Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০২-২৪-২০১৬

ভারতকে চ্যালেঞ্জই জানাতে পারল না বাংলাদেশ

ভারতকে চ্যালেঞ্জই জানাতে পারল না বাংলাদেশ

ঢাকা, ২৪ ফেব্রুয়ারী- সবুজ উইকেটের ফায়দা পুরোপুরি তুলতে পারলেন না বাংলাদেশের বোলাররা। ব্যাটসম্যানরা পারলেন না ভারতীয় বোলারদের সামলাতে। মাশরাফিদের এশিয়া কাপ অভিযান শুরু হলো বাজে ভাবে হেরে।

মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে এশিয়া কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে ভারতের কাছে ৪৫ রানে হেরেছে বাংলাদেশ। ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৬৬ রান তুলেছিল ভারত; বাংলাদেশ করেছে ৭ উইকেটে ১২১।

মধ্য ফাল্গুনের বৃষ্টিতে পেস সহায়ক কন্ডিশন আর ঘাসে ভরা উইকেটকে কাজে লাগাতে পারেননি বাংলাদেশের বোলাররা। সামনে বোলিং করে সুইং আদায় করার বদলে করে গেছেন লেংথ বোলিং। ফিল্ডিংও হয়নি আশানুরূপ। ২১ রানে রোহিত শর্মার ক্যাচ ছাড়েন সাকিব আল হাসান। সেই রোহিত পরে ৮৩ রানের ইনিংসে ভারতকে এনে দেন বড় সংগ্রহ। এই উইকেট-কন্ডিশনে যে রান ছিল বাংলাদেশের ধরাছোঁয়ার বাইরে।

রান তাড়ায় শুরুতেই পথ হারায় বাংলাদেশ। একাদশে ইমরুল কায়েস থাকলেও সৌম্য সরকারের সঙ্গে ইনিংস শুরু করেন মোহাম্মদ মিঠুন। আগে বিদায়ও নেন মিঠুন, তৃতীয় ওভারেই আশিস নেহরাকে তেড়েফুড়ে মারতে গিয়ে বোল্ড।

নেহরা ও জাসপ্রিত বুমরাহর সুইংয়ে বারবার পরাস্ত হওয়ার পর বিদায় নিলেন সৌম্যও (১১)। চারে নেমে বিবর্ণ ইমরুল কায়েস (২৪ বলে ১৪)।

এমন শুরুর পরও অবশ্য বাংলাদেশের ইনিংস চলছিল ভারতের প্রায় সমান্তরালে। ১০ ওভার শেষে ভারতের রান ছিল ৩ উইকেটে ৫২, বাংলাদেশের ৩ উইকেটে ৫১। কিন্তু রোহিত হয়ে উঠতে পারেননি বাংলাদেশের কেউ।

খানিকটা আশা জাগিয়েছিলেন সাব্বির। কিন্তু রান বাড়ানোর টানাপোড়েনের বলি হয়ে ফেরেন পান্ডিয়াকে পুল করতে গিয়ে (৩২ বলে ৪৪)। সাকিব আল হাসান (৩) রান আউটে কাটা পড়েন আগেই।

বাংলাদেশ ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় সাব্বিরের আউটেই। পরে ঝড় তুলতে পারেননি মুশফিকও (১৭ বলে ১৬)। ১৫ বলে ১৫ করেন তাসকিন আহমদ।

অথচ ম্যাচের শুরুটা বাংলাদেশের জন্য ছিল দারুণ আশা জাগানিয়া। উইকেট-কন্ডিশন পেস বোলিংয়ের জন্য ছিল আদর্শ। ঢাকায় সকাল থেকেই ছিল মেঘ-রোদ-বৃষ্টির লুকোচুরি। টসের সময়ও আকাশ ছিল মেঘলা, বাতাস ভেজা; উইকেট সবুজ। টস জিতে বোলিং বেছে নিতে মোটেও ভাবতে হয়নি অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার।

শুরুতেই বাংলাদেশকে ব্রেক থ্রু এনে দেন আল আমিন হোসেন। ভেতরে ঢোকা বল শিখর ধাওয়ানের (২) ব্যাট-প্যাডের ফাঁক গলে উড়িয়ে দেয় স্টাম্প।

উইকেটে গিয়েই ব্যাটের কানাল লেগে চার পেয়েছিলেন বিরাট কোহলি। পরের ওভারে বেশ কবার ব্যর্থ হয়েছেন মুস্তাফিজুর রহমানকে তেড়েফুড়ে মারতে গিয়ে। শেষ পর্যন্ত ভারতের সেরা ব্যাটসম্যানকে ফেরান বাংলাদেশ অধিনায়ক। মাশরাফির একটু বাড়তি লাফানো বল তুলে মারতে গিয়ে কোহলি (৮) ক্যাচ দিয়েছেন মিড অফে।

বাঁহাতি সুরেশ রায়নার অফ স্পিনার মাহমুদউল্লাহকে সাকিবের আগেই বোলিংয়ে আনেন মাশরাফি। কাজেও লেগে যায় মাশরাফির ভাবনা। উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে আসা রায়নাকে খানিকটা ভেতরে ঢোকা ফ্লাইটেড বলে বিভ্রান্ত করেন মাহমুদউল্লাহ (১৩)।

৪২ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে তখন কম্পমান ভারত। কিন্তু দাঁড়িয়ে যান রোহিত শর্মা। সঙ্গী পান যুবরাজ সিংকে। শুরুর ধাক্কা সামাল দেন দুজন মিলে। যুবরাজের অবদান ছিল অবশ্য সামান্যই, দারুণ সব শটে ম্যাচের মোড় বদলে দিয়েছেন রোহিত।

তবে ঝড় তোলার আগেই রোহিত পান নতুন জীবন। তাসকিনের বলে পয়েন্টে রোহিতের ক্যাচ ছেড়েছেন সাকিব। জীবন পেয়ে ব্যাটের গতিই পাল্টে যায় তার। পরের তিন বলেই চার-ছক্কা-চার!

যুবরাজকে (১৫) ফিরিয়ে ৫৫ রানের জুটি ভাঙেন সাকিব। কিন্তু রোহিত ব্যাট চালিয়ে যান আরও। আর দারুণ সব শটে বাংলাদেশের বোলিং এলোমেলো করে দেন হার্দিক পান্ডিয়া। মুস্তাফিজের এক ওভারে দুজন নেন ২১ রান। মাত্র ২৭ বলে ৬১ রানের জুটি গড়েন দুজন।

দুজনই আউট হয়েছেন আল আমিনের করা ইনিংসের শেষ ওভারে। সৌম্য সরকারের দারুণ ক্যাচে ফিরেছেন রোহিত। জীবন পাওয়ার সময় রান ছিল ২৮ বলে ২১, পরের ২৭ বলে করেছেন ৬২!

১৮ বলে ৩১ করে লং অনে ক্যাচ দেন পান্ডিয়া। শেষ বলের ছক্কায় ইনিংস শেষ করে ধোনি।

বাংলাদেশের আল আমিন নিয়েছেন ৩ উইকেট। মাশরাফি, মাহমুদউল্লাহ ও সাকিব একটি করে। ৪ ওভারে ৪০ রান দিয়ে উইকেট শূন্য মুস্তাফিজ।

সহায়ক উইকেটে বোলারদের কাছে চাওয়া ছিল আরও বেশি। পরে ব্যাটসম্যানরাও পারেননি দারুণ কিছু করতে। বাংলাদেশের শুরুটাও তাই হতাশাময়!

ক্রিকেট

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে