Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (1 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০২-২১-২০১৬

‘৬৪ বছরেও অর্জিত হয়নি ভাষা আন্দোলনের উদ্দেশ্য’

‘৬৪ বছরেও অর্জিত হয়নি ভাষা আন্দোলনের উদ্দেশ্য’

ঢাকা, ২১ ফেব্রুয়ারী- মাতৃভাষার জন্য পাকিস্তানি শাসক গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে বাংলার দামাল ছেলেরা জীবন দিয়েছিলেন ৬৪ বছর আগে। কিন্তু ৫২’র ভাষা আন্দোলনে যে উদ্দেশ্যে রাস্তায় নেমে এসেছিলেন হাজারও তরুণ-তরুণী, ৬ দশক পর এসেও শুধুমাত্র মানসিক দৈন্যতার কারণে সে উদ্দেশ্য আজও অর্জিত হয়নি বলে আক্ষেপ করেছেন ভাষা সৈনিকরা। 

সাধারণ শিক্ষা থেকে শুরু করে জ্ঞান-বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে বাংলা ভাষার সর্বোচ্চ প্রয়োগ করার মাধ্যমেই ভাষা আন্দোলনের মূল লক্ষ্য অর্জন করা সম্ভব বলে মনে করেন বিশ্লেষকরা। রোববার সময় টিভি'র এক প্রতিবেদনে ওঠে আসে এসব তথ্য। 

প্রতিবেদনে বলা হয়, ১৯৪৮ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তান গণপরিষদের অধিবেশনে বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার কথা থাকলেও তা না হওয়ায় ফুঁসে ওঠে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান। ছাত্র-জনতার আন্দোলনে নিরুপায় হয়ে প্রাদেশিক মুখ্যমন্ত্রী বাংলাকে অন্যতম রাষ্ট্রভাষার স্বীকৃতিসহ ৮ দফা প্রস্তাব গ্রহণ করলেও রাষ্ট্রীয় সফরে এসে কথা রাখেননি পাকিস্তানের গভর্নর জেনারেল জিন্নাহ।

পাকিস্তানের গভর্নর জেনারেল জিন্নাহ বলেন, উর্দুই হবে পাকিস্তান একমাত্র রাষ্ট্রভাষা। (উর্দু শেল বি দ্য অনলি স্টেট ল্যাঙ্গুয়েজ অব পাকিস্তান)। আর এতেই আন্দোলনের দাবানল ছড়ায় পুরো পূর্ব পাকিস্তানে। কারফিউ ভেঙে ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদের বের করা মিছিলে গুলি চালায় পুলিশ। বুলেটের আঘাতে রাস্তায় লুটিয়ে পড়েন সালাম, রফিক, বরকতরা। ২২ ফেব্রুয়ারি তা রূপ নেয় গণ আন্দোলনে। ১৯৫৬ সালের ২৯ ফেব্রুয়ারি প্রাদেশিক পরিষদে বাংলা পায় তৎকালীন পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষার স্বীকৃতি।

আজ যে ভাষায় আমরা কথা বলছি, যে শহীদ মিনারে দাঁড়িয়ে আছি, তা অর্জিত হয়েছে অনেক রক্তের বিনিময়ে। তবে প্রশ্ন হলো ভাষা সংগ্রামীদের কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য আমরা কতটুকু অর্জন করতে পেরেছি? স্বাধীন বাংলাদেশে রাষ্ট্রভাষা বাংলা কি তার যোগ্য মর্যাদায় প্রতিষ্ঠা পেয়েছে?

শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘মান সম্মত বাংলা চালু করতে হবে। এই অভাবটি যতদিন না পর্যন্ত পূরণ হচ্ছে ততদিন পর্যন্ত আমি মনে করি না ভাষা আন্দোলনের চেতনা বাস্তবায়িত হবে।’

আর শিক্ষাবিদ অধ্যাপক আবুল কাশেম ফজলুল হক বলেন, ‘বিচার ব্যবস্থায় বাংলা প্রচলনের গুরুত্ব দিতে হবে। ১৯৯১ সাল থেকে আমরা যে নির্বাচিত সরকার পেয়েছি এই নির্বাচিত সরকারগুলো যে দলেরই হোক খুব বেশি সাম্রাজ্যবাদ নির্ভর। বিশ্বব্যাংক আমাদেরকে চালায়। এই খানে এসে বাংলা প্রচলন ব্যাহত হচ্ছে।’

ভাষা সংগ্রামীরা এ অবস্থার জন্য দুষছেন রাষ্ট্রের সকল স্তরে বিরাজমান অসচেতনতাকে। ভাষা সংগ্রামী আহমদ রফিক বলেন, ‘রাষ্ট্রভাষা বাংলার যদি এই পরিণত হবে। তাহলে ১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনের কি প্রয়োজন ছিল। এটাকে আমি হীনমন্যতাই বলি। সংবিধানে বলছি সর্বস্তরে হবে বাংলা কিন্তু আপনি করছেন না। তাহলে এটা কি সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক নয়?’  দেশপ্রেম আর স্বাধিকারের চেতনায় উজ্জীবিত ৫২’র ধ্যান-ধারনা লালন করা গেলেই সার্থকতা খুঁজে পাবে ৭১-এ অর্জিত মহান বিজয় বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। 

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে