Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 1.3/5 (6 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৩-১৭-২০১৬

বারমুডা ট্রায়েঙ্গেলের রহস্য ভেদ! (ভিডিও সংযুক্ত)

বারমুডা ট্রায়েঙ্গেলের রহস্য ভেদ! (ভিডিও সংযুক্ত)

বারমুডা ট্রায়াঙ্গেল নিয়ে রহস্যের শেষ নেই। বারমুডা নিয়ে তাই আগ্রহও বেশি। যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা, বাহামা দ্বীপ এবং ক্যরিবীয়ান দ্বীপ এই তিনটি স্থানকে নিয়ে যে ত্রিভুজাকার এলাকা পাওয়া যায় সেটাই বারমুডা ট্রায়াঙ্গেল।

প্রায়ই শোনা যায়, বারমুডা ট্রায়াঙ্গেলে নৌযান দুর্ঘটনার কবলে পড়ে নিশ্চিন্থ হয়ে যায়। এখান দিয়ে পর দিয়ে বিমান উড়ে গেলে তার আর হদিস পাওয়া যায় না। গুজব রয়েছে, এই এলাকায় কম্পাসের কাঁটা এলোমেলো দিক নির্দেশনা দেয়। এবার বুঝি এই রহস্যের পরিসমাপ্তি ঘটতে যাচ্ছে।

হাজারো তত্ত্ব-তালাশ করেও, গত অর্ধ শতাব্দী ধরে যে ধাঁধার কোনও উত্তর মেলেনি, সম্প্রতি তার জট খুলেছে বলে দাবি বিজ্ঞানীদের।

সাম্প্রতিক গবেষণা বলছে, বারমুডা ট্র্যাঙ্গেলে সমুদ্রের একেবারে তলদেশে কয়েকটি সুবিশাল আগ্নেয়গিরি রয়েছে।
তার জ্বালামুখ থেকে গলগল করে বেরিয়ে আসছে বিষাক্ত মিথেন গ্যাস। অসম্ভব রকমের গরম অন্যান্য গ্যাসও। ওই সুবিশাল আগ্নেয়গিরিগুলি থাকায় আর সেগুলো থেকে প্রচুর পরিমাণে মিথেনের মতো বিষাক্ত গ্যাস বেরিয়ে আসায় সমুদ্রের তলদেশে জলজ প্রাণীদের পক্ষেও বেঁচে থাকাটা সম্ভব হয় না। সেই মিথেন গ্যাসই সমুদ্রের তলদেশ থেকে উঠে এসে জলের ওপর বুদবুদ তৈরি করে। জলকে আরও ফুলিয়ে ফাঁপিয়ে তোলে। গ্যাসে চার পাশ ঢেকে যায় বলে জাহাজের নাবিকের পক্ষে তো আর কিছু দেখা সম্ভব হয়ই না,

এমনকি, তা কমপিউটারের নেভিগেশান ব্যবস্থাকেও বিগড়ে দেয়। ফলে পথ হারিয়ে ফেলা ছাড়া জাহাজের নাবিকের আর কিছুই করার থাকে না। একই কারণে, পথ হারিয়ে ভেঙে পড়ে বারমুডা ট্রায়াঙ্গেলের ওপর দিয়ে উড়ে যাওয়া বিমানও।

নরওয়ের আর্কটিক বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক একেবারে হালে নরওয়ের উপকূলে ব্যারেন্টস সাগরের তলদেশে ওই সুবিশাল আগ্নেয়গিরিগুলোর সন্ধান পেয়েছেন।

তারা জানাচ্ছেন, ওই মিথেন গ্যাস সমুদ্রের জলের অন্তত ১৫০ ফুট ওপর পর্যন্ত ছড়িয়ে থাকে। আর তা ছড়িয়ে থাকে আধ মাইল এলাকা জুড়ে।

কেন ওই এলাকাটিকে বলা হয় ‘বারমুডা ট্রায়েঙ্গেল’? বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, অতীতে জাহাজ আর বিমানগুলো হারিয়ে গিয়েছে সমুদ্রের যে যে এলাকার কাছাকাছি, সেই এলাকাগুলোকে কোনো এক অদৃশ্য লাইন দিয়ে জুড়লে, তা একটা ত্রিভুজ বা ‘ট্রায়েঙ্গেলে’র চেহারা নেয়।

সেই জায়গাগুলো কী  কী? পুয়ের্তো রিকো, মিয়ামি আর বারমুডা।

বিজ্ঞানীরা আরও জানিয়েছেন, শুধুই যে সমুদ্রের তলদেশে থাকা আগ্নেয়গিরি থেকে ওই প্রচুর পরিমাণে মিথেন গ্যাস উঠে আসছে, তাই নয়। সমুদ্রের তলদেশে একেবারে শক্ত বরফ হয়েও রয়েছে প্রচুর পরিমাণে মিথেন। আগ্নেয়গিরির লাভাস্রোতের গরমে তা গ্যাস হয়ে গিয়ে অসম্ভব রকমের গরম মিথেন গ্যাসের পরিমাণ আরও বাড়িয়ে দিচ্ছে। তাতেই ঘটছে যাবতীয় বিপত্তি।

দেখুন ভিডিওতে:

আর/১৮:৩৬/১৭ মার্চ

 

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে