Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০২-২৭-২০১৬

উত্তরায় দগ্ধ পরিবারের দুই ভাই বাঁচল না

উত্তরায় দগ্ধ পরিবারের দুই ভাই বাঁচল না

ঢাকা, ২৭ ফেব্রুয়ারী- ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের আবাসিক চিকিৎসক পার্থ শংকর পাল জানান, শুক্রবার সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে পরিবারটির ছোটছেলে দেড় বছরের জায়ান বিন শাহনেওয়াজ মারা যায়।

এর এক ঘণ্টা আগে মৃত্যু হয় তার বড় ভাই শাহালিন বিন শাহনেওয়াজের (১৫)।

এ ঘটনায় দগ্ধ বাকিরা হলেন- গৃহকর্তা ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের মেইনটেইনেন্স ইঞ্জিনিয়ার মো. শাহনেওয়াজ (৫০), তার স্ত্রী সুমাইয়া আক্তার (৪০) এবং তাদের মেজ ছেলে জারিফ (১১)।

ফায়ার সার্ভিস নিয়ন্ত্রণ কক্ষের কর্মকর্তা আতিকুল আলম চৌধুরী জানান, সকাল ৭টার দিকে উত্তরার ১৩ নম্বর সেক্টরের ৩ নম্বর রোডের একটি সাততলা ভবনের সপ্তম তলার ফ্ল্যাটে রান্নাঘরের আগুনে ওই পরিবারের পাঁচজন দগ্ধ হয়।

ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে অল্প সময়ের মধ্যে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। পরে দগ্ধদের উদ্ধার করে স্থানীয়দের সহায়তায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়।

আবুল হাসনাত নামের এক ব্যক্তি সকাল ৮টার দিকে দগ্ধ ওই পাঁচজনকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন বলে জানান হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক মোজাম্মেল হক।
চিকিৎসকদের বরাতে দগ্ধ সবার অবস্থা গুরুতর জানিয়ে এই পুলিশ কর্মকর্তা সকালে বলেছিলেন, “শাহনেওয়াজের শরীরের ৯৫ ভাগ ও তার স্ত্রীর ৯০ শতাংশ পুড়ে গেছে। তাদের তিন ছেলের মধ্যে জারিফ ছাড়া বাকি দুজনেরও শরীরও ৭০ শতাংশের বেশি পুড়েছে।”

মোজাম্মেল আরও বলেন, “হাসনাত আমাদের বলেছেন, সকালে ওই বাড়ির রান্নাঘর থেকে বিকট শব্দ হয় এবং আগুন ধরে যায়।  পরে তা ছড়িয়ে পড়ে।”

ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের ধারণা, ওই বাসার গ্যাসের চুলা বা লাইনে সমস্যা ছিল। এর ফলে গ্যাস বের হয়ে রান্নাঘর থেকে পুরো ফ্ল্যাটে ছড়িয়ে যায় এবং সকালে চুলা জ্বালাতে গিয়ে অগ্নিকাণ্ড ঘটে।

দগ্ধ গৃহকর্তা শাহনেওয়াজের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের প্রকৌশল বিভাগে মেইনটেইনেন্স ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে চাকরি করা এই ব্যক্তি গত ২০ ফেব্রুয়ারি উত্তরার ওই বাসায় পরিবার নিয়ে উঠেছিলেন বলে হাসপাতালে সাংবাদিকদের জানান তার স্বজনরা।
ওই বাড়ির গ্যাস লাইনেই ছিদ্র ছিল বলে হাসপাতালে সাংবাদিকদের বলেন শাহনেওয়াজের বোন আরবিন নিশাত।

তিনি বলেন, “হাসপাতালে ছটফট করার সময়ও আমার ভাই বলছিল যে, আপা আমারে আগুন ধাক্কা দিয়েছে। বাড়িওয়ালাকে গ্যাস লিক হওয়ার কথার বলেছিলাম।”

স্বজনরা অভিযোগ করেন, গ্যাস লাইনে ছিদ্র থাকার বিষয়ে সর্বশেষ বৃহস্পতিবারও বাড়ির মালিককে জানানো হয়। কিন্তু বাড়ির মালিক বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নেননি।

ঢাকা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে