Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৩-১৫-২০১৬

সফল হয়েছি বলবো না, তবে নতুন ধারা সৃষ্টি করেছি

সফল হয়েছি বলবো না, তবে নতুন ধারা সৃষ্টি করেছি

ঢাকা, ১৫ মার্চ- বাংলাদেশ ব্যাংকের বিদায়ী গভর্নর ড. আতিউর রহমান তার বিদায়ী বক্তব্য দিয়েছেন। কথা বলেছেন ব্যাংকের রিজার্ভের টাকা চুরি প্রসঙ্গে, কথা বলেছেন তার কর্ম নিয়ে। তিনি বলেন, ‘যে ঘটনার জন্য আজ এত কিছু। আসলে এটা থেকে আমাদের শিক্ষা নিতে হবে। আমরা বুঝে উঠতে পারিনি। এই অ্যাটাক এটিএমেও এসেছিল। এটা বোঝা যায়নি।’ 

মঙ্গলবার (১৫ মার্চ) বিকেল ৩টায় গুলশানে গভর্নর হাউসে সংবাদ সম্মেলন করে এ কথা বলেন। এর আগে রিজার্ভ অ্যাকাউন্ট থেকে জালিয়াতির মাধ্যমে ৮’শ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার ঘটনায় ব্যাপক সমালোচনার মুখে সকালে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে পদত্যাগ করে ড. আতিউর রহমান। 

তিনি দায়িত্ব পালনকালে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভে ২২ বিলিয়ন ডলার জমা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি যখন যাচ্ছি তখন রিজার্ভ ২৮ বিলিয়ন ডলার। যখন দায়িত্ব নিয়েছিলাম তখন রিজার্ভ ছিলো ছয় বিলিয়ন ডলার। আমি পুরোপুরি সফল হয়েছি বলবো না, তবে ব্যাংকের নতুন একটি ধারা তৈরি করেছি।’

বিদায়ী এ ভাষণে তিনি কিছু সুপারিশও করেন। তিনি যে প্রবৃদ্ধি ও রিজার্ভ রেখে যাচ্ছেন তার উত্তরসূরীরা তা আরো ভালো অবস্থানে নিয়ে যাবেন বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তিনি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংগুলোকে আরো বেশি সুযোগ দেয়ার সুপারিশ করেন। বাংলাদেশ ব্যাংকে প্রয়োজনে আরো শক্তিশালী করার পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, ‘রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোতে সমস্যা আছে। আমি সেসব সমস্যা সমাধানেও চেষ্টা করেছি। সবগুলোকে শৃঙ্খলায় আনতে পেরেছি। রাষ্ট্রায়াত্ত ব্যাংগুলো যেন আরও বেশি সুযোগ পায় সে ব্যবস্থায় সরকার আরও নজর দেবে বলে আশা করি।’

তিনি দায়িত্বপালনের সময় যাদের সহযোগিতা পেয়েছেন সবাইকে কৃতজ্ঞতাও জানান। এসময় তার গড়ে ওঠার পেছনে প্রধানমন্ত্রীর অবদানের কথাও স্বীকার করেন। তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে তিলে তিলে গড়ে তুলেছেন। তার গাইডেন্স নিয়ে আমি ব্যাংক চালিয়েছি। বাংলাদেশ ব্যাংক কোথা থেকে কোথায় এসেছে তা আপনারা সবাই জানেন। প্রধানমন্ত্রীর নিরঙ্কুশ সহযোগিতা ছাড়া এটা সম্ভব ছিল না।’

গভর্নর বলেন, ‘আমি গভর্নর হওয়ার বহু আগে থেকেই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কাজ করেছি। আজ আমি পদত্যাগ করে উত্তরসূরীদের হাতে দায়িত্ব হস্তান্তর করতে পেরে অনেক তৃপ্তি অনুভব করছি। আপনারা হয়তো শুনে অবাক হবেন- আমার পদত্যাগপত্র হাতে নেয়ার সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চোখ দিয়ে জল গড়িয়ে পড়েছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগপত্র হাতে নিয়ে আমাকে বলেছেন, দেখুন আমাদের দেশে তো এখনো এমন সংস্কৃতি গড়ে ওঠেনি যে কেউ স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেন। আপনি আমাদের জন্য সে উদাহরণও রেখে গেলেন।’

গভর্নর আরো বলেন, ‘আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাস করি। বঙ্গবন্ধু এবং তার কন্যা শেখ হাসিনার প্রতি আমার নিরঙ্কুশ আনুগত্য। আমি একজন খনি শ্রমিকের মতো তিলে তিলে ব্যাংকিং খাতকে সামনের দিকে এগিয়ে নেয়ার চেষ্টা করেছি। আমি দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি নিলেও বরাবরের মতোই সবার সাথেই আছি এবং থাকবো।’

তিনি বেসরকারি আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছেও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘প্রাইভেট সেক্টরের ব্যাংকগুলো যেভাবে সাধারণ মানুষের দোরগোড়ায় নিয়ে যেতে কাজ করেছে। এ জন্য আমি গর্বিত, কৃতজ্ঞ।’

গভর্নরের দায়িত্ব ছেড়ে শিক্ষকতায় ফিরে যাচ্ছেন বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, ‘কেউ আমাকে যখন জিজ্ঞেস করেন, আপনার কোন পরিচয় সবচেয়ে বড় মনে করেন। আমি নির্দ্বিধায় বলি শিক্ষকতা। আবার সেই সুযোগ এসেছে। সেখানে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আমার অভিজ্ঞতা বিনিময়ের সুযোগ হবে।’ উপস্থিত সংবাদকর্মীদের অনেকেই তার শিক্ষার্থী ছিলেন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘তোমরা অনেকেই আমার শিক্ষার্থী ছিলে। আবার হয়তো তোমাদের সঙ্গে দেখা হবে, কথা হবে।’

এফ/২২:৪৮/১৫মার্চ

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে