Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৩-১৩-২০১৬

দুইদিনে কোডিং শেখার ফল ফেইসবুক!

ফুয়াদ তানভীর অমি


দুইদিনে কোডিং শেখার ফল ফেইসবুক!

আগ্রহ এবং পরিশ্রম দিয়ে কয়েকদিনের মাঝেই নতুন একটি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ শেখা যায়। কিন্তু সেই প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ তাকে শতকোটিপতি বানাবে এমন স্বপ্ন বোধহয় খুব কম মানুষই দেখতে পারেন। আর বাস্তবে তাদের স্বপ্নপূরণ হয়েছে এমন ব্যাক্তির সংখ্যাও নেহায়েতই হাতেগোনা কয়েকজন।

এমনই কয়েকজন সফল ব্যক্তির মধ্যে রয়েছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকের প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ। তবে, এক্ষেত্রে শুধু জাকারবার্গকেই সফল বললে হবে না, বলতে হবে ফেইসবুকের সহপ্রতিষ্ঠাতাদেরও। ফেইসবুকের মাধ্যমে প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ নিয়ে দেখা তাদের সেই স্বপ্নই সত্যি হয়েছে।

২০০৫ সালে মাত্র ৫০ জন কর্মী নিয়ে চালু হয় ফেইসবুক। সে সময় হার্ভার্ডে একটি ‘লেকচার’-এর আয়োজন করেন জাকারবার্গ। তবে, তখন তার লেকচার শোনার জন্য উপস্থিতি ছিল খুবই কম। কয়েকবছর আগে তার ওই লেকচারটি ইউটিউবে প্রচার করা হয়, যা এখন অনেকটাই হাস্যকর বলে মনে হয়। ওই লেকচার নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ব্যবসা-বাণিজ্যবিষয়ক মার্কিন সাইট বিজনেস ইনসাইডার।

ওই লেকচারে জাকারবার্গ বিভিন্ন তথ্য উপস্থাপন করেন। তিনি সেখানে জানান, ২০০৫ সালেই ফেইসবুক সারাবিশ্বে আলোড়ন সৃষ্টি করে। ২ হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের কাছে এটি উন্মোচন করা হয়। আর সে সময় সাইটটিতে প্রতিদিন গড় ভিউইয়ার ছিল ৪০ কোটি, যা তৎকালীন গুগলের ভিউয়ার থেকেও বেশি।

জাকারবার্গ তার সেই লেকচারে সবচেয়ে মজার যে গল্পটি শেয়ার করেন, তা কম্পিউটার বিজ্ঞানের ছাত্র এবং তার রুমমেট ডাস্টিন মস্কোভিৎজ কে নিয়ে। তিনিও ফেইসবুকের একজন সহপ্রতিষ্ঠাতা। জাকারবার্গ জানান তিনি তার হোস্টেলে পিএইচপি প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ দিয়ে সাইটটি লেখা শুরু করেন এবং প্রাথমিকভাবে তা জনপ্রিয়তাও পায়।

তিনি বলেন, “আমি সাইটটি লেখা শুরু করি এবং ২০০৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে সেটি হার্ভার্ডে উন্মোচন করা হয়। দুই সপ্তাহের মধ্যেই কয়েক হাজার মানুষ এখানে সাইনআপ করেন এবং আমরা অন্যান্য কলেজের কিছু ছাত্রের কাছ থেকে ইমেইল পাই, যাতে সাইটটি তাদের কলেজেও উন্মোচন করা হয়।” জাকারবার্গের মতে তিনি তখন ‘কঠিন কিন্তু মজার কম্পিউটার বিজ্ঞান ক্লাস’ করতেন। যার ফলে তিনি ফেইসবুক নিয়ে আর বেশী কাজ করতে পারছিলেন না।

ঠিক তখনই তার রুমমেট মস্কোভিৎজ তাকে বলেন, “হাই, আমি তোমাকে সাহায্য করতে চাই। আমি তোমাকে এর বিস্তার করতে সহায়তা করতে চাই।” তখন জাকারবার্গ বলেন, “এটা সত্যিই অনেক ভালো। কিন্তু তুমি পিএইচপির কিছুই জানো না।”

সৌভাগ্যক্রমে পিএচপি শেখাটা অনেক সহজ, যদি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ ‘সি’ জানা থাকে।

এরপর মস্কোভিৎজ ‘সি’ শেখার পর প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ পার্ল-এর বই কিনে বাসায় যায়। ফিরে এসে সে তাকে বলে যে, সে এখন 'প্রস্তুত'। তখন জাকারবার্গ তাকে আবার হতাশ করে বলেন, “সাইটটি পিএইচপি দিয়ে লেখা, পার্ল দিয়ে নয়, বন্ধু।” মস্কোভিৎজ তখন পিএইচপিও পড়েন এবং দুই দিনের মাঝে সেটি শিখে ফেলেন। অতঃপর তিনি জাকারবার্গকে সাইটটি বিস্তৃত করতে প্রযুক্তিগতভাবে সহায়তা করেন।

জাকারবার্গ এবং মস্কোভিৎজ দুজনকেই হার্ভার্ড থেকে বের করে দেওয়ার পর তারা পলো অল্টোতে গিয়ে পুরো সময় ফেইসবুক নিয়ে কাজ করেন। ২০০৮ সালে মস্কোভিৎজ ফেইসবুক ছেড়ে চলে যান। কিন্তু পরে তাদের সেই সম্পর্কই ‘দ্য অ্যাক্সিডেন্টাল বিলিয়নেয়ার্স’ বইটির কেন্দ্রীয় থিমে পরিণত হয়। এরপর এটি নিয়ে ‘দ্য সোশাল নেটওয়ার্ক’ নামের চলচ্চিত্রও করা হয়।

আর/১১:৩২/১৩ মার্চ

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে