Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৪-০৫-২০১৬

মাটিতে রক্তের দাগ, বাড়িতে বাড়িতে কান্নার রোল

আলম দিদার


মাটিতে রক্তের দাগ, বাড়িতে বাড়িতে কান্নার রোল

চট্টগ্রাম, ০৫ এপ্রিল-  বাঁশখালী উপজেলার গণ্ডামারা ইউনিয়নের হাদীর পাড়া ও রহমানিয়া মাদরাসার মাঠের বিভিন্ন অংশে এখনো রয়ে গেছে ছোপ ছোপ রক্তের দাগ। গাছে গুলির চিহ্ন। আর বাড়িতে বাড়িতে কান্নার রোল। কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর মিছিলে গুলিতে ৪ জন নিহতের পর আজ আবারো বিক্ষোভ করে গ্রামবাসী। ‘বিদ্যুৎকেন্দ্র হবে না, হবে না’ স্লোগানে প্রকম্পিত হচ্ছে ওই এলাকায়। এতে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

হাদীর পাড়া ও রহমানিয়া মাদরাসার মাঠ এলাকায় সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, বিক্ষিপ্তভাবে পড়ে রয়েছে পুলিশি হামলায় ভেঙে দেয়া ‘বসত ভিটা ও কবরস্থান রক্ষা কমিটি’র মাইক ও সিএনজি অটোরিকশা। মাঠের বিভিন্ন অংশে ছোপ ছোপ রক্তের দাগ। রহমানিয়া মাদরাসার দেয়ালে ও আশপাশের বিভিন্ন গাছে রয়েছে গুলির চিহ্ন। এ নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে রয়েছে ক্ষোভ। বাড়িতে বাড়িতে কান্নার রোল এখনো শোনা যাচ্ছে। সংঘর্ষে আহতদের অনেকেই মামলা ও গ্রেপ্তারের ভয়ে নিজ ঘরেই চিকিৎসা নিচ্ছেন। পুলিশের ছোড়া ছররা গুলিতে আহত হয়েছেন অনেক এলাকাবাসী।


সংঘর্ষস্থল হাদীরপাড়া স্কুল মাঠের পাশে চায়ের দোকানে খবর জানতে উৎসুক জনতার ভিড়

এছাড়া গতকাল রাত থেকে গণ্ডামারা ইউনিয়নের বিভিন্ন প্রবেশ পথে পাহারা বসিয়েছেন গ্রামবাসী। বিদ্যুৎকেন্দ্র লোক নয় এমনটা নিশ্চিত হয়েই যাতায়াতকারীদের গ্রামে প্রবেশ করতে দিচ্ছেন তারা।

সোমবার সকাল থেকে গণ্ডামারা হাদীর পাড়া ও রহমানিয়া মাদরাসা মাঠ এলাকায় সমবেত হতে শুরু করে এলাকাবাসী। সমাবেশ থেকে এস আলম গ্রুপের কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র বিরোধী নানা স্লোগান দিচ্ছেন তারা। ‘বিদ্যুৎকেন্দ্র হবে না, হবে না’, ‘আমার ভাই মরলো কেন প্রশাসন জবাব চাই’, ‘নাসিরের দালালেরা হুঁশিয়ার সাবধান’ ‘ভিটে-বাড়ি ছাড়বো না, বিদ্যুৎকেন্দ্র হবে না’ স্লোগানে প্রকম্পিত হচ্ছে আশপাশের এলাকা। এতে অংশ নিয়েছেন হাজার হাজার গ্রামবাসী।


ছররা গুলিতে আহত এলাকাবাসী

সকালে ‘বসতভিটা ও কবরস্থান রক্ষা কমিটি’র আহ্বায়ক ও সাবেক চেয়ারম্যান লিয়াকত আলীর সভাপতিত্বে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে বক্তারা বলেন, পরিকল্পিতভাবে পুলিশ জনগণের উপর গুলি চালিয়ে চার গ্রামবাসীকে হত্যা করেছে। কিন্তু প্রয়োজন হলে জনগণ আরো রক্ত দেবে, কিন্তু বিদ্যুৎকেন্দ্র হতে দেয়া হবে না। নিহতদের রক্ত বৃথা যেতে পারে না।

উল্লেখ্য, সোমবার বিকেলে বাঁশখালী উপজেলার গণ্ডামারা ইউনিয়নে এস আলম গ্রুপের কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর বিক্ষোভ মিছিলে গুলির ঘটনা ঘটে।  এতে নিহতের বিষয়টি প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে চারজন নিহত হওয়ার খবর নিশ্চিত করে প্রশাসন।

এস/১৮:০৫/০৫ এপ্রিল

চট্টগ্রাম

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে