Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 2.9/5 (31 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৪-০১-২০১৬

দৌলতপুরে হামলা কারচুপি, ভেড়ামারায় শান্তিপূর্ণ ভোট

মামুনুর রশীদ ও তৌহিদী হাসান


দৌলতপুরে হামলা কারচুপি, ভেড়ামারায় শান্তিপূর্ণ ভোট

কুষ্টিয়া, ০১ এপ্রিল- একটি কেন্দ্রে ভোটারদের ওপর হামলা, কয়েকটিতে গোলযোগ আর কারচুপির অভিযোগের মধ্য দিয়ে মোটামুটি শান্তিপূর্ণভাবে গতকাল বৃহস্পতিবার কুষ্টিয়ার দুই উপজেলার ২০টি ইউনিয়নে ভোট সম্পন্ন হয়েছে।

দৌলতপুরের ১৪টি ও ভেড়ামারার ৬টি ইউনিয়নে সকাল ৮টা থেকেই ভোট গ্রহণ শুরু হয়। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে দৌলতপুরের খলিশাকুণ্ডি ইউনিয়নের জাসদ মনোনীত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সাবের আলী সরকারদলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে ভোট কারচুপির অভিযোগ এনে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন।

অধিক ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত দৌলতপুরের আড়িয়া ইউনিয়নের আড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট শুরুর ২০ মিনিটের মধ্যে লাইনে দাঁড়ানো ভোটারদের ওপর হামলা চালানো হয়। পাশের পিয়ারপুর ইউনিয়নের শেরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে আড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে যাওয়ার পথে দ্রুত পলায়নপর কয়েকজন ভোটার এ হামলার কথা জানান। কিছুক্ষণের মধ্যে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে কর্তব্যরত প্রিসাইডিং কর্মকর্তা মো. আমজাদ হোসেনকে মুঠোফোনে বলতে শোনা যায়, ‘স্যার, আগে আমাদের বাঁচান। আমি ভোট নিতে পারব না।’

সেখানে কর্তব্যরত পুলিশের উপপরিদর্শক মোকাররম হোসেন বলেন, ‘অনেক মানুষের উপস্থিতিতে ভোট গ্রহণ সুষ্ঠুভাবেই হচ্ছিল। এর মধ্যে কেন্দ্রের চারপাশ থেকে কয়েক শ লোক লাঠিসোঁটা নিয়ে ভোটারদের ওপর হামলা চালায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আমরা তিন রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়েছি।’

এই হামলার জন্য সেখানে উপস্থিত সরকারদলীয় ও দলটির বিদ্রোহী চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীর কর্মী-সমর্থকেরা পরস্পরকে দোষারোপ করেন। হামলার মুখে পালিয়ে যাওয়া এক নারী ভোটার আবার সেখানে ফিরে এসে বলেন, ‘ওরা (হামলাকারীরা) কচ্ছিল নৌকায় ভোট দিলি এখানে আসপা, নাহলি আসপা না।’

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে সেই মুহূর্তে ঘটনাস্থলে উপস্থিত সরকারদলীয় চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সাইদ আনসারি প্রথমে রেগে যান। পরে তিনি বলেন, ‘আমি ঘটনা শুনেই এখানে এসেছি। কে বা কারা হামলা করেছে এখনো জানি না।’ আর বিদ্রোহী প্রার্থী তারিক আল মামুন চার-পাঁচটা কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ-সমর্থিত লোকজনের বিরুদ্ধে ভোট জালিয়াতির অভিযোগ তোলেন।

এরপর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খোদেজা খাতুনের উপস্থিতিতে কেন্দ্রে বিজিবি মোতায়েনের পর সকাল ৯টা ৫ মিনিটে পুনরায় ভোট গ্রহণ শুরু হয়।

দৌলতপুরের কয়েকটি ইউনিয়নের অন্তত ১২টি কেন্দ্র ঘুরে ভোটারদের স্বতঃস্ফূর্ত উপস্থিতি দেখা গেছে। নারী ভোটারদের উপস্থিতি ছিল লক্ষণীয়। একটি বাদে সব কেন্দ্রেই বিএনপিসহ অন্যান্য দলীয় প্রার্থীদের এজেন্টরা উপস্থিত ছিলেন। দৌলতপুরের ১৪ ইউনিয়নের সবগুলোতেই আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আছেন। মাঠে বিদ্রোহী প্রার্থীদের সরব দেখা গেলেও বিএনপির প্রার্থীদের তেমন কোনো তৎপরতাই চোখে পড়েনি।
তবে ভেড়ামারার ছয় ইউনিয়নে সুষ্ঠুভাবেই ভোট গ্রহণ শেষ হয়েছে।

নির্বাচনের বিষয়ে কুষ্টিয়া জেলা বিএনপির সভাপতি সৈয়দ মেহেদী আহমেদ অভিযোগ করে বলেন, ‘নির্বাচনের নামে এটি প্রহসন। এটি কোনো নির্বাচনই না। আমাদের প্রার্থী-সমর্থক-কর্মীদের মাঠেই নামতে দেওয়া হয়নি।’ আর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজগর আলীর ভাষ্য হচ্ছে, প্রশাসনিক কঠোরতায় অত্যন্ত সুশৃঙ্খলভাবে ভোট গ্রহণ হয়েছে। এখানে প্রশ্ন তোলার কোনো সুযোগ নেই।

এস/১৫:২৫/০১ এপ্রিল

কুষ্টিয়া

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে