Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৪-০৭-২০১৬

ভারতের সংঘাতহীন রাজ্য কেরালা

ভারতের সংঘাতহীন রাজ্য কেরালা

কেরালা, ০৭ এপ্রিল- কেরালা ভারতের অন্যতম উন্নত রাজ্যগুলোর একটি। এই রাজ্যে নেই কোন ধর্মীয় ভেদবিভেদ। রাজ্যের মোট জনসংখ্যার ৩০ শতাংশ মুসলিম, ২০ শতাংশ খ্রিষ্টান এবং বাকি ৫০ শতাংশ হিন্দু। বিশেষত্ব হলো এখানে নেই কোন ধর্মীয় ও জাতিগত ভেদ। এখানে একজনের বিপদে অন্যজন সর্বদা সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়। এমনকি সে যদি অন্য ধর্মেরও হয় তাতেও কোন সমস্যা থাকে না কারো। এই রাজ্যের মন্ত্রীরাও জনগণের সেবায় সবসময় তাদের পাশে থাকেন। হয়তো ভাবছেন এমনও কি হওয়া সম্ভব, এতো আর রামরাজত্ব নয়। তাহলে একটি ছোট ঘটনা উদাহরণ হিসেবে দেয়া যেতে পারে।

২০১৫ সালের গ্রীষ্মের শেষের দিকের কথা। একজন ব্যাক্তি সমুদ্রতীরবর্তী অঞ্চল কোচিতে যাচ্ছিলেন। প্রচণ্ড গরমে থাকার কারণে তিনি রাস্তার মাঝে অসুস্থ হয়ে পড়েন। লোকটি ছিল খ্রিষ্টান। সেই রাস্তার পাশ দিয়ে যাওয়া আর একজন ভদ্রলোক অসুস্থ লোকটিকে নিজের গাড়িতে করে হাসপাতালে পৌছে দিলেন। তিনি ছিলেন হিন্দু। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর জানা যায় তার হৃদরোগে সমস্যা। আর এর জন্য প্রচুর অর্থ ব্যয় হবে।


এ কথা জনসম্মুখে আসার পর একজন মুসলিম ব্যবসায়ি নিজ উদ্যেগে তার চিকিৎসার জন্য একটি তহবিল গঠন করে যেখানে তার চিকিৎসার জন্য প্রচুর পরিমান অর্থ জমা হতে থাকে। আর শুনলে অবাক হবেন যে, রাজ্যের সেরা হার্ট সার্জন হলেন একজন খ্রীষ্টান ব্যাক্তি। তার কাছে নিয়ে যাওয়ার জন্য সেই রাজ্যের মন্ত্রী তার নিজ যাত্রা বাতিল করে ভারতীয় নৌ হেলিকপ্টার এবং একটি অ্যাম্বুলেন্স পাঠিয়ে দেন তার জন্য। পরে তাকে ত্রিভুবনেত্তপুরম থেকে কোচি নিয়ে যাওয়া হয়। এই ঘটনাই বর্তমান কেরালা রাজ্যের দৃষ্টান্ত। তবে এখানেই শেষ নয়।

কেরালা হলো ভারতের এমন একটি রাজ্য যেখানে কেউ দরিদ্র নয়। খুব বেশি ধনী না হলেও এখানে আর্থিক দিক দিয়ে সবার মাঝে সমতা আছে। কেরালাকে সে দেশের অধিবাসীরা ঈশ্বরের নিজের দেশও বলে থাকেন। আর ঈশ্বরের দেশে তো কোন ভোদাভেদ থাকতে পারে না এমনটিই মনে করেন তারা। কৃষিতে কেরালা রাজ্য বেশ সমৃদ্ধ। ষোলশ শতাব্দীর দিকে বিভিন্ন দেশ থেকে মানুষ এসে এই দেশে বাণিজ্য করতো। ইহুদি, খ্রিষ্টান, আরবরা বিভিন্ন সময় এই রাজ্যে এসে ব্যবসা করতো। তাদেরই বদৌলতে কেরালা আজ ব্যবসা বাণিজ্য সব দিক থেকে সমৃদ্ধ।


এই রাজ্যে ধর্মীয় দাঙ্গার কোনো ইতিহাস পাওয়া যায় না। রাজ্যের সংখ্যাগরিষ্ঠ হিন্দু হলেও মুসলমান এবং খ্রিষ্টনরাও সমান অধিকার পায়। কিন্তু যদি ইউরোপ এবং মধ্যপ্রাচ্যের দিকে তাকানো হয় তাহলে দেখা যায় ধর্ম বৈষম্যতার কারণেই নানারকম দুর্ঘটনা ঘটে থাকে। কেরালা রাজ্যের জনগণ তাদের মৌলিক অধিকারগুলো যথাযথ পাওয়ায় রাজ্যে শিক্ষিতের হার ৯৪ শতাংশ। এই রাজ্যে শিশু মৃত্যুর হার হাজারে বারো জন। আর এখানকার স্বাস্থ্যসেবাও অন্যান্য রাজ্য থেকেও বেশ উন্নত। গত বছরে কেরালা ভারতের প্রাথমিক শিক্ষার হার একশ শতাংশ নিশ্চিত করেছে। কেরালা এমন একটি রাজ্য যেখানে শিক্ষার দিকে থেকে পুরুষের চেয়ে নারীরা এগিয়ে আছে। এখানে নারীদের ক্ষমতায়নও অনেক বেশি।

কেরালা রাজ্যের সাফল্য সম্পর্কে দেশটির মুখ্যমন্ত্রীর চন্দ্রীর কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, ‘কেরালা এটি ভেদাভেদহীন রাজ্য আর তাই এখানে সফলতাও অনেক বেশি। এই রাজ্যে আমরা জনগণের সব রকম মৌলিক চাহিদা নিশ্চিত করেছি। আর এটাই কেরালার সাফল্যের মূল রহস্য। আপনি যখন একটি রাজ্যের জনগণকে শিক্ষা ও চিকিৎসায় সমৃদ্ধ রাখতে পারবেন তখন সেই রাজ্যের সাফল্য আর কেউ আটকাতে পারবে না। আর এটাই কেরালা রাজ্যের মূল বৈশিষ্ট্য।’ হানাহানি, যুদ্ধবিপর্যয় দেশগুলোর জন্য কেরালা একটি আদর্শ হতে পারে। যেখানে জাতি ধর্ম নির্বিশেষে সবাই সংঘাতহীন ভাবে বছরের পর বছর কাটিয়ে দিচ্ছে।

আর/১৮:২৫/০৭ এপ্রিল

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে