Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.2/5 (31 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৩-১১-২০১৬

চাঁদপুরে ৪১ হাজার জেলে এখনো খাদ্য সহায়তা পায়নি

চাঁদপুরে ৪১ হাজার জেলে এখনো খাদ্য সহায়তা পায়নি

চাঁদপুর, ১১ মার্চ- দেশের ৫টি অঞ্চলে চলছে ইলিশের অভয়াশ্রম মৌসুম। মার্চ-এপ্রিল দু’মাসের অভয়াশ্রম মৌসুমে ইলিশ নিধন রোধে নদীতে সব ধরনের জাল ফেলা বন্ধ করেছে সরকার। অথচ অভয়াশ্রম মৌসুমের ১০ দিন পার হলেও এখনো সরকারের প্রতিশ্রুত খাদ্য সহায়তা পায়নি নিবন্ধিত চাঁদপুরের ৪১ হাজার ৪২ জেলে। 

এরফলে তারা নিদারুন কষ্টে জীবন নির্বাহ করছে। যদিও একশ্রেণির অসাধু জেলে বসে নেই। তারা অবাধে চালাচ্ছে জাটকা নিধন। তাদের অভিমত, ‘কী করমু কন, সরকারও দিতাছে না, আমরা কি খাইয়া বাঁচুম? বাধ্য অইয়াই সুযোগমতো নদীত (নদীতে) নাইম্মা পড়ি’। 

যদিও জেলা মৎস্য র্কমকর্তা মো. সফিকুর রহমান জানিয়েছেন, খাদ্য সহায়তা হিসেবে গত বছরের তুলনায় এ বছর চাল দ্বিগুণ বরাদ্দ চেয়ে মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। এ কারণেই হয়তোবা একটু দেরি হচ্ছে। তবে চাল ও উপকরণ বরাদ্দ পাওয়ামাত্রই আমরা জেলেদের হাতে তুলে দেবো। 

চাঁদপুর সদর উপজেলার লক্ষ্মীপুর ও দোকানঘর এলাকার জেলে খোরশেদ আলম, সিরাজ মিয়া ও শাহ আলম জানান, সরকারি সহায়তা যথাসময়ে না পেলে তারা ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়ে। তাই দ্রুত বরাদ্দকৃত চাল ও বিকল্প কর্মসংস্থানের উপকরণ দেয়ার জোর দাবি জানায় তারা।

এদিকে ইলিশ রক্ষায় বৃহস্পতিবার (১০ মার্চ) চাঁদপুরে ‘জাটকা সংরক্ষণ সপ্তাহে’র উদ্বোধন করা হয়েছে। এতে ইলিশের পোনা জাটকা রক্ষায় ২৪ ঘণ্টা অভিযান চালানোর পাশাপাশি নিধনকারীদের কঠোর হস্তে দমন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। 

এ সময় জেলা প্রশাসক মো. আব্দুস সবুর মণ্ডল, পুলিশ সুপার শামসুন্নাহারসহ কোস্টগার্ড, নৌ-পুলিশ ও মৎস্য বিভাগের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা, প্রেসক্লাবের সভাপতি বিএম হান্নানসহ জাটকা সংরক্ষণের সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন। 

এ সময় জেলা মৎস্য কর্মকর্তা জানান, সরকারের জাটকা সংরক্ষণ কার্যক্রম বাস্তবায়নে আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা করছি। ইতোমধ্যে আমরা অবৈধ মাছ শিকারের অপরাধে অর্ধশতাধিক জেলেকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা ও জরিমানা করেছি। এছাড়াও অবৈধ কারেন্টজাল আটক ও জাটকা জব্দ করে গরিব-দুঃস্থদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। 

উল্লেখ্য, গত ১ মার্চ থেকে চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনা নদীর ১শ কিলোমিটার এলাকাসহ দেশের ৫টি অঞ্চলে ইলিশ সংরক্ষণে ‘অভয়াশ্রম কর্মসূচি’ চলছে। আগামী ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত এ কার্যক্রম চলবে। এ দু’মাস অভয়াশ্রম এলাকায় কেউ মাছ শিকার করলে তার বিরুদ্ধে জেল-জরিমানার বিধান করেছে সরকার। 

সরকারি হিসেবে চাঁদপুরের হাইমচর, মতলব দক্ষিণ, মতলব উত্তর ও চাঁদপুর সদরে ৪১ হাজার ৪২ জন জেলে রয়েছে। অভয়াশ্রম চলাকালে প্রথমবার কেউ নদীতে জাল ফেললে এক মাস থেকে সর্বোচ্চ ছয় মাস সশ্রম কারাদণ্ড ও এক হাজার টাকা জরিমানা এবং পরবর্তী প্রতিবার আইন ভঙের জন্য কমপক্ষে ২ মাস থেকে ১ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ২ হাজার টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে।

‘অভয়াশ্রম কর্মসূচি’র প্রথম দিকে চার ধাপে জেলে পরিবারপ্রতি ৩০ কেজি করে এবং গতবছর ৪০ কেজি করে চাল দেয়া হয়েছে। এ বছর জেলে পরিবারপ্রতি ৮০ কেজি করে চাল বরাদ্দ চেয়ে চিঠি দেয়া হয়েছে বলে জানায় কর্তৃপক্ষ। তবে সম্ভবত সরকার ৫০ কেজি করে চাল বরাদ্দ করেছে। কিন্তু বরাদ্দপত্র না পাওয়ায় এখনো বিতরণ শুরু হয়নি।

এস/১৮:৫০/১০ মার্চ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে