Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৪-০১-২০১৬

সন্দ্বীপে গুলিতে নিহত ২

একরামুল হক


সন্দ্বীপে গুলিতে নিহত ২

চট্টগ্রাম, ০১ এপ্রিল- ভোট গ্রহণ শেষ হওয়ার আধা ঘণ্টা আগে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে চট্টগ্রামের সন্দ্বীপের বাউরিয়া ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের একটি কেন্দ্রে গুলিতে দুজন নিহত হয়েছেন। ভোটকেন্দ্র দখল করা নিয়ে সংঘর্ষের সময় এ ঘটনা ঘটেছে। এতে আহত হয়েছেন পুলিশের এক সদস্যসহ আরও দুজন। 

তবে সংঘর্ষের ঘটনা নিয়ে পুলিশ ও স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলে পরস্পরবিরোধী তথ্য পাওয়া গেছে। পুলিশ বলছে, বাউরিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকেরা কেন্দ্র দখলের চেষ্টা করেন। এ সময় গুলির ঘটনা ঘটে। অন্যদিকে স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কেন্দ্র দখল নিয়ে দুজন সদস্য পদপ্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষের সময় গুলিতে দুজন নিহত হয়েছেন। 

নিহত দুজন হলেন বাউরিয়া ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা মো. সানাউল্লাহ (৪২) ও মোহাম্মদ ইব্রাহিম (৪০)। দুজনের লাশ গতকাল বিকেলে সন্দ্বীপ থানা ভবনে নিয়ে আসা হয়। গুলিবিদ্ধ মোহাম্মদ জামাল (৩৫) ও পুলিশ কনস্টেবল আল আমিনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সন্দ্বীপ থেকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। 

নিহত সানাউল্লাহ চট্টগ্রাম নগরের জিইসি এলাকার একটি প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী ছিলেন। নিহত মোহাম্মদ ইব্রাহিম দিনমজুর। গুরুতর আহত জামাল ঠেলাগাড়ির চালক। 

সন্দ্বীপ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুস সালাম বলেন, আনারস প্রতীকের (বিদ্রোহী প্রার্থী ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক জিল্লুর রহমান) লোকজন চর বাউরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র দখলের চেষ্টা করেন। হামলাকারীরা কেন্দ্রের পেছনের দিক দিয়ে গুলি ছুড়ে ভেতরে যাওয়ার চেষ্টা করেন। এ কারণে হতাহতের ঘটনা ঘটে। 

তবে সরেজমিন ঘুরে এবং প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গতকাল বেলা সাড়ে তিনটার দিকে চর বাউরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের দক্ষিণ দিক থেকে কয়েকজন যুবক গুলি ছুড়তে ছুড়তে কেন্দ্রের ভেতরে প্রবেশের চেষ্টা করেন। এ সময় বিদ্যালয় মাঠে ছিলেন সানাউল্লাহ। তাঁর পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন ইব্রাহিম ও জামাল। 

গুলিতে তিনজনই মাঠে লুটিয়ে পড়েন। সানাউল্লাহ ও ইব্রাহিমকে হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসকেরা মৃত ঘোষণা করেন। 

৫ নম্বর ওয়ার্ডে সদস্য পদপ্রার্থী মো. বেলাল উদ্দিন (বেসরকারিভাবে নির্বাচিত) অভিযোগ করেন, হামলাকারীরা ফুটবল (সদস্য প্রার্থী মো. কাওছার আলম) এবং আনারস (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জিল্লুর রহমান) প্রতীকের প্রার্থীদের লোক। ওদের গুলিতে দুজন ঘটনাস্থলে মারা যান। আরেকজনের অবস্থা গুরুতর। 

প্রত্যক্ষদর্শী যুবক মোহাম্মদ রিয়াদ বলেন, ‘হঠাৎ গুলির শব্দের মধ্যে মানুষের দৌড়াদৌড়ি শুরু হয়। পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। কিছুক্ষণ পর মাঠে তিনজনকে রক্তাক্ত পড়ে থাকতে দেখি।’ 

রিয়াদ বলেন, সদস্য পদপ্রার্থী আবুল কালাম আজাদ ও মো. কাওছার আলমের সমর্থকদের মধ্যে দিনভর উত্তেজনা ছিল। তাঁদের কারণেই বিকেলের দিকে হামলার ঘটনা ঘটে। তিনি বলেন, ‘নিহত সানাউল্লাহ তাঁর চাচাতো ভাই বেলাল উদ্দিনকে এবং চেয়ারম্যান পদে জিল্লুর রহমানকে সমর্থন দিয়েছিলেন। তবে কোনো রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন না।’ 

জানতে চাইলে সন্দ্বীপের সাংসদ মাহফুজুর রহমান মুঠোফোনে বলেন, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর লোকজন কেন্দ্রে হামলা চালিয়েছেন, এটি সত্য নয়। দুজন সদস্য পদপ্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের সময় হতাহতের ঘটনা ঘটেছে।

গতকাল রাতে বাউরিয়ায় সানাউল্লাহর বাড়িতে গিয়ে কথা হয় তাঁর স্ত্রী জেসমিন আক্তারের সঙ্গে। কাঁদতে কাঁদতে তিনি বলেন, বুধবার সন্ধ্যায় বাড়িতে এলেন আর বৃহস্পতিবার বিকেলে চিরতরে চলে গেলেন তিনি (সানাউল্লাহ)। 

সানাউল্লাহর ভাই মো. আহসান উল্লাহ বলেন, তাঁর ভাইয়ের তিন সন্তান রয়েছে। ওদের ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। তাঁর বড় মেয়ে স্কুলে ভালো ফলাফল করছে। মেয়ের পড়াশোনারও কী হবে, এই ভেবে কূল পাচ্ছেন না তাঁরা। 
নিহত সানাউল্লাহ ও ইব্রাহিমের বাড়ি পাশাপাশি। ইব্রাহিমের স্ত্রী হোসনে আরা বলেন, তাঁর স্বামীর কোনো ঘর নেই। মামার ঘরেই আশ্রয় নিয়েছেন তাঁরা। 

কেন্দ্রে হামলার ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে বলে জানান চট্টগ্রামের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ।

এস/১৫:/০১ এপ্রিল

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে