Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৩-২২-২০১৬

পানি–সংকটে সিলেট নগরবাসী

সুমনকুমার দাশ


পানি–সংকটে সিলেট নগরবাসী

সিলেট, ২২ মার্চ- সকাল আটটা। তখনো সিলেট সিটি করপোরেশনের পানির সংযোগে সরবরাহ শুরু হয়নি। তাই রান্নাবান্নার কাজও শুরু হয়নি। নয়টায়ও দেখা মেলেনি পানির। তাই গোসল না সেরেই কর্মস্থলের উদ্দেশে রওনা দিলেন গৃহকর্তা মইনুল হক। সাড়ে ১০টায় একটু একটু করে পানি আসতে থাকে। এরপর রান্নার কাজ শুরু করতে হয়েছে।

রায়নগর এলাকার গৃহবধূ আমেনা খাতুন সিলেট নগরের পানি-সংকটের বিষয়ে গতকাল সোমবার সকালে এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, প্রায়ই পানির অভাবে তাঁদের নাকাল হতে হয়। পানির সংকটে প্রকৃতির ডাকে সাড়া না দিয়েই তাঁর দুই ছেলেমেয়েকে যেতে হয় বিদ্যালয়ে। তাই তিনি অন্য এলাকায় চলে যাওয়ার কথা ভাবছেন।

সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত নগরের বেশ কয়েকটি এলাকায় সরেজমিনে ঘুরে প্রায় একই চিত্র দেখা গেছে। এর মধ্যে রায়নগর, সুবিদবাজার, ছড়ারপাড়, রাজারগলি, উপশহর, টিলাগড় ও সবুজবাগ এলাকায় পানির তীব্র সংকট রয়েছে বলে সেখানকার ২৩ জন বাসিন্দা জানিয়েছেন।

সিটি করপোরেশনের পানি শাখার এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, নগরে প্রতিদিন পানির চাহিদা আট কোটি লিটার। এর মধ্যে সিটি করপোরেশন সরবরাহ করে থাকে মাত্র সাড়ে তিন কোটি লিটার। এ পানি ৩৭টি নলকূপের মাধ্যমে সুরমা নদী থেকে উত্তোলন করা হয়। এসব নলকূপের মধ্যে ২০টি আবার অতি পুরোনো। তাই প্রায়ই বিকল হয়ে পড়ে। এতে পানি সরবরাহ ব্যাহত হয়।

নগরের সুবিদবাজার এলাকার বাসিন্দা কিসমত আলী বলেন, সকাল ও বিকেলে সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষের পানি সরবরাহ করার কথা। কিন্তু সেই নিয়ম মানা হয় না। আবার যখন পানি সরবরাহ করা হয়, তখন বেগও খুব বেশি থাকে না।
মাছিমপুর এলাকার গৃহকর্মী খায়রুন্নেসা বলেন, তাঁদের এলাকায় পানির তীব্র সংকট রয়েছে। একই এলাকার ফারুক আহমদ নামের এক সমাজহিতৈষী ব্যক্তি প্রতিদিন বিকেলের দিকে তাঁর ব্যক্তিগত উদ্যোগে গভীর নলকূপ থেকে স্থানীয়দের পানি সরবরাহ করেন। এতে পানির সংকট কিছুটা হলেও দূর হয়েছে।

সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত প্রধান প্রকৌশলী নূর আজিজুর রহমান বলেন, নগরবাসীর পানির চাহিদা পূরণের জন্য জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর ১৩২ কোটি টাকা ব্যয়ে সিলেট নগরে একটি ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট নির্মাণ করছে। কাজটি প্রায় শেষের পথে। এটি চালু হলে নগরে দৈনিক আরও ২ কোটি ৮০ লাখ লিটার পানি সরবরাহ করা সম্ভব হবে।

সিলেট নগর উত্তর ও দক্ষিণ—এই দুই অংশে বিভক্ত। ২০০১ সালে সিলেট পৌরসভা সিটি করপোরেশনে উন্নীত হওয়ার পর দক্ষিণ অংশের ২৫, ২৬ ও ২৭ নম্বর—এই তিনটি ওয়ার্ড নতুন করে যুক্ত হয়। তবে এই তিন ওয়ার্ডে এখন পর্যন্ত পানি সরবরাহ করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। এসব ওয়ার্ডে কর্তৃপক্ষ কেবল ৫০টির মতো গভীর নলকূপ স্থাপন করেছে। এর বাইরে ব্যক্তি উদ্যোগে অগভীর নলকূপ স্থাপনের পাশাপাশি পাশের সুরমা নদী থেকে পানি উত্তোলন করে নিজেদের প্রয়োজন মেটাচ্ছেন সেখানকার বাসিন্দারা।

সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবীব বলেন, নগরবাসীর চাহিদামতো সিটি করপোরেশন পানি সরবরাহ করতে পারছে না, এটা সত্য। তবে একটি প্রকল্পের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে, এটি শেষ হলে নগরের দক্ষিণ অংশের পানির সমস্যা অনেকটাই দূর হবে। এ ছাড়া উত্তর অংশের পানির সমস্যা দূর করতেও কার্যকর উদ্যোগ নেওয়া হবে।

এস/১৩:১৫/২২ মার্চ

সিলেট

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে