Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (15 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৩-১২-২০১৬

বরগুনায় সাতটি পরিবারের ওপর হামলা

বরগুনায় সাতটি পরিবারের ওপর হামলা

বরগুনা, ১২ মার্চ- বরগুনা সদরের গৌরীচন্না ইউনিয়নের উত্তর মনসাতলী গ্রামে হিন্দু সম্প্রদায়ের একটি বাড়িতে ঢুকে সাতটি পরিবারের সদস্যদের ওপর হামলা ও মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। হামলাকারীরা এসব পরিবারের নারী সদস্যদের লাঞ্ছিত করে। গতকাল শুক্রবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।

হামলাকারীরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী মিলন চন্দ্র বিশ্বাসের সমর্থক বলে অভিযোগ উঠেছে। আহতদের মধ্যে চারজনকে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

হামলার শিকার তপন দাস, ময়না রানী, সুমিতা রানী, ছবি রানী, ধীরেন দাসের ভাষ্যমতে, গতকাল বেলা একটার দিকে সদর উপজেলার গৌরীচন্না ইউনিয়নের উত্তর মনসাতলী গ্রামের দাসবাড়িতে একই এলাকার শাহাদাত, আউয়াল, রনি, রায়হান নামে চার যুবক লাঠিসোঁটা নিয়ে ঢোকে। প্রথমে তারা তপন দাসের ঘরে ঢুকে নৌকা প্রতীকের সমর্থন না করার কৈফিয়ত চায় এবং কেন বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছে তা জানতে চায়। একপর্যায়ে তপন দাসকে টেনে-হিঁচড়ে ঘরের বাইরে এনে লাঠি দিয়ে বেধড়ক পেটাতে থাকে। এ সময় তাঁর স্ত্রী ময়না রানী স্বামীকে রক্ষায় এগিয়ে এলে তাঁকেও মারধর করে ওই যুবকেরা। হামলাকারীরা তপনের ভাইয়ের স্ত্রী সুমিতা রানীসহ ছবি রানী, ধীরেন দাস, রাজেন্দ্র দাসকেও মারধর করে। সন্ত্রাসীরা হামলার ঘটনা কাউকে না জানানোর জন্য শাসায় এবং কাউকে জানালে হত্যা করা হবে বলে হুমকি দেয়।
সুমিতা রানী বলেন, ‘বিচার চাইয়্যা অইবে কী। মোগো তো এই বাড়িতেই থাকতে অইবে। হ্যারা তো সন্ত্রাসী, হ্যাগো বিরুদ্ধে নালিশ দিয়া বাড়ি থাকমু ক্যামনে।’ আতঙ্কে হামলার বিষয়টি গোপন করলেও গতকাল বিকেলে ঘটনা জানাজানি হয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে হামলার শিকার পরিবারটির সঙ্গে কথা বলে। পরে আহত ব্যক্তিদের মধ্যে তাপস দাস, ধীরেন দাস, ময়না রানী ও ছবি রানী দাসকে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম অভিযোগ করেন, ‘আওয়ামী লীগ প্রার্থী তাঁর পরাজয় নিশ্চিত জেনে এখন নিরীহ ভোটারদের ওপর সন্ত্রাসী দিয়ে হামলা চালানো হচ্ছে। ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের তাণ্ডবে এলাকার সাধারণ ভোটার এখন শঙ্কিত। এ জন্য এখানে সুষ্ঠু ভোট নিয়ে শঙ্কার মধ্যে আছি আমরা।’

আওয়ামী লীগের প্রার্থী মিলন চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা নেই। জেনে দেখি আসলে সেখানে কী হয়েছে। তারপর বলতে পারব। তবে যাঁরা আহত হয়েছেন, তাঁরা বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থক এটা আমি জানি।’ বরগুনা থানার ওসি রিয়াজ হোসেন বলেন, ‘ঘটনা শোনার পর তাৎক্ষণিক সেখানে পুলিশ পাঠিয়েছি। হামলার শিকার পরিবারের আহত সদস্যদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। হামলার সঙ্গে জড়িত সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।’

এস/০১:৪০/১২ মার্চ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে