Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৩-০৬-২০১৬

বিএনপি ‘ভুল পথে’, নতুন দল আনছেন জিয়ার ভাই

বিএনপি ‘ভুল পথে’, নতুন দল আনছেন জিয়ার ভাই

ঢাকা, ০৬ মার্চ- দলের প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত জিয়া‌উর রহমানের আদর্শের সঙ্গে বিএনপির বর্তমান কর্মকাণ্ডে মিল নেই বলে দাবি করেছেন তার ছোটভাই আহমেদ কামাল।

শনিবার রাজধানীতে এক আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি বলেন, “বিএনপির বর্তমান নাজুক অবস্থা দেখে কিছু কথা না বলে পারছি না। মাঝে-মাঝে দুঃখ হয়, যখন দেখি আমার ভাই শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের আদর্শ নীতির সাথে বিএনপির অনেক কর্মকাণ্ডের এখন মিল নেই।”

‘একটি স্বার্থান্বেষী মহল ও স্বাধীনতাবিরোধী চক্রের শিকার’ হয়ে খালেদা জিয়া ভুল পথে পরিচালিত হচ্ছেন মন্তব্য করে তিনি বলেন, “তারা চেয়ারপারসনকে ভুল পরামর্শ ও তথ্য দিয়ে অন্ধকারে রাখতে চান।

“মুক্তিযুদ্ধের শহীদের সংখ্যা নিয়ে এখন বির্তক সৃষ্টি করা মোটেই সঠিক নয় বলে আমি মনে করি।”

ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে শহীদ জিয়া ও জাতীয়তাবাদী আর্দশ বাস্তবায়ন পরিষদ নামে একটি সংগঠনের উদ্যোগে ‘শহীদ জিয়ার আদর্শ ও বিপন্ন গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার’ শীর্ষক এই সভার আয়োজন করে।

এতে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে ‘সংস্কারপন্থি’ নেতা হিসেবে পরিচিত বিএনপির বহিষ্কৃত যুগ্ম মহাসচিব আশরাফ হোসেন ও দলটির মুখপত্র ‘দৈনিক দিনকাল’র সাবেক ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক কাজী সিরাজ ছিলেন।

অনুষ্ঠানে বেইলি রোড, মগবাজার ও ফকিরাপুল এলাকার ৪০-৪৫ জন তরুণ-তরুণীকে দেখা গেলেও বিএনপির কোনো পর্যায়ের নেতা-কর্মী ছিলেন না।

এর আগে গত ৪ মে রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে জিয়ার আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া মাহফিলের আয়োজন করেছিলেন আহমেদ কামাল।

সভায় রাজনীতিতে আসার আগ্রহের কথা জানিয়ে জিয়ার ছোটভাই বলেন, “আমার ভাইয়ের হাতে গড়া সংগঠন বিএনপির এই দুর্দিনে তার আদর্শ বাস্তবায়ন এবং দলকে সঠিক পথে সুসংগঠিত করার জন্য একজন সহযোদ্ধা হিসেবে জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত আপনাদের পাশে আছি এবং থাকব।”

“আমি কোনো ক্ষমতার লোভে রাজনীতি করতে চাই না। দেশের এই দুর্দিনে বিএনপির পাশে থেকে দেশের মানুষের সেবা করতে চাই,” বলেন তিনি।

সভার শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আহমেদ কামাল বলেন, “আমি নতুন দল করব। তবে টাইম পরে জানাব।”

বিএনপির কাউন্সিল নিয়ে কোনো প্রতিক্রিয়া আছে কি না- জানতে চাইলে তিনি বলেন, “আমি বিএনপি করি না। আমি নতুন দল করবো। এর নাম হবে ন্যাশনালিস্ট পার্টি।”

এ সময় আশরফ হোসেন ও কাজী সিরাজ তার দুই পাশে বসা ছিলেন।

অবশ্য পরে কয়েকজন সাংবাদিককে তিনি বলেন, “আমি যা বলেছি, লিখিত বলেছি, সেটাই আমার বক্তব্য।”

তার ওই লিখিত বক্তব্যে কোনো নতুন দল গঠনের কথা নেই।

সরকারের সমালোচনা করে আহমেদ কামাল বলেন, “আওয়ামী লীগ সরকার মুখে গণতন্ত্রের কথা বলে। কিন্তু গণতন্ত্রের লেশ মাত্র দেশের কোথাও নাই। মানুষের স্বাধীনভাবে কথা বলার অধিকার নাই।”

সরকার আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী এবং দলীয় ক্যাডার বাহিনী দিয়ে বিএনপিকে নিশ্চিহ্ন করার পাঁয়তারা করছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, “তারা (সরকার) সংবিধানের দোহাই দিয়ে ভোটারবিহীন প্রহসনের নির্বাচন করে অনৈতিকভাবে ক্ষমতা আকড়ে ধরে রেখেছে। সর্বস্তরের দুর্নীতি, অনিয়ম দেশকে অন্ধকারের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।”
সরকারকে হুঁশিয়ার করে আহমেদ কামাল বলেন, “একদিন না একদিন দেশের জনগণ রুখে দাঁড়াবে।”

অসুস্থ হওয়ার কারণে স্পষ্টভাবে কথা বলতে পারছিলেন না জিয়ার ছোটভাই কামাল।

সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে ‘কল্যাণমুখী’ সরকার গঠন ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নে সব দলের সঙ্গে সংলাপের মাধ্যমে সমাধানের পথ বের করার আহ্বানও জানান তিনি।

“সরকারকে সব দলের সঙ্গে গঠনমূলক আলোচনা নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে। সকল সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানকে স্বাধীনভাবে কাজ করার ‍সুযোগ দিতে হবে।”

অবস্থার পরিবর্তন আনতে হলে সবাইকে ঘুরে দাঁড়াতে হবে মন্তব্য করে আহমেদ কামাল বলেন, “জাতীয়তাবাদী আদর্শের নেতা-কর্মীসহ আপমার মেহনতি মানুষ, কৃষক, শ্রমিক, বুদ্ধিজীবী, সুশীল সমাজ, সবাইকে একসাথে মিলে শহীদ জিয়ার মূল আদর্শ ও নীতিকে আবার জনগণের মাঝে ফিরিয়ে আনতে হবে।”

“বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ জিয়াকে বির্তকের উর্ধ্বে রাখতে হবে। একে অপরের প্রতি কাঁদা ছোঁড়াছুড়ি ও নোংরা রাজনীতি থেকে সকল দলকে বেরিয়ে আসতে হবে,” বলেন তিনি।

অনুষ্ঠানে আহমেদ কামালের বক্তব্যের পরপরই ‘প্রেসিডেন্ট জিয়া, প্রেসিডেন্ট জিয়া, জিন্দাবাদ জিন্দাবাদ’ ‘আহমেদ কামাল ভাই এগিয়ে চলো, আমরা আছি তোমার সাথে’ ইত্যাদি স্লোগান দেওয়া হয়।

বিএনপির বহিস্কৃত যুগ্ম মহাসচিব আশরাফ হোসেন বলেন, “দেশে বর্তমানে কোনো গণতন্ত্র নেই। এদেশের মালিক কে? জনগণের মালিকানা তো এখানে নেই। এখানে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ- এই দুটি রাজনৈতিক দল আছে।

“মালিকানা দুই পরিবারের। যদি ভোটের অধিকার পান, তাহলে দুই পরিবারের এক পরিবারকেই ভোট দিতে হবে। এটা কিন্তু গণতন্ত্র বলে না।”

বিএনপির বর্তমান নেতৃত্বের কঠোর সমালোচনা করে কাজী সিরাজ বলেন, “বিএনপি ৪ দল বা ২০ দল গঠনের পর থেকে বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদের গণতান্ত্রিক চেতনা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা- সেইভাবে নেই।”

আহমেদ কামালের আত্মীয় এস ইসলাম ডনের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে ন্যাশনাল কংগ্রেস সভাপতি শেখ শহীদ-উজ-জামান, জাতীয় স্বাধীনতা পার্টির মহাসচিব মিজানুর রহমান মিজু, সাবেক সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল হোসনে আরা আহসান, কলামনিস্ট আবু মহিন মুসা, অধ্যাপক মাহবুব হাসান, অধ্যাপক এমএম ইসলাম ও এনামুল হক আখন্দ বক্তব্য রাখেন।

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে