Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০২-২১-২০১৬

অমর একুশে ঘুচালো কাঁটাতারের ব্যবধান

অমর একুশে ঘুচালো কাঁটাতারের ব্যবধান

ঢাকা, ২১ ফেব্রুয়ারী- কাঁটাতারের ব্যবধান ভুলে সীমান্তের দুই পারের মানুষ যৌথভাবে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানালেন। পালন করলেন আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস।

ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের সিপাহীজলা জেলার কমলাসাগর আর বাংলাদেশের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার কসবা উপজেলার তারাপুর সীমান্ত হাটে দুই দেশ ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাল। সীমান্ত হাট সাক্ষী হয়ে রইল অভূতপূর্ব এ মিলনমেলার। এ ছাড়া যশোরে বেনাপোল-পেট্রাপোল শূন্যরেখায়ও হয়ে গেল দুই বাংলার ভাষাপ্রেমীদের মিলনমেলা।

কসবায় সীমান্ত হাট পরিচালনা পর্ষদের যৌথ উদ্যোগে সীমান্ত হাটে অস্থায়ীভাবে নির্মাণ করা শহীদ মিনার। সেখানে দুপুর ১২টায় সীমান্তের দুই পারের অগণিত মানুষের উপস্থিতিতে দুই দেশের কর্মকর্তারা ভাষা শহীদদের স্মরণে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। পরে প্রদীপ প্রজ্বালনের মধ্যে দিয়ে আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয়।

পরে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। ত্রিপুরা রাজ্যের সিপাহীজলা জেলার শাসক (ডিএম) প্রদীপ কুমার চক্রবর্তীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সরাইলের আঞ্চলিক কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ফজলে কাদের আহাম্মেদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত জেলা হাকিম (এডিএম) লুৎফুর নাহার, সিপাহীজলা জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার চাকমা প্রমুখ।

আলোচনা সভা শেষে দুই দেশের শিল্পীদের সমন্বয়ে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। দুই দেশের শিল্পীরা গান পরিবেশন করেন।

সীমান্ত হাটে যৌথভাবে একুশে ফেব্রুয়ারি উদযাপনের বিষয়টি জানাজানি হলে সকাল থেকে দুই দেশের বাংলা ভাষার মানুষেরা হাটে জড়ো হতে শুরু করেন। একপর্যায়ে পুরো এলাকায় কানায় কানায় ভরে যায়।

যশোরে বেনাপোল-পেট্রাপোল সীমান্তের শূন্যরেখায় বাংলা ভাষাপ্রেমীদের মিলনমেলার মঞ্চে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের খাদ্য ও সরবরাহ মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন, একুশের চেতনা একটি মাদুলি করে আমাদের কাছে রাখতে হবে। শুধু একটি দিন একুশে ফেব্রুয়ারি স্মরণ করলে হবে না। বছরের ৩৬৫ দিন আমাদের এ চেতনা লালন করতে হবে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেন, ‘ভাষার কোনো সীমারেখা নেই। থাকতে পারে না। আসুন, আমরা ভাষার টানে দুই বাংলার মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়ে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের শেকড় উপড়ে ফেলি।’
সকাল ১০টায় বেনাপোল-পেট্রাপোল সীমান্তে¯শূন্যরেখায় স্থাপিত অস্থায়ী শহীদ বেদিতে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান দুই দেশের মানুষ। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে ভারতের প্রতিনিধি দল বেনাপোলের মিলনমেলা মঞ্চে আসেন। উত্তরীয় পরিয়ে সেখানে তাঁদের স্বাগত জানানো হয়। পরে বেনাপোল পৌরসভার মেয়র আশরাফুল আলমের সভাপতিত্বে আলোচনা হয়।

২০০২ সাল থেকে মাতৃভাষা দিবসে সীমান্তের শূন্যরেখায় দুই বাংলার মানুষের এ মিলন মেলার আয়োজন করা হচ্ছে।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে