Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (6 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৩-১৭-২০১৬

তুহিনের প্রস্তাব প্রথমে প্রত্যাখ্যান করেছিলাম

তুহিনের প্রস্তাব প্রথমে প্রত্যাখ্যান করেছিলাম

নারায়ণগঞ্জ, ১৭ মার্চ- ‘তুহিন আমাকে প্রথমে প্রস্তাব দিয়েছিল, কিন্তু সেটা প্রত্যাখ্যান করেছিলাম। এরপর থেকে প্রায়শই সে আমাকে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। অবশেষে ভয়ে ও চাপে পড়ে গেল বছরে তুহিনের সঙ্গে সোনারগাঁয়ের বাংলার তাজমহলে ঘুরতে যাই। এরপর ঢাকার শ্যামপুর ও সবশেষে গত ৮ ফেব্রুয়ারি পাগলা মেরি এন্ডারসনে তুহিনের সঙ্গে দেখা করি।’

প্রেমিক ও তার সহযোগীদের হাতে বাবা হত্যার ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে স্কুলছাত্রী ঝর্ণা রানী অধিকারী (১৬) আরো বলে, ‘ওই ঘটনার পরে তুহিনের কাছ থেকে দূরে সরে যাওয়ার জন্য মোবাইল ফোন বন্ধ করে রাখি। আমার সঙ্গে যোগাযোগ করতে না পেরে তুহিন তার বন্ধু তানভীরকে আমাদের বাসায় পাঠায়। তানভীর আমাদের বাসায় এসে অনেক উচ্চবাচ্চ্য ও আমাকে শাসায়। এসময় স্থানীয় লোকজন বিষয়টি জানতে পেরে তানভীরকে আটক করে মারধর করে। পরে তানভীরের পরিবারের লোকজন পুলিশ নিয়ে আমাদের এলাকায় এসেছিল।’

বাবাকে হত্যার প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে ঝর্ণা আরো জানায়, বুধবার (১৬ মার্চ) ভোরের দিকে তুহিন আর তার বন্ধুরা আমাদের বাড়ি আসে। এরপর আমাকে তুলে নেয়ার চেষ্টা করে। তখন বাধা দিতে গেলে আমার বাবাকে ছুরি মেরে হত্যা করে ওরা।’


ঝর্ণার বাবা মনিন্দ্র অধিকারী ও মা প্রজাপতি রানী

বুধবার (১৬ মার্চ) দুপুরে ফতুল্লা থানায় পুলিশ ও সাংবাদিকদের কাছে ধনী প্রেমিকের প্রেমের নির্মম বলি হতদরিদ্র বাবা মনিন্দ্র অধিকারীকে (৪৫) হত্যার ঘটনার বর্ণনা দেন তারই মেয়ে ঝর্ণা রানী।

মনিন্দ্রের মেঝ মেয়ে ঝর্ণা রানী অধিকারী স্থানীয় হাজী পান্দে আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী। মনিন্দ্র অধিকারী সপরিবারে ফতুল্লার রগুনাথপুর এলাকায় এনামুল হক এনামের দ্বিতল বাড়ির দ্বিতীয় তলায় বসবাস করতেন। তিনি কেয়ারটেকার হিসেবে বাড়ি দেখাশোনা করতেন। দিনের বেলায় কখনও রিকশা কখনো বা ভ্যান চালাতেন।

এর আগে দুপুরে স্বামী মনিন্দ্র অধিকারীকে (৪৫) ছুরিকাঘাত করে হত্যা ঘটনায় তারই স্ত্রী প্রজাপতি রানী রায় বাদী হয়ে ফতুল্লা থানায় মামলা করেন।

ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল উদ্দিন মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ওই ঘটনাস্থল থেকে গ্রেপ্তারকৃত ৭জন, পরে আটক একজন ও পলাতক দুইজনকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে। তুহিন নামে পলাতক যুবককে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

প্রসঙ্গত, বুধবার (১৬ মার্চ) ভোরে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার রগুনাথপুর এলাকায় কিশোরী র্ঝণা রানীকে তুলে নেয়ার সময় বাধা দেয়ায় তার বাবা মনিন্দ্র অধিকারীকে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করে প্রেমিকসহ তার বন্ধুরা। এসময় নজরুল ইসলাম (৩৫), মনির হোসেন (৩৪), জাহিদ (২০), সুশান্ত (১৯), জুয়েল (২৫), বাবু (২১) ও হৃদয়সহ (২৬) ৭ জনকে আটক করে পুলিশ। প্রেমিক তুহিনসহ বাকিরা পালিয়ে যায়।

ফতুল্লা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল উদ্দিন পরিবারের বরাত দিয়ে জানান, মনিন্দ্র অধিকারীর তিন মেয়ের মধ্যে মেজো মেয়ে ঝর্ণা অধিকারীর সঙ্গে ঢাকার তুহিন নামে এক যুবকের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। এ ব্যাপারটা পরিবারের লোকজন জানতেন না। তাই ঝর্ণার বিয়ে ঠিক করে পাগলা এলাকার এক ছেলের সঙ্গে।

ঝর্ণা এ বিয়েতে রাজি না হয়ে তার প্রেমিক তুহিনকে বিষয়টি জানায়। পরে দুটি মাইক্রোবাস নিয়ে তুহিনসহ তার বন্ধুরা মঙ্গলবার (১৫ মার্চ) দিনগত গভীর রাতে রগুনাথপুরের বাড়ি থেকে ঝর্ণাকে তুলে নিয়ে যাওয়ার সময় বাবাসহ পরিবারের লোকজন বাধা দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ঝর্ণার বাবা মনিন্দ্র অধিকারীকে ধারালো ছুরিকাঘাত করে হত্যা করে। মনিন্দ্র অধিকারীকে হত্যা করে পালিয়ে যাওয়ার সময় নিহতের স্ত্রীসহ আশপাশের লোকজন ৭ জনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। এ সময় দুটি মাইক্রোবাসও আটক করা হয়।

এস/০২:৩০/১৭ মার্চ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে