Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০২-২০-২০১৬

‘শর্ত’ ছাড়াই বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ আইন করার প্রতি​ গুরুত্বারোপ প্রধান বিচারপতির

‘শর্ত’ ছাড়াই বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ আইন করার প্রতি​ গুরুত্বারোপ প্রধান বিচারপতির

ঢাকা, ২০ ফেব্রুয়ারী- কোনো ধরনের ‘শর্ত’ ছাড়াই বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ আইন প্রণয়নের প্রতি গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধান বিচারপতি । এ ছাড়া তালাকের ক্ষেত্রে নারী ও পুরুষের সমঅধিকার থাকা প্রয়োজন বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

আজ শনিবার বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতি (বিএনডব্লিউএলএ) আয়োজিত নারী আইনজীবীদের সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধান বিচারপতি এ কথা বলেন।
বর্তমানে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ আইনের খসড়ায় বিশেষ শর্ত বা বিধান যুক্ত করে মেয়েদের ১৬ বছর বয়সেও বিশেষ কারণে অভিভাবক চাইলে বা আদালতের অনুমতিতে বিয়ে দেওয়ার যে বিধান রাখা হয়েছে—তা নিয়ে বেশ বিতর্ক চলছে।

রাজধানীর সিরডাপ ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স সেন্টারে নারী আইনজীবীদের সম্মেলনে জাতিসংঘের নারীর প্রতি সকল প্রকার বৈষম্য বিলোপ বা সিডও সনদ বাস্তবায়নে দক্ষিণ এশিয়া প্রেক্ষাপটে পারিবারিক আইনের সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জ নিয়ে আলোচনা করেন প্রধান বিচারপতি। তিনি সনদটি বাস্তবায়নে সম্মিলিত উদ্যোগের বিষয়ে গুরুত্ব দেন।

সম্মেলনে দক্ষিণ এশিয়া প্রেক্ষাপটে পারিবারিক আইনের সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জ বিষয়ক মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিএনডব্লিউএলএর সদস্য তানিয়া ফেরদৌস। মূল প্রবন্ধের বিভিন্ন সুপারিশের প্রতি একমত পোষণ করেন প্রধান বিচারপতি। প্রধান বিচারপতি বলেন, ভারতের মুসলিম নারী এবং বাংলাদেশের হিন্দু নারীদের মধ্যে যে বঞ্চনা চলছে, তার পেছনে এক ধরনের রাজনীতি কাজ করে।
ধর্ষণের শিকার নারীকে জেরার সময় আইনজীবীরা যে ধরনের আজেবাজে প্রশ্ন করেন তা নিয়ে বিএনডব্লিউএলএ কেন সোচ্চার ভূমিকা পালন করছে না তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন প্রধান বিচারপতি।
সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন বিএনডব্লিউএলএর প্রেসিডেন্ট ফাওজিয়া করিম ফিরোজ। এতে স্বাগত বক্তব্য দেন বিএনডব্লিউএলএর নির্বাহী পরিচালক সালমা আলী।

সম্মেলনে ভারতের দিল্লি হাইকোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী অপর্ণা ভাট এবং নেপালের জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সদস্য মোহনা আনসারি। তাঁরা নিজ নিজ দেশে সিডও বাস্তবায়নের চিত্র তুলে ধরেন। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর সংস্কৃতি, আচার-আচরণ, নারীর বঞ্চনাসহ প্রায় সব ক্ষেত্রেই অনেক মিল আছে। তাই সিডও বাস্তবায়নে এক দেশের ভালো উদাহরণগুলো অন্য দেশ গ্রহণ করতে পারে বলে উল্লেখ করেন তাঁরা।

সম্মেলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক শাহনাজ হুদা বলেন, বাংলাদেশের সংবিধানে রাষ্ট্রীয় ও জনজীবনে সব ক্ষেত্রে নারী-পুরুষে সমঅধিকারের কথা বলা হলেও ব্যক্তিগত জীবনকে সংবিধানের বাইরে রাখা হয়েছে। তিনি উত্তরাধিকার আইনে হিন্দু, মুসলমানসহ বিভিন্ন নারীদের মধ্যে যে বৈষম্য বা কারও শুধু কন্যা সন্তান থাকলে সেই কন্যাকে যে ধরনের বৈষম্যের ভেতর দিয়ে যেতে হয় তা ব্যাখ্যা করেন।

বিএনডব্লিউএলএর প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক সিগমা হুদা বলেন, শুধু নারী-পুরুষে বৈষম্য নয়, দেশের এক ধর্মের নারীদের সঙ্গে অন্য ধর্মের নারীদের মধ্যেও অধিকার ভোগের ক্ষেত্রে বিভিন্ন বৈষম্য চলছে। সর্বোচ্চ ক্ষমতায় যেসব নারীরা অবস্থান করছেন তাঁদের এ ধরনের বিষয়ে সোচ্চার ভূমিকা পালনের জন্যও তিনি আহ্বান জানান।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে