Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 1.3/5 (4 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৩-২৯-২০১৬

চাকরির বাজারে মন্দায় চীনা প্রতিষ্ঠানগুলো

মোস্তফা মিনহাজ উদ্দিন


চাকরির বাজারে মন্দায় চীনা প্রতিষ্ঠানগুলো

বেইজিং, ২৯ মার্চ- অর্থনৈতিক উন্নতির ধীর গতির কারণে চীনা প্রতিষ্ঠানগুলো চাকরিতে নতুন লোক নেওয়া কমিয়ে দিয়েছে।

ইতোমধ্যে দেশটির ঋণ বোঝাই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের ঋণ নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে এবং খরচ কমিয়ে ফেলছে বলে জানিয়েছে সিএনএন। এর ফলে তারা কর্মী নেওয়া কমিয়ে দিয়েছে বলে জানা গেছে চায়না বেইজ বুক-এর একটি গবেষণায়। এই গবেষণায় প্রায় ২২০০টি চীনা প্রতিষ্ঠানের উপর জরিপ চালানো হয়।

গবেষণায় আরও বলা হয়, চীনা প্রতিষ্ঠানগুলো চাকরিতে নিয়োগ বিমুখ হয়ে উঠছে। এই বছরের প্রথমভাগে চাকরির বাজারে ‘খরা’ আঘাত হানবে বলেও সতর্ক করেছেন গবেষকরা।

জরিপে দেখা গেছে, প্রতিষ্ঠানগুলোর ১৫ শতাংশ প্রথমভাগে কর্মী ছাটাই করেছে, আর ২৩ শতাংশ কর্মী সংখ্যা বাড়াচ্ছে। একই সময়ে ২০১৫ সালের তুলনায় কর্মী বাড়ানোর সংখ্যাটা ৯ শতাংশ কম।

গবেষকরা জানিয়েছেন, এরকম পরিস্থিতি সামাল দিতে চীনা সরকার কোনো পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হতে পারে।

বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকেও দেখা গেছে নিয়োগের দৃষ্টিভঙ্গি একইরকম ভয়াবহ। জরিপের ভাষ্যমতে, ১৪ শতাংশ প্রতিষ্ঠান আরও ছাটাই আশা করছে, আর ২৮ শতাংশ নিয়োগ দিচ্ছে। এক্ষেত্রে নিয়োগের সংখ্যাটা ২০১৫ সালের তুলনায় ১০ শতাংশ কম।

ফেব্রুয়ারিতে, বেইজিং জানিয়েছে, তারা কয়লা ও ইস্পাত শিল্প থেকে প্রায় ১৮ লাখ কর্মী ছাটাই করার পরিকল্পনা করেছে। এরকম পদক্ষেপ 'অদক্ষতার জন্য পরিচিত' রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানগুলোকে আঘাত করবে। আইএইচএস ইনসাইট (IHS Insight) এর মতে, এই ছাটাই সিদ্ধান্তের ২০ শতাংশ কয়লা শিল্পে এবং ১১ শতাংশ চীনের ইস্পাত শিল্পে প্রয়োগ করা হবে।

চীন গত ২৫ বছরের মধ্যে সবচেয়ে ধীর গতির বার্ষিক প্রবৃদ্ধি অতিক্রম করছে। অনেক অর্থনীতিবিদ এই বছরে চীনের অর্থনীতিতে একঘেয়েমির পূর্বাভাস দিয়েছেন।  রপ্তানি এবং বড় বিনিয়োগের ব্যয়ের উপর বেইজিংয়ের অধিক নির্ভরতাই অর্থনীতির এরকম ধীরগতির কারণ বলে মত দিয়েছেন তারা।

বছরের প্রথম কয়েক মাসের তথ্য বিশ্লেষণ করে অর্থনৈতিক বৃদ্ধির ধীর গতি লক্ষ্য করা গেছে। সরকারী পরিসখ্যান অনুযায়ী, কারখানাগুলায় কার্যক্রম বিগত পাঁচ বছরের চেয়ে কম হয়েছে এবং ফেব্রুয়ারি মাসে রপ্তানি ২০১৫ সালের ওই সময়ের চেয়ে ২০ শতাংশ কমে গেছে।

মার্কিন যুক্ত্রাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ-এর বেইজ বুকের পর নিউ ইয়র্কভিত্তিক চায়না বেইজ বুক ২০১২ সাল থেকে নিজেরা চীনে ত্রৈমাসিক জরিপ করে আসছে। এই সপ্তাহে প্রকাশিত এই তথ্যগুলো বছরের প্রথম প্রান্তিকের একটি প্রাথমিক বর্ণনা।

চলতি মাসে রয়টার্সের খবরে জানা যায়, উন্নত প্রযুক্তিতে শীর্ষ অবস্থানে যেতে চায় চীন। আর সে লক্ষ্যেই পরবর্তী প্রজন্মের চিপ, রোবোটিক্স, এভিয়েশন এবং স্যাটেলাইট প্রযুক্তিকে আরও বেশি উন্নত করতে যাচ্ছে দেশটি। ২০১৬ থেকে ২০২০ সালের মধ্যে দেশটির উন্নতির নকশা এমনটাই বলে জানায় চীন সরকার।

চলতি বছরের ৪ মার্চ ৫ বছরের উন্নয়নের নতুন পরিকল্পনা উন্মোচন করে দেশটি। নতুন ওই পরিকল্পনা অনুযায়ী তাদের লক্ষ্য হল ইন্টারনেট ব্যবহার করে ধীরগতির অর্থনীতিকে সচল করা এবং দেশকে সাইবার ক্ষমতাসম্পন্ন করা।

এই ৫ বছরের মধ্যে ২.৫ শতাংশ জিডিপি বাড়াতে গবেষণা এবং উন্নয়নে ব্যয় বাড়ানোর লক্ষ্য নিয়েই এগোচ্ছে দেশটি। ২০১১ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে চীনের জিডিপি ছিল ২.১ শত্রাংশ।

আর/১১:৫৫/২৯ মার্চ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে