এই পরিসংখ্যান আর যাই হোক ডেল স্টেইনের নামের সাথে যায় না। ম্যাচও খেলেছেন মোটে দু’টা।

লাহিরু থিরিমান্নে (শ্রীলঙ্কা) – দ্বাদশ ব্যক্তি
শ্রীলঙ্কার এই বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান চার ম্যাচ খেলে এক ম্যাচেও দুই অংকের ঘরে পৌঁছাতে পারেননি। একটা ডাক সহ করেছেন মোটে ১৪ রান; ৩.৫ গড়ে!

এফ/০৮:৫৫/০৮ এপ্রিল

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে