Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৩-২০-২০১৬

বিএনপিতে বেঈমান আছে, স্বীকার খালেদার

বিএনপিতে বেঈমান আছে, স্বীকার খালেদার

ঢাকা, ২০ মার্চ- বিএনপিতে বেঈমান, মীর জাফর আছে- এটা স্বীকার করে তাদের কারণে আন্দোলন সফল হয় না বলে জানিয়েছেন দলটির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। তবে তাদের নাম উল্লেখ করেননি তিনি। শনিবার রাতে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে বিএনপির ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলের দ্বিতীয় অধিবেশনে সমাপনী বক্তব্যে এ কথা জানান বেগম জিয়া।

খালেদা জিয়ার সভাপতিত্বে বিকেল ৫টায় শুরু হওয়া কর্ম অধিবেশনটি চলে টানা পাঁচ ঘণ্টা। মিলনায়তনে তিন হাজার কাউন্সিলরের জায়গা না হওয়ায় মিলনায়তনের বাইরেও তা সম্প্রসারণ করা হয়। সেখানে বড় পর্দার মাধ্যমে মিলনায়তনের ভেতরের অনুষ্ঠান দেখানো হয়। এর আগে, সকালে বেলুন ও শান্তির প্রতীক কবুতর উড়িয়ে অধিবেশনের উদ্বোধন করেন তিনি।

ঢাকার নেতাদের ব্যর্থতায় বিএনপির আন্দোলন সফল হয়নি জানিয়ে খালেদা জিয়া বলেন, ‘জেলা-উপজেলায় ব্যাপকভাবে আন্দোলন হয়েছে। অথচ ঢাকায় সেই তুলনায় কিছুই হয়নি। এই ব্যর্থতা স্বীকার করছি। ঢাকায় আন্দোলন হলে পরিস্থিতি অন্যরকম হতে পারতো।’  

দলে যোগ্য ও পরীক্ষিতদের জায়গা দেয়া হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এক-এগারোর সময় কিছু বেঈমান বিএনপিতে ঢুকেছিল। এখনো বিএনপিতে বেঈমান, মীর জাফর আছে- এটা স্বীকার করতে হবে। তাদের কারণে আন্দোলন সফল হয় না। আন্দোলন যখন তুঙ্গে ওঠে তখন তারা বেঈমানি করে আন্দোলন ফলপ্রসূ হতে দেয় না।’

এ প্রসঙ্গে তৃণমূল নেতাদের উদ্দেশ্যে খালেদা জিয়া বলেন, ‘কমিটিতে বেঈমানদের রাখবেন না, এদের বাদ দেবেন। বেঈমান-মীর জাফরদের বাদ দিলে দলের কোনো ক্ষতি হবে না। অনেকে বিএনপিতে আসতে চায়। সুতরাং লোকের অভাব হবে না।’ বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ হ্যাক হয়নি, চুরি হয়েছে। কারা এর সঙ্গে জড়িত, তা পত্রিকায় লিখলে গুম করে ফেলা হবে। তাই তারা রাঘব-বোয়াল লিখছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘সোশ্যাল মিডিয়াতে অনেক কিছু বের হয়েছে। আপনারা সেটা জানেন, পড়েছেন। আপনারা জানেন, কে এর সঙ্গে জড়িত। সে জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আতিউর রহমান, হাসিনাকে অবহিতও করেছেন। কিন্তু হাসিনা এর বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেননি।’

বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর বাধ্য হয়ে পদত্যাগ করেছেন এবং তাকে বলির পাঠা বানানো হয়েছে- এমন দাবি করে খালেদা জিয়া বলেন, ‘তিনি (প্রধানমন্ত্রী) কেঁদেছেন। কেঁদেছেন এ কারণে যে, ছেলে অপকর্ম করবে, আর তার দায়ভার আরেকজনের ওপর দিয়ে বলির পাঠা বানানো হবে, তাই চোখের পানি আসা স্বাভাবিক।’

তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনাকে বাদ দিয়েই ভবিষ্যতে নির্বাচন হবে। হাসিনা মার্কা নির্বাচন নয়, নিরপেক্ষ নির্বাচন হতে হবে। হাসিনা মার্কা নির্বাচনে বিএনপি যাবে না, গিয়েও লাভ হবে না। তাই এখন থেকেই কাজ করতে হবে।’

খালেদা জিয়া জানান, এক মাসের মধ্যে তারা ‘ভিশন-২০৩০’ চূড়ান্ত করে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিস্তারিত তুলে ধরবেন। প্রথম অধিবেশনে দেয়া বক্তব্যে বিএনপির চেয়ারপারসন আগামীতে সরকার পরিচালনার রূপরেখা ‘ভিশন-২০৩০’ উপস্থাপন করেন।

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ অপপ্রচার চালায়, বিএনপি শেষ হয়ে গেছে। কিন্তু কাউন্সিলে কাউন্সিলর, ডেলিগেটস ও নেতাকর্মীদের স্বতঃস্ফূর্ত উপস্থিতি প্রমাণ করে, বিএনপি আরো শক্তিশালী হয়েছে।’

২০ দলীয় জোট প্রসঙ্গে খালেদা জিয়া বলেন, ‘ছোট-বড় মিলিয়ে ২০ দল আমাদের সঙ্গে আছে। প্রোগাম ডাকলে তারা আসে। নিজেদের সামর্থ্য অনুযায়ী কর্মসূচিও পালন করে। তাই ২০ দলীয় জোটকেই একসঙ্গে আন্দোলন করতে হবে।’ পরে খালেদা জিয়াসহ কাউন্সিলররা বিএনপির অঙ্গ সংগঠন জাতীয়তাবাদী সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংস্থার (জাসাস) মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন।

এফ/১১:৫০/২০মার্চ

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে