Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.5/5 (2 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০২-২০-২০১৬

২৩ জুন ইইউ গণভোট ডাকলেন ক্যামেরন

২৩ জুন ইইউ গণভোট ডাকলেন ক্যামেরন

লন্ডন, ২০ ফেব্রুয়ারী- ইউরোপীয় ইউনিয়নে (ইইউ) যুক্তরাজ্যের থাকা না থাকার প্রশ্নে আগামী ২৩ জুন গণভোট ডেকেছেন প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন। মন্ত্রিপরিষদের এক ব্রিফিং শেষে ডাউনিং স্ট্রিটে গণভোটের ঐতিহাসিক এ ঘোষণা দেন তিনি।

গণভোটকে এ যাবৎকালের সবচেয়ে বড় সিদ্ধান্ত অভিহিত করে ক্যামেরন বলেন, ইইউ’য়ে থাকার পক্ষেই প্রচার চালাবেন তিনি। মন্ত্রিপরিষদের অনেক মন্ত্রীই ইইউ’য়ে ‍যুক্তরাজ্যের থাকার পক্ষে মত দিলেও অন্যান্যরা ক্যামেরনের বিপক্ষেই প্রচার চালাবেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।

ক্যামেরন সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বের হয়ে যাওয়া মানে অন্ধকারে ঝাঁপ দেওয়া। তিনি ভোটারদেরকে সংস্কার চুক্তি সমর্থন করার আহ্বান জানান। কিন্তু মন্ত্রীরা এরই মধ্যে ইইউ’য়ের পক্ষ-বিপক্ষ দুই শিবিরে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তেরেসা মে ইইউ’য়ে থাকার পক্ষের শিবিরের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। কিন্তু বিচারমন্ত্রী মিশেল গোভ ইইউ ত্যাগের পক্ষের শিবিরে আছেন। লন্ডনের মেয়র বরিস জনসনও এ শিবিরে যোগ দেবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে তিনি এখনও তার মত জানাননি।

প্রধানমন্ত্রী ক্যামেরন বলছেন, ব্রাসেলসে দুইদিনের সম্মেলনে উপনীত তার সংস্কার চুক্তিতে যুক্তরাজ্য ইইউ-য়ে ‘বিশেষ মর্যাদা পাবে।এ কারণে এ ইউনিয়নে যুক্তরাজ্যকে ধরে রাখার ‘প্রাণপণ’ চেষ্টা করবেন তিনি।

এক বিবৃতিতে ক্যামেরন ভোটারদের সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, যারা ইইউ ছাড়তে চায় তারা জনগণকে ইউরোপের অবাধ বাণিজ্যের বাজারে যুক্তরাজ্যের ব্যবসা-বাণিজ্য চলার নিশ্চয়তা দিতে পারবে না। কর্মরত মানুষদের চাকরিরও নিশ্চয়তা দিতে পারবেনা। অনিশ্চয়তার এ সময়ে তারা কেবল ঝুঁকিই ডেকে আনছে-  অনেকটা অন্ধকারে ঝাঁপ দেওয়ার মতো।

ভোটারদের প্রতি সরাসরি এক আবেদনে ক্যামেরন বলেন, “সিদ্ধান্ত আপনাদের হাতে। তবে আমার সুপারিশ স্পষ্ট। আর তা হচ্ছে ইউরোপীয় ইউনিয়নে থাকলেই ব্রিটেন অনেক বেশি নিরাপদ, শক্তিশালী এবং ভাল থাকবে।”

ক্যামেরনের সঙ্গে একমত প্রকাশ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তেরেসা মে ও বলেছেন, ইইউ একেবারে নিখুঁত না হলেও নিরাপত্তা, অপরাধ এবং সন্ত্রাস থেকে সুরক্ষা, ইউরোপের সঙ্গে বাণিজ্য এবং বিশ্ববাজারে প্রবেশের জাতীয় স্বার্থে ইইউ’য়ে থাকাটাই প্রয়োজনীয়।

ওদিকে, বিপক্ষ শিবিরের মিশেল গোভ মনে করেন, ইইউ এর বাইরে থাকলেই ব্রিটেন অনেক বেশি স্বাধীন, সুষ্ঠু এবং ভাল থাকবে। আর নিরাপত্তার ব্যাপারে তিনি বলেন, অনিশ্চিত এ পৃথিবীতে নিরাপত্তা দেওয়া তো দূর, ইইউ এর নীতি এখন অনেক বেশি অস্থিতিশীলতা এবং নিরাপত্তাহীনতা সৃষ্টি করছে।

কমন্স নেতা ক্রিস গ্রাইলিং, সংস্কৃতি মন্ত্রী, শ্রম ও পেনশন মন্ত্রী, উত্তর আয়ারল্যান্ড মন্ত্রী,কর্মসংস্থান বিষয়ক মন্ত্রী সবাই ইইউ ত্যাগের পক্ষের শিবিরে যোগ দিয়েছেন। আর ক্যামেরনের বিবৃতির পর তার সঙ্গে যোগ দিচ্ছেন আরও যেসব মন্ত্রী তারা হচ্ছেন, বাণিজ্যমন্ত্রী, আন্তর্জাতিক উন্নয়ন মন্ত্রী ও পরিবহন মন্ত্রী।

ইউরোপ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে