Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০২-২১-২০১৬

আগুনে ঝলসে দেওয়া হলো কিশোরীর শরীর

আগুনে ঝলসে দেওয়া হলো কিশোরীর শরীর

রংপুর, ২১ ফেব্রুয়ারী- অভাব-অনটনে পড়াশোনার সুযোগ থেকে বঞ্চিত। ক্ষুধার জ্বালায় ছোট্ট শরীরে বেছে নিতে হলো ঝিয়ের কাজ। কিন্তু সেই কোমল শরীরই পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। পোড়া শরীর নিয়ে ১২ বছরের পূর্ণিমা রানী এখন হাসপাতালের শয্যায়—যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে।

ঘটনাটি ঘটেছে রংপুর নগরের মুলাটোল এলাকায়। গত শুক্রবার রাতে সারা শরীরে ব্যান্ডেজ নিয়ে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন রয়েছে কিশোরী পূর্ণিমা। এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। পুলিশ গৃহকর্তা সুধীর কুমার ওরফে খোকন ও তাঁর স্ত্রী পপি রানীকে গ্রেপ্তার করেছে।

পূর্ণিমার পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, গত ১৪ ফেব্রুয়ারি নগরের মুলাটোল এলাকায় শাহী জর্দা কোম্পানির ব্যবস্থাপক সুধীর কুমারের ভাড়া বাসায় গৃহকর্মী হিসেবে কাজ শুরু করে পূর্ণিমা। জেলার গঙ্গাচড়া উপজেলার নোহালী ইউনিয়নের কচুয়া এলাকার দিনমজুর প্রভাত চন্দ্র রায় ও মাধবী রানী রায়ের মেয়ে সে।

ভুক্তভোগীর ভাষ্য ও মামলা সূত্রে জানা যায়, কাজে যোগ দেওয়ার পর থেকেই নানা ছুতোয় পূর্ণিমাকে মারধর শুরু করেন গৃহকর্ত্রী পপি রানী। শুক্রবার সকালেও তাকে মারধর করা হয়। সন্ধ্যার পর আবার মারধর করা হয়। এ সময় উত্তেজিত হয়ে পূর্ণিমার পরনের কাপড়ে আগুন জ্বালিয়ে দেন পপি। এতে কিশোরীর শরীর ঝলসে যায়। অবস্থা বেগতিক দেখে গৃহকর্তা সুধীর মেয়েটিকে পাগলাপীর এলাকায় শাহী জর্দা কারখানায় নিয়ে স্থানীয় চিকিৎসককে দেখানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু ততক্ষণে ঘটনা জানাজানি হলে স্থানীয় ব্যক্তিরা পুলিশে খবর দেন। রাত ১১টার দিকে পুলিশ সেখানে গিয়ে মেয়েটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। এ সময় হাতেনাতে গৃহকর্তা সুধীর ও শহরের মুলাটোলের বাড়ি থেকে তাঁর স্ত্রীকে গ্রেপ্তার করা হয়।

হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের দায়িত্বে নিয়োজিত চিকিৎসক মারুফুল ইসলাম বলেন, মেয়েটির অবস্থা আশঙ্কাজনক। ৪৮ ঘণ্টা পার না হওয়া পর্যন্ত কিছু বলা সম্ভব নয়। তার গলার নিচ থেকে বুক, ডান হাত, বাঁ হাত ও পিঠের প্রায় ১৭ শতাংশ পুড়ে গেছে।
গতকাল শনিবার হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে গিয়ে দেখা যায়, যন্ত্রণায় ছটফট করছে পূর্ণিমা। সেখানে রয়েছে তার ফুফু আরতি রানী। জানতে চাইলে ভাঙা ভাঙা গলায় পূর্ণিমা বলে, ‘কাজের জন্য প্রায়

দিন খালি মারে। কেন মারেন জাইনবার চাইলে আরও মারে। শেষোত রাগ হয়া ওমরা (কত্রী৴) দিয়াশলাইটা জ্বলেয়া গায়োত আগুন দেছে।’

পূর্ণিমার বাবা প্রভাত চন্দ্র ঘটনার দিন বগুড়ায় ছিলেন। তিনি মুঠোফোনে বলেন, ‘মেয়ের ঘটনা জাইনবার পায়া মনটা খালি ছটফট করতোছে।’ তিনি জানান, তাঁর স্ত্রীও দিনমজুরির কাজ করেন। তাঁদের চার সন্তানের মধ্যে পূর্ণিমা দ্বিতীয়। অভাব-অনটনের কারণে মেয়েকে স্কুলে পাঠাতে পারেননি।

কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবদুল আজিজ বলেন, ঘটনার রাতেই পুলিশ বাদী হয়ে বাসার গৃহকর্তা ও গৃহকর্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা করেছে। গ্রেপ্তার হয়েছেন দুজনই।

রংপুর

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে