Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 1.5/5 (6 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৩-২৪-২০১৬

ডাক্তারের ভুলে না ফেরার দেশে জারা

ডাক্তারের ভুলে না ফেরার দেশে জারা

ডাক্তারদের অবহেলা ও অনিয়ম শুধু বাংলাদেশেই দেখা যায় তা কিন্তু নয়। বিশ্বের সব দেশে কম বেশি এই অভিযোগ সবার। এমন কি এই তালিকা থেকে বাদ পড়ছেনা বিশ্বের সবচেয়ে উন্নত দেশ যুক্তরাজ্য। এই দেশেরই একটি সনামধন্য হাসপাতাল কিং জর্জ। সম্প্রতি ১৩ মাসের একটি শিশুকে ঠিকমতো পরীক্ষা না করে সে সুস্থ্য বলে ছেড়ে দেয়া হয় হাসপাতাল থেকে। এরপর বাসায় নেয়ার পাঁচ ঘণ্টা পড়েই মৃত্যু হয় শিশুটির।

তের মাসের ওই শিশুটির নাম জারা আলম। অসুস্থ হলে তাকে নিয়ে তার মা লন্ডনের কিং জর্জ হাসপাতালে ভর্তি হন। জারার গায়ে তাপমাত্রা ছিল অসহনীয় মাত্রায় বেশি। হাসপাতালে ভর্তি হবার পর ডাক্তাররা তাকে কিছু সাধারণ পরীক্ষা নীরিক্ষা দেয় এবং ভাইরাস জ্বরের কারণে এমনটি হতে পার বলে তার মাকে জানায়। তবে জারার গায়ের তাপমাত্রা বৃদ্ধি যে শুধু মাত্র জ্বরের কারণে নয় এটা বুঝতে কর্তব্যরত ডাক্তাররা অনেক দেরি করে ফেলে ততক্ষনে ওই শিশুটি চলে যায় না ফেরার দেশে। তাহলে যদি জ্বর না হয়ে থাকে তাহলে কি হয়েছিল জারার।


জারার মা জানায়, তার মেয়ের শরীরের তাপমাত্রা সবসময় স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি থাকতো। তবে তার সারা শরীর উত্তপ্ত থাকলেও তার হাত এবং পা বরফের মতো ঠাণ্ডা থাকতো। প্রথমে তিনিও এটিকে স্বাভাবিক জ্বর বলেই ধরে নেয়। কিন্তু জ্বর হলে তা তিন দিনের বেশিতো থাকার কথা নয়। ব্যপারটা জটিল মনে হলে তিনি জারাকে হাসপাতালে নিয়ে যান। হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তাররাও একে স্বাভাবিক জ্বর ভেবেই কিছু সাধারণ পরীক্ষা করে হাসপাতাল থেকে বিদায় দিয়ে দেয়। বাসায় আনার পাঁচ ঘণ্টা যেতে না যেতেই জারার সারা গা ঠণ্ডা হয়ে যায় এবং সে কোনরকম অনুভূতিও প্রকাশ করে না।

মেয়ের এমন অবস্থা দেখে তাকে আবারো কাছের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তারা জারাকে ততক্ষনে মৃত ঘোষনা করে। তারা জানায় প্রায় পাঁচ ঘণ্টা আগেই তার মেয়ের মৃত্যু হয়েছে। পরে তার মায়ের মুখ থেকে সব কথা শুনে তারা জারার আরো কিছু পরীক্ষা করায় তাতে ধরা পড়ে জারার রোগটি স্বাভাবিক জ্বর নয় মূলতো অন্যকিছু ছিল।

তের মাসের জারা বেশকিছুদিন যাবৎ মেনিনজাইটিস নামক রোগে ভুগছিলেন। মেনিনজাইটিস নানারকম হয়ে থাকে। তবে একবছরের নীচে শিশুদের সাধারণক মেনিনজাইটিস বি হয়ে থাকে। এটি একটি ব্যাকটেরিয়াল সংক্রমন জাতীয় রোগ। এই রোগে আক্রান্ত শিশুদের গা প্রচণ্ড গরম থাকলেও হাত এবং পা থাকে ঠাণ্ডা। তাদের স্মৃতি মাঝে মাঝে এলোমেলো হয়ে যায়। সেই সঙ্গে বমি এবং প্রচণ্ড পরিমানে মাথা ব্যাথা থাকে। যদি রোগটি সনাক্ত করার পর পরই দ্রুত অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে চিকিৎসা দেয়া হয় তাহলে এই রোগ থেকে আরোগ্য লাভ সম্ভব।

পরে এই ঘটনার জন্য কিং জর্জ হাসপাতালের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হলে তারা তাদের ওপর আনা সকল অভিযোগ নাকোচ করে দেয়। তাদেরই একজন কর্তব্যরত ডাক্তার বলেন, ‘ আমরা সঠিক সময়ে সঠিক পরীক্ষাগুলোই করিয়েছি এরপরও যা হয়েছে তার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখিত। আমরা শিশুটির জন্য শোকাহত। আর এমন ঘটনার যেন পুনরাবৃত্তি না হয় সেদিকেও আমরা খেয়াল রাখবো।’ এদিকে জারার মা এ ব্যপারে বলেন, ‘ আমার চার বছরের ফুটফুটে সন্তানটি সামান্য অবহেলার কারণে পৃথিবী ছেড়ে চলে গেল এমন যেন আর কোন মায়ের সঙ্গে না হয় তার জন্য এখনই ব্যবস্থা নিতে হবে।’  


যুক্তরাজ্যে প্রতিবছর এই রোগে এক হাজারেরও বেশি শিশু আক্রান্ত হয়। এই ব্যাপারে ২০১৪ সালে যুক্তরাজ্যের হেলথ এশোসিয়েসনের পক্ষ থেকে একটি কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিতে দেশটির নামকরা বিশেষজ্ঞরা অংশগ্রহন করে। তারা এই রোগের জন্য একটি প্রতিষেধক টিকা আবিষ্কার করেন। যার নাম দেয়া হয় মেনিনজাইটিন বি ভ্যাকসিন। সাধারণত দুই মাস বয়সে শিশুকে এই ভ্যাকসিন দেয়ার পরামর্শ দেয় ডাক্তাররা।

কমিটির পক্ষ থেকে ওই ভ্যাকসিনটি সম্পর্কে সবাইকে পরিচয় করিয়ে দিতে ব্যাপক প্রচারণা চালানো হয়। প্রচারণায় বলা হয় এই ভ্যাকসিনটি দিতে যা খরচ হবে তা অতি নূন্যতম। আর প্রথমদিকে বিনে পয়সায়ই এই ভ্যাকসিন প্রদান করা হয় চার মাস থেকে শুরু করে বারো মাসের শিশুদের মধ্যে। সাধারণত পাঁচ থেকে ছয় মাস বয়সেই শিশুরা এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভবনা বেশি থাকে।

আর/১৮:০৮/২৪ মার্চ

জানা-অজানা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে