Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 1.0/5 (1 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০২-২১-২০১৬

পদ্মার চরে ভাষা আন্দোলনের ভাস্কর্য

ইলিয়াস আরাফাত


পদ্মার চরে ভাষা আন্দোলনের ভাস্কর্য

রাজশাহী, ২১ ফেব্রুয়ারী- প্রমত্তা পদ্মার সে আগের রূপ নেই, নেই পানির স্রোত। শান্ত পদ্মায় জেগে উঠেছে অসংখ্য বালু চর। আর চরের এই প্রাকৃতিক দৃশ্য উপভোগ করতে পদ্মাপাড়ে হাজির হন বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ। তবে মহান একুশে ফেব্রুয়ারি পদ্মার পাড়ে ঘুরতে এলে যে কারো চোখে পড়বে ভাষা আন্দোলনের ভাস্কর্য।

শনিবার পড়ন্ত বিকেলে ধূ-ধূ বালুচরে শিল্পীর ছোঁয়ায় শহীদ মিনারসহ বাংলা বর্ণমালার ভাস্কর্য গড়ে তুলছে কিছু তরুণ-তরুণী। এরা সবাই রাজশাহী আর্ট ক্লাবের সদস্য। এদের একজন হলেন রাজশাহী চারুকলা মহাবিদ্যালয়ের গ্রাফিক্স অ্যান্ড ডিজাইনের শিক্ষার্থী ফারজানা জ্যোতি। তিনি বাংলা স্বরবর্ণের ‘অ’ প্রথম অক্ষরের আকৃতি বালু দিয়ে ফুটিয়ে তুলছেন। কেউ বা আবার ব্যঞ্জনের ‘ক’ বর্ণের মাত্রাকে ঠিক করছেন। 

কাজের ফাঁকে ফারজানা জ্যোতি বলেন, ‘পদ্মার চরে সারাদিনে অসংখ্য দর্শনার্থী ঘুরতে আসেন। তারা প্রাকৃতিক সোন্দর্য উপভোগ করে ফিরে যান। কিন্তু আমরা যে ভাষায় কথা বলি, সেই ভাষাটাও সহজে অর্জন হয়নি। অনেক আন্দোলন সংগ্রহ ও ত্যাগের মাধ্যমে আমরা মায়ের ভাষা বাংলা পেয়েছি। তাই পদ্মার চরে ভাষার মাসে এই কাজ করতে পেরে নিজেকে গর্বিত মনে করছি।’

৮০ ফুট জায়গা নিয়ে পদ্মার চরে এই ভাস্কর্য তৈরি করা হয়েছে। তবে ভাস্কর্যের পাশেই পদ্মা নদীর পানি। তারপরই রাজশাহী মহানগরীর পদ্মা গার্ডেন সংলগ্ন এলাকায় নদীর পাড়। আর এই পাড়েই দর্শনার্থীদের জন্য সামিয়ানা দিয়ে তৈরি করা হয়েছে ছোট ঘর। এই ঘরে থাকবে ভাষা আন্দোলনের ছবি ও কিছু বইপত্র। 

এ ব্যাপারে আয়োজকদের মধ্যে মোহমেনা আফরোজা বলেন, অনেকেই ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস জানে না। এমনকি অনেক নতুন প্রজন্মের এই ইতিহাস সম্পর্কে ভালো ধারণা নেই। তাদের জন্য এই আয়োজন করা হয়েছে। তারা আমাদের ভাস্কর্য দেখার পরপর এই ঘরে এসে তা জানতে পারবেন। এজন্য আমাদের সদস্যরা দর্শনার্থীদের সহযোগিতা করবেন।

বালুর বুকে ভেসে উঠেছে সালাম-বরকতদের আত্মত্যাগের ছবি। আর এই ছবি দেখতে গিয়ে তার ছোট মেয়ে মৌসুমীকে হাতের আঙুল তুলে বর্ণনা দিচ্ছেন পদ্মার পাড়ে ঘুরতে আসা এক গৃহিনী জামিলা খাতুন। তিনি বলেন, এই ধরনের আয়োজন সত্যি প্রশংসার দাবিদার। 

তারা আমাদের পদ্মার ধরে এসেও আবার স্মরণ করিয়ে দিলেন ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসের কথা। এজন্য আমার মেয়েকে ইতিহাস সম্পর্কে জানানোর চেষ্টা করছিলাম।

রাজশাহী আর্ট ক্লাবের সভাপতি হাসান ইমাম রাসেল বলেন, রাজশাহীর পিছিয়ে পড়া চারুকলা চর্চাকে এগিয়ে নিতে আমরা ২০১৫ সালে রাজশাহী আর্ট ক্লাব গঠন করেছি। সঙ্গে সঙ্গে মহান একুশে ফেব্রুয়ারিকে সামনে রেখে বালু ভাস্কর্যের আয়োজন করেছি আমরা। রাজশাহীর পদ্মায় শুষ্ক মওসুম হওয়ায় বিশাল চরের সৃষ্টি হয়েছে। আর এ চরটাকে কাজে লাগিয়ে প্রথম বারের মতো আমরা একুশে ফেব্রুয়ারির ভাষা আন্দোলনকে তুলে ধরছি। 

আশা করছি রাজশাহীর সকল মানুষের এ ব্যতিক্রমধর্মী চর্চাকে পছন্দ হবে এবং তারা উৎসাহিত হবে। পরবর্তীতে যেন আমরা এ চরটাকে নিয়ে ব্যাপক পরিকল্পনা করতে পারি ও কাজটি আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ছড়িয়ে দিতে পারি। যাতে বিদেশি পর্যটকরা এ পদ্মার চর দেখতে ছুটে আসেন।

রাজশাহী

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে