Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৪-০৭-২০১৬

পরীক্ষার হলের তালায় সুপার গ্লু ছাত্রলীগের!

পরীক্ষার হলের তালায় সুপার গ্লু ছাত্রলীগের!

চট্টগ্রাম, ০৭ এপ্রিল- চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউট থেকে এক বছরের জন্য বহিষ্কৃত ছাত্রলীগ কর্মী মোফাজ্জেল হায়দার হোসাইন ওরফে টাইগার মোফার পরীক্ষা নেওয়ার দাবিতে এবার তালায় সুপার গ্লু দিলেন সংগঠনটির কর্মীরা। আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে আটটার দিকে চট্টগ্রাম নগরের বাদশা মিয়া সড়কে অবস্থিত চারুকলা ইনস্টিটিউটে এ ঘটনা ঘটে। এতে পূর্বনির্ধারিত দ্বিতীয় বর্ষের পরীক্ষা স্থগিত করতে বাধ্য হয় কর্তৃপক্ষ।

গত বছরের ২ নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা চলাকালে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষের সময় চারুকলা ইনস্টিটিউটের প্রথম বর্ষের ছাত্র মোফাজ্জেলের রামদাতে শাণ দেওয়ার ছবি প্রকাশিত হয়। বিষয়টি প্রমাণিত হওয়ায় এখন থেকে পাঁচ মাস আগে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাঁকে এক বছরের জন্য বহিষ্কার করে। এ কারণে তিনি এবার দ্বিতীয় বর্ষের পরীক্ষা দেওয়ার অনুমতি পাননি।

চারুকলা ইনস্টিটিউট ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, ৪ এপ্রিল সকালে দ্বিতীয় বর্ষের ২০১ নম্বর কোর্সের তত্ত্বীয় পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু মোফাজ্জেল ছাত্রলীগের কিছু কর্মী এনে পরীক্ষার কক্ষ ২০৬ ও ৩০৬ নম্বরে তালা ঝুলিয়ে দেন। ফলে ইনস্টিটিউট কর্তৃপক্ষ অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে পরীক্ষা স্থগিত করে। পরে এ পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ করে আজকের দিন ধার্য করা হয়। আজ মোফাজ্জেল নিজে না এলেও ছাত্রলীগের ৪০-৫০ জন কর্মী পাঠান। তাঁরা সব কক্ষের দরজায় তালা এবং ওই সব তালায় সুপার গ্লু লাগিয়ে দেন। তাঁরা চারুকলার শিক্ষার্থীদেরও প্রবেশ করতে দেননি।

ছাত্রলীগের এই কর্মীরা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের একটি অংশ সিক্সটি নাইন পক্ষের এবং চট্টগ্রামের মেয়র আ জ ম নাছিরের অনুসারী বলে দাবি করছে।

চারুকলা ইনস্টিটিউটের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিতে এসে দেখেন, পরীক্ষার হলের দরজায় ছাত্রলীগের কর্মীদের দেওয়া তারা ঝুলছে। ছবি: জুয়েল শীলএ বিষয়ে সিক্সটি নাইন ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের স্থগিত কমিটির সভাপতি আলমগীর টিপু বলেন, ‘মোফাজ্জেলের এ বহিষ্কারাদেশ অবৈধ। অবৈধ বহিষ্কারাদেশের কারণে তিনি পরীক্ষা দিতে না পারলে চারুকলা ইনস্টিটিউটে দ্বিতীয় বর্ষের কোনো পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতে দেওয়া হবে না।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘পরীক্ষার প্রথম দিন পরীক্ষা দিতে এসে দেখি পরীক্ষার কক্ষে তালা দেওয়া। পরে পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। দ্বিতীয় দিন পরীক্ষা দিতে এসে দেখি একই চিত্র। এতে করে আমাদের প্রস্তুতির ধারাবাহিকতা বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। আমাদের পরীক্ষা প্রস্তুতির মানসিকতাও বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। রাজনীতির কারণে আমাদের পরীক্ষা স্থগিত হোক চাই না। আমরা চাই পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠিত হোক।’

চারুকলা ইনস্টিটিউটের পরিচালক নাসিমা আক্তার বলেন, ‘পরীক্ষা নেওয়ার জন্য অনেক দিন ধরে প্রক্রিয়া চলে। প্রক্রিয়া চলাকালে তারা কিছু বলেনি। হঠাৎ করে গত সোমবার পরীক্ষা চলার দিন থেকে তাঁরা পরীক্ষার কক্ষে তালা দেয়। আজকেও তারা একই কাজ করল। পরীক্ষা নেওয়ার চেষ্টা করেও নিতে না পেরে এ পরীক্ষাটিও স্থগিত করা হলো। পরবর্তী পরীক্ষা কবে অনুষ্ঠিত হবে, তা প্রশাসন সিদ্ধান্ত নেবে।’ তিনি আরও বলেন, প্রথম দিনের পরীক্ষায় ঝামেলা হওয়ায় প্রক্টরের কাছে পুলিশ ফোর্স চাওয়া হয়েছিল। প্রক্টর পুলিশ ফোর্স দিয়েছেন। কিন্তু পুলিশ জোরালো পদক্ষেপ নেয়নি।

এ ব্যাপারে চারুকলা ইনস্টিটিউটে দায়িত্বরত উপপরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম বলেন, এ ইনস্টিটিউটের শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য দুটি দল কাজ করছে। দুই পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করা হয়েছে। শান্তিপূর্ণ সমাধানের লক্ষ্যে কাজ চলছে।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, বহিষ্কৃত শিক্ষার্থী নিজে পরীক্ষা দিতে পারছে না বলে অন্যদের পরীক্ষা দিতে দিচ্ছে না। এটা অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। প্রক্টরিয়াল বডি সার্বিক ঘটনা জেনে যে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে, তা বাস্তবায়ন করা হবে।

এস/২০:৩৫/০৭ এপ্রিল

চট্টগ্রাম

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে