Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০২-২৪-২০১৬

দেশে ভার্চুয়াল কার্ড চালু করলো ডাচ-বাংলা ব্যাংক

দেশে ভার্চুয়াল কার্ড চালু করলো ডাচ-বাংলা ব্যাংক

ঢাকা, ২৪ ফেব্রুয়ারী- ছাত্র, ব্যক্তি পর্যায়ের অ্যাপস বা প্রোগ্রামারদের অনলাইন পেমেন্ট সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে বেসিসের দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ হলো। সম্প্রতি কেন্দ্রীয় ব্যাংক সকল ব্যাংককে ভার্চুয়াল কার্ড চালুর নির্দেশনা দেয়। এরই প্রেক্ষিতে ইন্টারন্যাশনাল ভার্চুয়াল ক্রেডিট কার্ড চালু করেছে ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড। মঙ্গলবার রাজধানীর একটি হোটেলে বেসিসের আয়োজনে ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই ভার্চুয়াল কার্ডের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করে। 

বেসিস সভাপতি ও এফবিসিসিআই পরিচালক শামীম আহসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ডাচ-বাংলা ব্যাংকের চেয়ারম্যান সায়েম আহমেদ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক কে. এস. তাবরেজ, বেসিসের সহ-সভাপতি রাসেল টি আহমেদ, পরিচালক সানি মো. আশরাফ খানসহ বেসিসের কার্যনির্বাহী কমিটির নেতৃবৃন্দ ও ডাচ বাংলা ব্যাংকের কর্মকর্তাবৃন্দ। 

সংবাদ সম্মেলনে শামীম আহসান বলেন, ‘বিভিন্ন ধরনের মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন অনলাইন বাজারে ছাড়ার জন্য বিশ্বখ্যাত অ্যাপ স্টোরে নির্দিষ্ট অর্থের বিনিময়ে নিবন্ধন করতে হয়। এছাড়াও অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট সম্পর্কিত বিভিন্ন আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের কোর্স, বুটক্যাম্প কিংবা ডোমেইন কেনার ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক পেমেন্ট সিস্টেমের প্রয়োজন হয়।  এ অর্থ দেওয়ার সহজ সুবিধা না থাকায় দেশের ব্যক্তি পর্যায়ের অ্যাপস নির্মাতা বা প্রোগ্রামাররা অনেকেই নানা সমস্যার সম্মুখীন হন। 

শামীম আহসান আরও বলেন, ‘এই সমস্যার সমাধানে পদক্ষেপ নেয়ার জন্য দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে দাবি জানিয়ে আসছিল বেসিস। বেসিসের দাবি ও অ্যাপস ডেভেলপার ও প্রোগ্রামারদের সমস্যার কথা বিবেচনায় নিয়ে বিশেষ ভার্চুয়াল কার্ড চালুর নির্দেশনা দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। আমরা প্রত্যাশা করি এই কার্ডের মাধ্যমে ব্যক্তিগত পর্যায়ে অনলাইন লেনদেনে যে ভোগান্তি ছিল তা দূর হবে। 

সায়েম আহমেদ বলেন, ‘দেশের শিক্ষার্থী, অ্যাপস ডেভেলপারদের কথা বিবেচনায় এনে ডাচ-বাংলা ব্যাংকই প্রথম ভার্চুয়াল কার্ড চালু করেছে। ডাচ-বাংলা ব্যাংকের সকল শাখা থেকে এই প্রি-পেইড কার্ডটি কেনা যাবে।’

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা অনুযায়ী এই কার্ড গ্রহণের জন্য আবেদনকারীকে প্রোগ্রামার, ডেভেলপার বা ফ্রি ল্যান্সার হিসেবে প্রমাণ দেখাতে বাংলাদেশ অ্যাসিসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস থেকে অনুমোদন নেয়া যাবে। 

এই কার্ড পেতে হলে বেসিস বা আইসিটি ডিভিশনের দেওয়া মোবাইল অ্যাপ/ গেইম/ হ্যাথাকন ইত্যাদির সার্টিফিকেট প্রমাণ হিসেবে উপস্থাপন করে ডাচ-বাংলা ব্যাংক থেকে নির্দিষ্ট ফরমে আবেদন করতে হবে। যদিও এর আগে বেসিসের সদস্য কোম্পানিগুলো এ ধরণের সুবিধা পেতেন। এখন থেকে ব্যক্তিগত পর্যায়ের যেকোনো জায়গা থেকে ভার্চুয়াল কার্ড গ্রহণ করা যাবে। 

এই কার্ড ব্যবহার করে বিভিন্ন অনলাইন মার্কেটপ্লেস যেমন উইন্ডোজ, অ্যানড্রয়েড, আইওএস, ব্ল্যাকবেরি, ফায়াফক্সে অ্যাপসের নিবন্ধন ফি জমা দেয়া যাবে। এছাড়া গেমস, সফটওয়্যার লাইসেন্স, মোবাইল কিংবা গেমস অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট, ভেন্ডর সার্টিফিকেশন পরীক্ষার ফি, যেকোনো ডোমোইন নিবন্ধন, হোস্টিং, ক্লাউড সেবা, হ্যাথাকন ইত্যাদি ক্ষেত্রে বছরে সর্বোচ্চ ৩০০ ডলার অর্থ পরিশোধ করা যাবে। 

ডাচ-বাংলা ব্যাংকের এই ভার্চুয়াল কার্ডের জন্য ১০০ টাকা ফি প্রদান করতে হবে। প্রতিটি কার্ডের মেয়াদ পাঁচ বছর। এই কার্ডের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা টোফেল এবং জিআরই পরীক্ষার ফিস প্রদান করতে পারবেন। তবে এই কার্ড দিয়ে টিউশন ফি জমা দেয়ার সুযোগ নেই।

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে